বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারতে তৃতীয় ফ্রন্টের তোড়জোড়

532e450e6a908-Spoilersভারতে গড়পড়তা বিয়ের বন্ধন অটুট থাকে জীবনভর। কিন্তু রাজনীতিতে দলগুলোর বন্ধন নড়বড়ে। অনেক ক্ষেত্রে তা এই আছে এই নেই।

সেখানে রাজনৈতিক দলের মিত্রতা বা জোট মুক্ত সম্পর্কে বিশ্বাসী। ভোটের হিসাব-নিকাশের ভিত্তিতে যখন-তখন যে কেউ জোট গড়তে বা ভাঙতে পারেন। লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্প্রতি গঠিত তৃতীয় ফ্রন্টের দলগুলোর অবস্থা ঠিক তেমনই। 

গত ফেব্রুয়ারি মাসে ১১টি দল মিলে তৃতীয় ফ্রন্ট গঠন করেছে। জোটবদ্ধ হয়ে লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এসব নেতারা। 

এসব নেতা মুখে যত নীতিই কপচান না কেন, সবার ভেতর লুক্কায়িত আসল যে স্বপ্ন, তা হচ্ছে ক্ষমতায় আরোহণ করে স্বীয় স্বার্থ দেখা। এসব নেতার পটভূমি ও কর্মকাণ্ড বিশ্লেষণ করলে তা পরিষ্কার হয়ে ওঠে। 

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি বা কংগ্রেস এককভাবে সরকার গঠন করতে পারবে কি না, তা নিয়ে অনেকই সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। নির্বাচন-পূর্ব জরিপগুলোতেও এমন আভাস মিলছে। এই প্রেক্ষাপটে তৃতীয় ফ্রন্টের আবির্ভাব ভারতের জাতীয় রাজনীতিতে একটা গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি হিসেবে দেখা হচ্ছে। কারণ, ভোটের ফলাফলে কোনো দল যখন একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাবে, তখন এই তৃতীয় ফ্রন্টই জোট সরকার গঠনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারে। সে ক্ষেত্রে রাজনীতিতে বামদের মুরব্বিয়ানা ফলানো একটা সুযোগ থেকে যাচ্ছে। তবে তা যে খুব জোরালো তা বলা যাবে না। 

তৃতীয় ফ্রন্টে সাতটি আঞ্চলিক এবং চারটি বামপন্থী দল আছে। কংগ্রেস ও বিজেপির একচেটিয়া রাজনীতির বিকল্প হিসেবে নিজেদের দাবি করেছে এই জোট। জোটের অন্তর্ভুক্ত দলগুলো স্থানীয়ভাবে জনপ্রিয় হলেও জাতীয় পর্যায়ের নির্বাচনে তারা কতটুকু সাফল্য পাবে, তা নিয়ে সন্দেহ আছে। তা ছাড়া দলগুলোর মধ্যে ঐক্যও অনড় নয়। 

শেষ পর্যন্ত ফ্রন্টের অন্তর্ভুক্ত দলগুলোর মধ্যে যদি ঐক্য অটুট থাকে এবং নির্বাচনে তারা চমকপ্রদ ফলাফল করতে সক্ষম হয়, তবে সরকার গঠনের ক্ষেত্রে বিজেপি বা কংগ্রেসের জন্য তা গলার কাটা হয়ে উঠতে পারে। তখন এই ফ্রন্টের দর কষাকষির ক্ষমতা বাড়বে। এই সুযোগে ফ্রন্টের অন্তর্ভুক্ত কোনো দলের নেতা প্রধানমন্ত্রী পদও দাবি করতে পারেন। বিশেষ করে সর্বভারতীয় আন্না দ্রাবিড় মুন্নেত্রা কাঝাঘামের (এআইএডিএমকে) তামিল নাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতা, জনতা দলের (সংযুক্ত) বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার এবং সমাজবাদী পার্টির মুলায়েম সিং যাদবের স্বপ্ন তেমনই। 

তৃতীয় এই ফ্রন্টের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, তারা জোটকে ১৫ দল পর্যন্ত নিয়ে যেতে চায়। কিন্তু ফ্রন্টের ভবিষ্যত্ নিয়ে অনেকের মধ্যেই সন্দেহ আছে। ফ্রন্টের অন্তর্ভুক্ত দলগুলোর মধ্যে বিভেদ ও অনৈক্য রয়েছে। কোনো কোনো দল বিজেপি ও কংগ্রেসের সঙ্গে দর-কষাকষি করছে বলেও শোনা যায়। ভোটের হিসাব-নিকাশ ও স্বার্থই তাদের কাছে বড়। স্বার্থের জন্য যেকোনো সময় জোট ভাঙা-গড়ার সিদ্ধান্ত নিতে পারে তারা। ইনডিয়া টুডে অবলম্বনে

এ জাতীয় আরও খবর