বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আখাউড়ায় বিজিবির গুলিতে নিহত ১, কেন্দ্রে কেন্দ্রে জাল ভোট

clashm-300x240জহির রায়হান:ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌর শহরের তারাগন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) গুলিতে আবদুল হাদিস (৪২) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। রোববার বিকেল পৌনে চারটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত হাদিস আখাউড়া পৌর বিএনপির সভাপতি ও স্থানীয় ওয়ার্ড কমিশনার মো. বাহার মিয়ার ছোট ভাই।
বিজিবির ১২ ব্যাটালিয়নের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, ভোটকেন্দ্র দখল করতে আসা একদল লোক বিজিবির ওপর হামলা চালালে তারা আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোড়ে। তবে নিহত হাদিসের বড় ভাই মো. বাহার মিয়া বলেছেন, বিনা উসকানিতে বিজিবি গ্রামবাসীর উপর গুলি চালিয়েছে।
বাহার মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, বিকেল পৌনে চারটার দিকে তাঁরা খবর পান আওয়ামী লীগের লোকজন ওই কেন্দ্রে ঢুকে জাল ভোট দিচ্ছেন। এ খবর শুনে তাঁরা সেখানে ছুটে যান। বিজিবি সদস্যরা এলে তাঁরা তাঁদের কাছে অভিযোগ করেন। এ সময় তাঁদের সঙ্গে বিজিবি সদস্যদের কথা-কাটাকাটি হয়। এরপর তাঁরা লাঠিপেটা শুরু করেন। গ্রামের লোকজন ক্ষিপ্ত হলে তাঁরা খুব কাছ থেকে গুলি চালান। তিনি অভিযোগ করেন, বিজিবি সদস্যরা অতি উৎসাহী হয়ে গুলি চালিয়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় লোকজন জানান, গুলিবিদ্ধ হাদিসকে প্রথমে আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে কাউতলি এলাকায় তিনি মারা যান।
বিজিবি ১২ ব্যাটেলিয়নের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর এরশাদুল হক বলেন, কিছু লোক ভোট কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করছিলেন। চারদিক থেকে তাঁরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর উপর ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকেন। একপর্যায়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে এসে তারা কেন্দ্র দখলের চেষ্টা চালায়। আক্রমণকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে বিজিবি চারটি গুলি ছোড়ে। এ ঘটনায় এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হন।
এ ঘটনার পর তারাগন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের চারদিক ঘিরে রাখে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এরপর এলাকায় সেনাবাহিনী  ও র‌্যাব সদস্যরা অবস্থান নেয়। 
আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. খুরশিদ শাহরিয়র বলেন, নিহতের লাশ আইনী প্রক্রিয়া শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। 
এদিকে আখাউড়ায় কেন্দ্রে কেন্দ্রে জাল ভোটের মধ্য দিয়ে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত (সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা) বেশির ভাগ কেন্দ্রে ভোট গণনা চলছিল। এ পর্যন্ত তিনটি কেন্দ্রের ফলাফল পাওয়া গেছে। এসব কেন্দ্রে উপজেলা বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মুসলিম উদ্দিন (আনারস) এগিয়ে রয়েছেন। 
ইঞ্জিনিয়ার মুসলিম উদ্দিন অভিযোগ করেন, উপজেলার মনিয়ন্দ (দক্ষিণ), হীরাপুর, কল্যাণপুর ও পৌর শহরের রাধানগর এবং শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজ কেন্দ্রসহ নয়টি কেন্দ্রে ব্যাপক জাল ভোট দেওয়া হয়েছে। এসব কেন্দ্রে প্রকাশ্যেই দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সামনে আওয়ামী লীগের কর্মীরা সীল দিয়েছে। 
তবে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আবুল কাশেম ভূঁইয়া অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আওয়ামী লীগ কর্মীরা কোথাও জাল ভোট দেয়নি। বরং বিএনপি কর্মীরাই হীরাপুর কেন্দ্রে গোলমাল সৃষ্টি করেছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর