শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আখাউড়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচন: হাড্ডা হাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা

A Upডেস্ক রিপোর্ট : 

আগামী ২৩ মার্চ আখাউড়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ১৩জন প্রার্থী। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ৫জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন। প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল কাশেম ভূঁইয়া (কাপ-পিরিচ), বিএনপি সমর্থিত মুসলিম উদ্দিন (আনারস), জামাত সমর্থিত নজরুল ইসলাম খাদেম (দোয়াত-কলম), নির্দলীয় মাহবুবুল আলম ভূঁইয়া (ঘোড়া) ও জাসদ সমর্থিত প্রার্থী (মোটর সাইকেল)। ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামীলীগ সমর্থিত মুরাদ হোসেন ভূঁইয়া (মাইক), বিএনপি সমর্থিত নজরুল ইসলাম (তালা), জাতীয় পার্টির সমর্থিত জামির হোসেন ভূঁইয়া (চশমা), জামাত সমর্থিত মোঃ ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া (টিয়া পাখি), নির্দলীয় মোঃ বাবুল মিয়া (টিউবওয়েল) ও বিএনপির বিদ্রোহী মোঃ জসিম মিয়া (বই)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন বিএনপি সমর্থিত জান্নাত পারভীন (কলস) ও নির্দলীয় পিয়ারা বেগম (হাঁস)। এদিকে প্রতীক বরাদ্ধের পর থেকেই নির্বাচনী মাঠে জোরে সোরে প্রচার-প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা। নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনায় এখন সরব গোটা আখাউড়া উপজেলা। ভোটারদের মাঝে বিরাজ করছে উৎসব আমেজ। উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নেই প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা চালাচ্ছেন নির্ঘুম প্রচার-প্রচারনা। পোষ্টারে ছেয়ে গেছে পুরো উপজেলা। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা প্রচার-প্রচারনা করছেন। তারা যাচ্ছেন ভোটারদের ঘরে ঘরে। শেষ মুহুর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থী। এবারের নির্বাচন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রেস্টিজ ইস্যু হিসেবে নেওয়ায় বেশ জমে উঠবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। মূলত আওয়ামীলীগ ও বিএনপির সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যেই লড়াই হবে বলে ভোটাররা ধারনা করছেন। তবে চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের প্রার্থী থাকায় বেশ বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে বিএনপিকে। সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মাহবুবুল আলম তাঁর  নিজ এলাকা ধরখারের ভোট টানতে পারলে তাঁর পক্ষেও জয় ছিনিয়ে আনা সম্ভব বলে অনেকে মনে করছেন। আওয়ামীলীগঃ- শীর্ষ আওয়ামীলীগ নেতাদের গা ছাড়া ভাব, দলে সমন্বয়হীনতা, সর্বোপরি অন্য প্রার্থীর পক্ষে কাজ করা ভাবিয়ে তুলিয়েছে দল সমর্থিত প্রার্থীর নীতি নির্ধারকদের। তবে এত কিছুর পরও অতীতের দু’টি সুখ স্মৃতিতে ভরসা খুঁজা হচ্ছে। এ দু’টি সুখ স্মৃতি হচ্ছে, বিগত দিনের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ও পৌর নির্বাচন। সম্প্রতি কিছু ঘটনায় এমন ইঙ্গিতই মিলে। ঘটনা-১, পৌর মেয়র তাকজিল খলিফার বাড়িতে এসে আওয়ামী লীগের এক কর্মী অভিযোগ করলেন ‘দলের শীর্ষ একজন নেতা অন্য দলের প্রার্থীর পক্ষে কথা বলছেন। এমনকি তিনি কয়েকজনকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে অন্য দলের প্রার্থীর পক্ষে ভোটও চাইলেন। শীর্ষ আরেক নেতা দলের প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করে উল্টো আত্মীয়কে নিয়ে প্রকাশ্যে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন’। এ সময় উপস্থিত কয়েকজন নেতা-কর্মী বিষয়টিকে যেন উড়িয়েই দিলেন। তারা বললেন, ’গত পৌর নির্বাচনে ওই নেতারাই শুধু নয়, শীর্ষ অনেক নেতাই তাকজিল খলিফা কাজলের বিপক্ষে ছিলেন। কিন্তু গণজোয়ারের কাছে ওই নেতারা পদদলিত হয়েছে। শীর্ষ নেতাদের প্রার্থী হেরে যাওয়ার পর তাদের মুখ দেখানোর জো ছিল না। আর এই কয়দিনে তারা আলাদিনের চেরাগ পেয়ে যায় নি যে ভোটার মন জুগিয়ে ফেলতে পারবে’। ঘটনা-২, উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে কথা হচ্ছিল দলীয় প্রার্থী আবুল কাশেমকে নিয়ে। এতে আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি নিয়ে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন। কিন্তু আবার অনেকে বিগত উপজেলা নির্বাচনকে সামনে এনে সাহস দেখান। তারা উল্লেখ করেন, ওই নির্বাচনে প্রার্থী নিয়ে অনেক টানাপোড়েন ছিল। এমনকি দলের সমর্থন পেয়েও আরেক প্রার্থীকে ছেড়ে দিতে চান শেখ বোরহান উদ্দিন। প্রার্থী ঠিক করতে করতেই নির্বাচনের