বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শক্তিশালী ইসির ওপর গণতন্ত্র নির্ভর করে

532f4d870d42d-22একটি স্বাধীন, নিরপেক্ষ ও শক্তিশালী নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ওপর অনেকটাই নির্ভর করে গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ। কেননা, ইসির বিশ্বাসযোগ্যতা প্রশ্নের মুখে পড়লে আইনশৃঙ্খলার সমস্যাটি সামনে চলে আসবে। ভারতের নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের কাজটি এমনভাবে পরিচালনা করে, যার ওপর রাজনৈতিক দল ও জনগণের পাশাপাশি পুরো প্রক্রিয়া নিয়ে গণমাধ্যমের আস্থা রয়েছে। তবে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন ও টাকার ব্যবহারের মতো সমস্যাগুলো এখনো ভারতের সুষ্ঠু নির্বাচনের ক্ষেত্রে বাধা হিসেবে রয়ে গেছে।

গতকাল রোববার দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে প্রথম আলোসহ কয়েকটি গণমাধ্যমের কর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে ভারতের সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এস ওয়াই কোরাইশি এ মন্তব্য করেন। তবে বাংলাদেশের গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে সরাসরি মন্তব্য করা থেকে বিরত থেকেছেন বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশের সাবেক এই সিইসি।

এস ওয়াই কোরাইশি দাবি করেন, তাঁর দেশের জনগণ ইসিকে পুরোপুরি নিরপেক্ষ হিসেবে বিবেচনা করে। তাই পক্ষপাতহীন বিচারক হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির কাছে সবাই প্রত্যাশা করে। তাঁর মতে, নিরপেক্ষভাবে ভারতের আমলাতন্ত্রকে পরিচালনা কমিশনের সাফল্যের অন্যতম কারণ। এ প্রসঙ্গে এস ওয়াই কোরাইশি বলেন, যেহেতু আমলাদের প্রেষণে নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হয়, তাঁদের অসদুপায় অবলম্বনের কোনো সুযোগ থাকে না। রাজ্যের মুখ্য সচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব কিংবা পুলিশপ্রধানের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা, যাঁরা নিরপেক্ষ থাকবেন না বা কোনো দলের প্রতি পক্ষপাতদুষ্ট থাকবেন, এমন প্রশ্ন উঠলে তাঁদের পরিবর্তন করার নজির রয়েছে।

ভারতের নির্বাচনকে আরও সুষ্ঠু করার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন ও টাকার ব্যবহারকে তিনি অন্তরায় হিসেবে উল্লেখ করে ভারতের সাবেক সিইসি বলেন, দুর্বৃত্তদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ বন্ধের জন্য ২০ বছর ধরে দাবি জানানো হচ্ছে। প্রার্থীদের নির্বাচনী ব্যয়ের সীমারেখা বেঁধে দেওয়া হলেও অবৈধ টাকার ব্যবহার, ভোটারদের উৎকোচ দেওয়া অব্যাহত রয়েছে। এ বিষয়টি রোধে তিন বছর আগে নির্বাচনী ব্যয় পর্যবেক্ষণ বিভাগ চালু হয়েছে। ওই বিভাগ প্রণীত নতুন নীতিমালার একটি উল্লেখযোগ্য দিক হচ্ছে, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর প্রত্যেক প্রার্থীকে নতুন ব্যাংক হিসাব খুলতে হবে। প্রার্থীর সব ধরনের নির্বাচনী ব্যয় ওই ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে পরিচালিত হবে। এর উদ্দেশ্য সহজে প্রার্থীর নির্বাচনী ব্যয় পর্যবেক্ষণ করা। এ ছাড়া খরচ পর্যবেক্ষণকারীরাও নির্বাচনী প্রচারাভিযানের ১৪ দিন প্রার্থীর কর্মকাণ্ড ভিডিও করেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে তিনবার খরচের হিসাব দাখিল করেন প্রত্যেক প্রার্থী। বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালানো হয়। প্রার্থী নগদ অর্থ বহন করছেন কি না, সেটির ওপর নজরদারি রাখা হয়। বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যাংক থেকে তুলে নেওয়া হচ্ছে কি না, সেটি ব্যাংকের নজরে আনতে বলা হয়। এসব পদক্ষেপের ফলে পরিস্থিতির অনেক উন্নতি হলেও সমস্যা পুরোপুরি দূর হয়নি।

নির্বাচনের সময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কোনো ভূমিকা থাকে কি না, জানতে চাইলে এস ওয়াই কোরাইশি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হচ্ছে সেই দপ্তর, যারা একেবারে শেষ মুহূর্তে নির্বাচনের তফসিল সম্পর্কে জানতে পারে। অন্য প্রার্থীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কোনো তফাত থাকে না। তাঁর জন্য বিশেষ কোনো ক্ষমতা বা সুবিধাও নেই। তিনি শুধু সরকারি হেলিকপ্টার ব্যবহারের সুবিধা ভোগ করেন। নিরাপত্তার স্বার্থেই তাঁকে এ সুবিধা দেওয়া হয়। তবে হেলিকপ্টার ব্যবহারের জন্য তাঁকে রাজনৈতিক দলের মাধ্যমে ভাড়া পরিশোধ করতে হয়। 

পেইড নিউজ বা কেনা খবরের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে এস ওয়াই কোরাইশি বলেন, ‘আমরা সব সময় মনে করি, গণমাধ্যমের সহায়তা ছাড়া গণতন্ত্র বিকশিত হতে পারে না। তবে কেনা খবর একটি বড় সমস্যা। সবগুলো রাজনৈতিক দলই এর শিকার হচ্ছে। তারাই আমাদের এসে বলছে, এ ধারা বন্ধ করুন। সবচেয়ে চমকপ্রদ হচ্ছে, পেশাদার গণমাধ্যমও এটি পছন্দ করছে না। তারাই আমাদের কাছে এ-সম্পর্কিত তথ্য-প্রমাণ নিয়ে এসেছেন। ৯৫ শতাংশ গণমাধ্যম কেনা খবরের প্রক্রিয়াকে ঘৃণা করে। এর বিরুদ্ধে তারা সভা-সমাবেশ করেছে।’

 

এ জাতীয় আরও খবর