রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আজ মুশফিকদের প্রতিপক্ষ নেপাল

napalদুঃসময় কাটিয়ে স্বস্তির বাতাস বইছে বাংলাদেশ ক্রিকেটে। আইসিসির নতুন নিয়মে ঘরের মাঠে চলমান টি২০ বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে স্বাগতিকদের খেলা নিয়ে যে শঙ্কা ছিল তা অনেকটাই কেটে গেছে রোববার আফগানিস্তানের বিপক্ষে জয়ে। তাই বলে দ্বিতীয় রাউন্ড নিয়ে পুরোপুরি শঙ্কামুক্ত নয় মুশফিকুর রহিমের দল। অপ্রত্যাশিত একটা ম্যাচ ধূলিসাৎ করে দিতে পারে সব। এমতাবস্থায় আজ প্রথমপর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে নেপালের মুখোমুখি হচ্ছে স্বাগতিকরা। 

যে দলটি নিজেদের অভিষেকেই হংকংকে গুঁড়িয়ে জানান দিয়েছে নিজেদের শক্তিমত্তার। গ্রুপের অন্য প্রতিপক্ষদের দিয়েছে সতর্কবার্তা; আমাদের হালকাভাবে দেখলে পস্তাতে হবে! বাংলাদেশও তাই সহজ প্রতিপক্ষকে সহজ করে দেখার পথে হাঁটছে না। না হাঁটাই উচিত। দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করতে হলে যে জিততে হবে প্রতিটি ম্যাচেই। এমনিতে শক্তি-সামর্থ্য আর অভিজ্ঞতার বিচারে বাংলাদেশ-নেপালের পার্থক্যটা হিমালয়সমই। কিন্তু টি২০ ক্রিকেটে কখন কোন দল কি করে ফেলে তা তো আগে থেকে বলা কঠিন। আর প্রতিপক্ষ সম্পর্কে ধারণা না থাকলে বিপদ ঘটতে কতক্ষণ! প্রতিবেশী হলেও নেপাল স্বাগতিকদের কাছে তেমনই অপরিচিত একটি দল। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দুই দলের যে এটাই প্রথম সাক্ষাৎ।

রোববারের নেপাল-হংকং ম্যাচটি চমকে দিয়েছে অনেককেই। প্রস্তুতি ম্যাচে জিম্বাবুয়ে আর হল্যান্ডকে হারানো হংকংকে উড়িয়ে দিয়েছে বলেই নয়, মাঠের খেলার পাশাপাশি চমকটা ছিল গ্যালারির সমর্থনেও। স্টেডিয়ামে নেপালিদের সমর্থন ছিল বলার মতোই। সংখ্যায় চার হাজারের মতো তো হবেই। দর্শকদের গলা ফাটানো সমর্থনের কারণেই মনে হয় দেশ থেকে এত দূরে এসে খেলছে নেপাল!

আজকের ম্যাচে গ্যালারিতে আরো বেশি দর্শক প্রত্যাশা করছেন নেপাল অধিনায়ক পরেশ খড়কা, 'স্বাগতিক দল হিসেবে বাংলাদেশের ভালো সমর্থক তো হবেই। তবে পাশাপাশি আমাদেরও ছয় হাজারের মতো দর্শক থাকবে বলে আশা করছি।' এই দর্শকদের সঙ্গে নিয়েই মাঠে কাল উজ্জীবিত ক্রিকেট খেলতে চায় হিমালয় কন্যার দেশটি। তাই বাংলাদেশ-নেপাল মাঠের দ্বৈরথের আড়ালে দুই দেশের দর্শকদেরও একটি প্রতিযোগিতা হবে বললে খুব একটা বাড়িয়ে বলা হবে না। তবে নিশ্চিতভাবেই এই প্রতিযোগিতায় হারতে চাইবে না বাংলাদেশের সমর্থকরা!

প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির হিসাবটা মেলাতে সময়ের প্রয়োজন। তবে গ্যালারিতে আজ লাল-সবুজের জোয়ার যে থাকবে তার একটা অাঁচ পাওয়া গেছে টিকিট বিক্রিতে। আগেরদিন টিকিট টিকিট বলে মুখে ফেনা তুলে ফেলেছে স্থানীয় ক্রিকেটামোদীরা। ৫০ টাকার টিকিট হাজার টাকায়ও হাতবদল হয়েছে বলে খবর মিলেছে।

দুটি দলই প্রথম ম্যাচ জিতলেও তাদের শক্তিমত্তাকে এক করা যাবে না কিছুতেই। এই বিষয়টি স্বীকার করেছেন পরেশও। তারপরও স্বদেশি দর্শকদের জন্যই ভালো খেলতে মুখিয়ে আছেন বলে জানিয়েছেন নেপালের অধিনায়ক, 'বাংলাদেশ ভালো দল। টেস্ট খেলে। সবাইকে চিনি। তবে আমাদের দর্শকেরা আমাদের বেশ উজ্জীবিত করেছে। তাদের জন্য, দেশের জন্য ভালো ক্রিকেট খেলতে চাই।'

নেপালিরা সাকিব, মুশফিকদের খেলার সঙ্গে পরিচিত হতেই পারেন। কিন্তু নতুন একটি ক্রিকেট খেলুড়ে দেশের ক্রিকেটারদের সঙ্গে পরিচয় তেমন না থাকাই স্বাভাবিক মুশফিকদের। সেটা স্বীকারও করেছেন মুশফিক, 'আমরা তাদের প্রস্তুতি ম্যাচের ভিডিও দেখেছি। ভালো কিছু খেলোয়াড় আছে। নতুন দিন, নতুন দেশ। তবে আমরা ভালো ক্রিকেট খেলতে চাই।'

তবে নেপালের ক্রিকেটারদের মতো জহুর আহমেদ চৌধুরীর উইকেট তো আর অচেনা নয় টাইগারদের। তারপরও গতকাল বেশ সময় নিয়েই উইকেট পরখও করেছেন মুশফিক। মাঠে নেমেই অনুশীলনের আগে তার দৃষ্টি ছিল সেদিকেই। তবে এরপর বেশ ঘাম ঝরিয়েছেন সতীর্থদের নিয়ে। কারণ ভুল করেও যেন আর কোনো ভুল না হয়। কোনোভাবেই যেন পা পিছলে না যায়।

চাপকে জয় ইতোমধ্যে হয়ে গেছে। কালকের ম্যাচটি জিতলেই সুপার-১০ অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যাবে। তবে অনুশীলনের মতো কথাবার্তায় বেশ সতর্ক মুশফির্ক, 'টি-টোয়েন্টিতে যে কোনো একজন ম্যাচ ঘুরিয়ে দিতে পারে। কালকের (আজকের) ম্যাচটা গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের ভালো ক্রিকেটার আছে এবং আমরা চাপের মধ্যেও ভালো খেলি।'

তবে চাপ যেন না আসে সেই প্রত্যাশাই টাইগার সমর্থকদের। কারণ, আফগান বধের পর চাপ জিনিসটা নিয়ে তো আর চিন্তা করার ফুসরৎ পাচ্ছেন না স্বাগতিক সমর্থকরা। যাদের হুমকি ভাবা হচ্ছিল তাদেরই যদি একতরফা খেলে হারানো যায় তবে অন্যদের নিয়ে এত ভাবনার কি আছে!