সময় অনেক ঘনিয়ে আসে। আবার শেখ বোরহান উদ্দিনের উপর অনেকেই নাখোশ ছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দলের টানে সবাই একজোট হয়ে কাজ করে বিজয় ছিনিয়ে আনে। এ দু’টি সুখ স্মৃতিকে সামনে এনেই এগুচ্ছে আওয়ামী লীগ। দলের শীর্ষ নেতারা মনে করছেন দিনকে দিন আওয়ামী লীগ প্রার্থীর অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। বিশেষ করে এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে যে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বিজয়ী করা প্রয়োজন সেটিও এখন মানুষের মুখে মুখে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের সংসদ সদস্য র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী মাঠে নামার পর ভোটারদের মাঝেও ব্যাপক সাড়া পড়েছে। ওই সংসদ সদস্য ধরখারের একটি সভায় তার বক্তব্যে উন্নয়নের স্বার্থে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বিজয়ী করার আহবান জানান। আখাউড়া পৌর সভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যা অবস্থা তাতে আমাদের জয় সুনিশ্চিত। আমি তো মনে করি যারা মনে প্রাণে আওয়ামী লীগ করে তারা অবশ্যই আবুল কাশেমের হয়ে কাজ করবে। এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে সাধারণ মানুষও আবুল কাশেমকে ভোট দিবে বলে আমার বিশ্বাস’। আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ শেখ বোরহান উদ্দিন আহম্মদ বলেন, ‘দলের প্রত্যেকটা নেতা-কর্মী দল সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন। আশা করি আমরা জয়ী হতে পারব’। বিএনপি ঃ- উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বেশ আগে থেকেই দল গুছিয়েছে বিএনপি। দলীয় প্রার্থী সমর্থনও বেশ সহজেই দিতে পেরেছে দলটি। উপজেলা নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা বেশ উজ্জীবিত। কিন্তু শেষ মুহুর্তে এসে তাদের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে জোটের অন্যতম শরিক দল জামায়াত। অবশ্য নির্বাচনে জামায়াত কোনো ফ্যাক্টর হবে না বলে দাবি করেছে দলটির নীতি নির্ধারকরা। অন্যদিকে জামায়াত নেতারা নির্বাচনে বিএনপিকেই পাত্তা দিতে চাইছে না। তারা বলছেন, ‘এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তাদের মূল প্রতিদ্বন্দ্বি হবে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী। মূলত প্রার্থী নিয়ে ঐক্য করতে গিয়েই বিএনপি ও জামায়াতের মধ্যে অনৈক্য দেখা দেয়। প্রথম দিকে জামায়াতের পক্ষ থেকে চেয়ারম্যান প্রার্থী ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে বিএনপি এতে ছাড় না দিলে ভাইস চেয়ারম্যান পদটি দাবি করে জামায়াত। কিন্তু বিএনপি এতেও সায় দেয় নি। এ অবস্থায় নিজেদের অস্তিত্বের জানান দিকে বেশ আটঘাঁট বেঁধেই নেমেছে জামায়াত। অন্তত দলের কর্মীদের ভোট নিজেদের বাক্সে নিতে বেশ তৎপরতা শুরু হয়েছে। এলাকার রাজনীতিবিদ ও সাধারণ মানুষ মনে করছে, জামায়াত ভোট বেশি পাওয়া মানেই বিএনপি’র ভোট কমে যাওয়া। কেননা, জামায়াত সমর্থকদের ভোট অবশ্যই বিএনপি’র বাক্সে পড়ত। এক্ষেত্রে এখন বিএনপি’র প্রার্থীকে বেশ বেকায়দায় পড়তে হবে। অবশ্য আখাউড়া উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল মনসুর মিশন বলেন, ‘আমাদের প্রত্যেকটি অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠন থেকে একাধিক টিম মাঠে নেমেছে। পাশাপাশি মাঠে রয়েছে নারীদের টিমও। তাছাড়া প্রত্যেক কেন্দ্রপতি টিম কাজ করছে। জয় আমাদের সুনিশ্চিত’। জামায়াত বিএনপির জন্য কোন ফ্যাক্টর হবার কোন প্রশ্নই উঠেনা দাবি করে তিনি বলেন, ‘তাদের হাতে গুনা কর্মী। আখাউড়ায় ১৯ দলীয় জোট নেই। আমরা আমাদের আন্দোলনে কখনোই জামায়াতকে সম্পৃক্ত করিনি। তারা ভাইস চেয়ারম্যান পদ চেয়েছিল। তবে আমরা মনে করি, আমাদের যে সাংগঠনিক শক্তি রয়েছে তাতে নির্বাচনে সবগুলো পদই ১০০ ভাগ জয় সম্ভব। জেলা জামাতের সাবেক আমির এবং চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজি নজরুল ইসলাম খাদেম দাবি করেন, উপজেলাতে আমাদের ১৪ হাজারের উপর সমর্থক রয়েছে, যারা ফরম পূরণ করে সমর্থক হয়েছেন। নির্বাচনে বিএনপিকে আমরা কোন প্রতিদ্বন্দ্বিই ভাবছিনা। আমাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী। তবে সমঝোতার স্বার্থে আমরা তাদের ভাইস চেয়ারম্যান পদটি ছেড়ে দেয়ার দাবি করেছিলাম যা তাদের একগুয়েমির কারণে হয়ে উঠেনি। বর্তমানে আমাদের শতাধিক টিম নির্বাচনি মাঠে কাজ করছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, ’আমরা আশা করছি আমাদের বিজয় হবে। তবে নির্বাচনে যদি বিএনপি ও জামায়াতের উভয় প্রার্থীকেই পরাজয় বরণ করতে হয় তাহলে তার দায়িত্ব বিএনপিকেই নিতে হবে। এর দায় আমরা নেব না। 

এ জাতীয় আরও খবর