বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের চ্যালেঞ্জের মুখে টাইগাররা

BD Timeআইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে স্বপ্নের সুপার টেনের ক্রিকেট যুদ্ধে  মাঠে নামবে টাইগাররা। নিজেদের মাঠে টি-টোয়েন্টির বর্তমান চ্যাম্পিয়ান ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মুখোমুখি হবে মুশফিকবাহিনী। মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হবে টি-টোয়েন্টির জমজমাট ক্রিকেট লড়াই।

বিশ্বকাপে চুড়ান্ত পর্বে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছাড়া বাকি দলগুলো যেন আরও শক্তিশালী। অর্থাৎ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছাড়াও ভারত,পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার মতো বড় দলগুলোর বিপক্ষে খেলতে হবে মুশফিকদের। তাই শক্তির বিচারে বাকি দলগুলোর চেয়ে ক্রিস গেইলের দলকেই কিছুটা দুর্বল বলতে হবে।

তাছাড়া ঘরের মাঠে টাইগাররা যে সেরা ক্রিকেট খেলে সে কথা ভালোভাবেই জানা রয়েছে গেইলদের। তবে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এখন পযর্ন্ত দুই দলের মধ্যে চারবার দেখা হয়েছে। যার মধ্যে দুই দলই জিতেছে দুটি করে। একদিনের ক্রিকেটে দুই দলের মধ্যে ২৫ ম্যাচ টাইগাররা জিতেছে ৭টিতে আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ জয় পেয়েছে ১৬ ম্যাচে।

তবে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট নিয়ে কোন পূর্বানুমান খাটে না। কারণ সীমিত ওভারের খেলায় কোন দল জিতবে তার হিসাব মেলানো কঠিন। প্রতিটি বলেই খেলার গতি প্রকৃতি বদলে যায়। শুধু তাই নয়, একজন বোলার অথবা একজন ব্যাটসম্যান পুরো ম্যাচ বদলে দিতে পার।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট শক্তির বিচারে বাংলাদেশের চেয়ে গেইলদেরই এগিয়ে রাখতে হবে। তারা কেবল বর্তমান চ্যাম্পিয়নই নয়, আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়েও মুশফিকদের চেয়ে কয়েক ধাপ এগিয়ে আছে। তাছাড়া মুশফিকদের চেয়ে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের অভিজ্ঞতা ঝুলিতে এগিয়ে আছে তারাই।

দুই দলের লক্ষ্য ভালো খেলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়া। নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভারতে কাছে হেরে টাইগারদের বিপক্ষে জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে গেইলরা। অবশ্য এর পেছনে কারণও রয়েছে। কারণ বিশ্বকাপে টিকে থাকতে হলে কাল টাইগারদের বিপক্ষে জিততেই হবে চ্যাম্পিয়নদের। কারণ নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে বড় ব্যবধানে হেরেছে দলটি। এ গ্রুপের সবচেয়ে দুর্বল দলই মুশফিকরাই। মুশফিকদের কাছে হারলে পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয় পাওয়া কঠিন হবে গেইলদের।

তবে নিজের মাঠে প্রথম রাউন্ডের শেষ ম্যাচে ভালো না করতে পারলেও চূড়ান্ত পর্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ছাড় দিতে রাজি নয় মুশফিকরা। মুশফিকের ভাষায়,‘আমরা এশিয়া কাপে আফগানিস্তানের সঙ্গে বড় ব্যবধানে হারলেও পরের ম্যাচেই পাকিস্তানের সঙ্গে ঘুরে দাঁড়িয়েছিলাম। তাই প্রথম রাউন্ডে হংকংয়ের কাছে হারলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আমরা সেরা ক্রিকেট খেলবো।’

এছাড়া মুশফিক বলেন,‘চূড়ান্ত পর্বে আমাদের হারাবার কিছুই নেই। আমরা কোন চাপে থাকবো না। আমাদের বিপক্ষে যারা থাকবে তারাই চাপে থাকবে। নিজের মাঠে আমরা চাপমুক্ত হয়ে সেরা ক্রিকেট খেলেই জিততে চাই।’

অবশ্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের কোচ গিবসনও জানিয়ে দিয়েছেন স্বাগতিকদের বিপক্ষে আমরা জয়ের জন্যই মাঠে নামবে। তবে ম্যাচটি একেবারেই সহজ হবে না। আমরা ভাল খেলেই জিততে চাই।’

২০০৭ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৬ উইকেটে হারিয়ে চমক দেখিয়েছিল। এরপর ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে গিয়ে মুশফিকরা হেরেছিল একমাত্র টি-টোয়েন্টিতে। ২০১১ সালে মুশফিকদের বিপক্ষে একমাত্র টি-টোয়েন্টিতে ৩ উইকেটে হেরে যায়। আর ২০১২ সালের সফরে এসে জয় পায় গেইলরা।

এ জাতীয় আরও খবর