মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চলতি বছরের সর্বনিম্ন লেনদেন পুঁজিবাজারে : ডিএসইতে লেনদেন ২৬৮ কোটি টাকা

DSCডেস্ক রিপোর্ট : 

গতকাল দেশের উভয় পুঁজিবাজারে চলতি বছরের সর্বনিম্ন লেনদেন হয়েছে। এদিন দুই বাজারে লেনদেন হয় মাত্র ২৯১ কোটি টাকা। আর ডিএসইতে লেনদেন হয় ২৬৮ কোটি টাকা। একই সঙ্গে দিন শেষে উভয পুঁজিবাজারে কমেছে মূল্যসূচক ও অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ার দর। নানা কারণে লভ্যাংশ ঘোষণার মৌসুমেও ধারাবাহিকভাবে লেনদেন কমছে বলে মনে করছেন বাজারসংশ্লিষ্টরা।


বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, দিনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মূল্যসূচকে নিম্নমুখী প্রবণতা বিরাজ করে। দিনের কোন ভাগে সূচক পুনরুদ্ধার হয়নি।


দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৪৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে চার হাজার ৫৯১ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২৯২টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯২টির, কমেছে ১৬৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টি কোম্পানির শেয়ার দর। টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ২৯২ কোটি ৫১ লাখ ৬৪ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট।


এর আগে গত ২৯ ডিসেম্বর ডিএসইতে সর্বনিম্ন ২৬৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছিল। রোববার শরিয়াহ সূচক ৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে এক হাজার ৯ পয়েন্টে। আর ডিএস-৩০ সূচক ১৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে এক হাজার ৬৫৫ পয়েন্টে। আগের দিন গত বৃহস্পতিবার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স অবস্থান করে চার হাজার ৬৩৫ পয়েন্টে। এ দিন লেনদেন হয় ৩৫৩ কোটি ৪৬ লাখ ৩৭ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। অর্থাৎ রোববার ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ৬০ কোটি ৯৪ লাখ ৭৩ হাজার টাকা।


রোববার সবচেয়ে বেশি শেয়ার লেনদেন হয়েছে স্কয়ার ফার্মার। এ দিন কোম্পানিটির ৫ লাখ ৬০ হাজার ৮২০টি শেয়ার ১৫ কোটি ৮৬ লাখ ৩৩ হাজার ৪০০ টাকায় লেনদেন হয়েছে।


দর বাড়ার দিক থেকে এদিন স্বল্প মূলধনী কোম্পানিগুলো এগিয়ে ছিল। এর মধ্যে রয়েছে- নর্দার্ন জুট, প্রগতি ইন্স্যুরেন্স, জিলবাংলা সুগার, দেশবন্ধু পলিমার, ফাইন ফুডস, সোনালী আঁশ ইত্যাদি।


ব্যাংকিং এবং আর্থিক খাতের কোম্পানিগুলোর লভ্যাংশের পরিমাণ কমে যাওয়া এবং প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ কমে যাওয়ার কারণে বাজার পরিস্থিতি ধারাবাহিকভাবে নিম্নমুখী প্রবণতায় রয়েছে বলে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া সমপ্রতি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের জারি করা সার্কুলার অনুযায়ী ব্যাংকের বিনিয়োগ সমন্বিত হিসেবে আমলে নেয়ার কারণেও বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বলে মনে করছেন অনেকে।


দিনশেষে অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্যসূচক ৯১ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে আট হাজার ৯৩৮ পয়েন্টে। লেনদেন হওয়া ২১৫টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৫২টির, কমেছে ১৩৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৫টি কোম্পানির শেয়ার দর। টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ২৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা।


বৃহস্পতিবার সিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৩০ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। অর্থাৎ রোববার সিএসইতে লেনদেন কমেছে ৭ কোটি ৩৮ লাখ টাকা।

লেনদেনের ভিত্তিতে (টাকায়) প্রধান ১০টি কোমপানি হলো- স্কয়ার ফার্মা, পদ্মা অয়েল, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, বিএসসিসিএল, ন্যাশনাল টিউবস, বিএসসি, সাউথইস্ট ব্যাংক, গ্রামীণফোন, জিকিউ বলপেন ও মেঘনা পেট্রোলিয়াম।


দর বৃদ্ধির শীর্ষে প্রধান ১০টি কোমপানি হলো- প্রগতি ইন্স্যুরেন্স, ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স, সোনালী আঁশ, দেশবন্ধু পলিমার, ফাইন ফুডস, ন্যাশনাল পলিমার, কাসেম ড্রাই সেল, এপেক্স ফুডস, রংপুর ফাউন্ড্রি ও আনোয়ার গ্যালভানাইজিং।


অন্যদিকে দাম কমার শীর্ষে প্রধান ১০টি কোমপানি হলো- আল-আরাফা ব্যাংক, সাউথইস্ট ব্যাংক, ইউনিয়ন ক্যাপিটাল, প্রাইম ব্যাংক, রেকিট বেঙ্কাইজার, কে অ্যান্ড কিউ, মাইডাস ফাইন্যান্স, জেমিনী সী ফুড, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স ও সাফকো স্পিনিং-