সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৮১ উপজেলায় আজ ভোট

Upzila-electionউপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে আজ শনিবার দেশের সাত বিভাগের ৮১ উপজেলায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করবেন ভোটাররা। আইনত স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের এই নির্বাচন সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক হলেও পুরো নির্বাচনে রাজনৈতিক আবহ তৈরি হয়েছে। অনেকটা সংসদীয় নির্বাচনের মতোই রাজনৈতিক পরিচয় নিয়েই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান বা সংরক্ষিত নারী আসনের প্রার্থীরা। ইতিপূর্বে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের ফলাফলকেও নিজেদের শক্তি-সামর্থ্যের পরীক্ষা হিসেবেই বিশ্লেষণ করেছে প্রধান দুই রাজনৈতিক দল। প্রথম দুই ধাপে প্রত্যাশিত ফল পায়নি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। তবুও আজ ভোটের মাঠে অন্তত ৪৮ উপজেলায় থাকছে তাদের বিদ্রোহী প্রার্থী। অন্যদিকে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছে ৪০। তৃতীয় ধাপের ৮১ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মাত্র ৩৩টিতে একক প্রার্থী দিতে পেরেছে আওয়ামী লীগ। আর বিএনপি একক প্রার্থী দিতে পেরেছে ৩৪টিতে। 





নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের মতে, বিদ্রোহী প্রার্থীরাই আজকের ভোট যুদ্ধের ফলাফলের নিয়ন্ত্রক হয়ে উঠতে পারেন। কারণ উভয় দলের বেশ কজন বিদ্রোহী প্রার্থী দল সমর্থিত প্রার্থীর তুলনায় সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন। তাই তৃতীয় ধাপের এই নির্বাচনে বিদ্রোহীদের নিয়ে বড় দু'দলকে অস্বস্তি কাটাতে হচ্ছে। 





প্রথম ধাপের ৯৭টি উপজেলার নির্বাচনে বিএনপি-সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ৪৪টি উপজেলায় জয়ী হন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী জিতেছেন ৩৪টি উপজেলায়। দ্বিতীয় ধাপে ১১৫টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সমর্থিতরা ৫২টিতে ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ৪৬টিতে জয় পান। নিজ দলের প্রার্থীর জয় নিশ্চিত করতে শেষ মুহূর্তে তত্পর প্রতিদ্বন্দ্বী রাজনৈতিক দলগুলো। 





চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান- এই তিনটি পদে জয়ী হতে আজ লড়ছেন মোট এক হাজার ১১৯ প্রার্থী। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৪১৯ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪২৩ জন এবং সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৭৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, আজকের নির্বাচনে কোন উপজেলায় কোন ধরনের সহিংসতা হলে তাত্ক্ষণিকভাবে সেখানে ভোট গ্রহণ বন্ধ করে দেয়া হবে। 





এ বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল মোবারক ইত্তেফাককে বলেন, নির্বাচনী দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে কঠোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কেউ দায়িত্ব অবহেলা করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যে কোন মূল্যে নির্বাচনী সহিংসতা বন্ধ করা হবে। সহিংসতা হলেই নির্বাচন বন্ধ করে দেয়া হবে। 





নির্বাচনকে সহিংসতামুক্ত রাখতে মোতায়েন রয়েছে পর্যাপ্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। উপজেলা পর্যায়ে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী। পর্যাপ্ত র্যাব, বিজিবি, কোস্টগার্ড, নৌবাহিনী, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যও নামানো হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও ইসির কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে শেরেবাংলা নগর নির্বাচন কমিশন কার্যালয় মনিটরিং সেল বসানো হয়েছে। কমিশনের সংশ্লিষ্ট ১৮ জন ডেস্ক অফিসারদের তত্পর হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্বাচন পর্যালোচনার জন্য তারা সকাল ৮টা থেকে অফিস করবেন মধ্যরাত পর্যন্ত। টেলিভিশন, নিজস্ব কর্মকর্তাদের মাধ্যমে নির্বাচনের তথ্য সংগ্রহ করবে কমিশন। 





সংশ্লিষ্টদের মতে, এই নির্বাচনের মাধ্যমে দশম সংসদ নির্বাচন বর্জনকারী দল বিএনপি প্রমাণ করতে চায়, দেশের বেশির ভাগ জনমত তাদের পক্ষে। অন্যদিকে, আওয়ামী লীগ ভালো ফল করে সংসদ নির্বাচনের যৌক্তিকতা প্রমাণ করতে চায়।





নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট উপজেলাগুলোতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আইন অনুযায়ী, ভোট গ্রহণের পরবর্তী ৩২ ঘণ্টা সংশ্লিষ্ট এলাকায় যে কোনো ধরনের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ থাকে। এবার ভোটের দু'দিন পর ১৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন হওয়ায় এ ক্ষেত্রে কিছুটা শিথিলতা আনা হয়েছে।





এদিকে অন্যান্য বাহিনীকে সহায়তা করতে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু করেছেন। ১২ উপজেলায় দায়িত্ব পালন করবেন নৌবাহিনীর সদস্যরা। প্রতিটি উপজেলায় এক প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩৪ সদস্য) করে এ ফোর্স কাজ করছে। নির্বাচনী বিধি ভঙ্গের কারণে কোনো অপরাধীকে আটকের ক্ষমতা নেই সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের। ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে তারা কার্যক্রম চালাবেন। এ বিষয়ে আবু হাফিজ বলেন, সেনাবাহিনী নির্বাচনী কর্মকর্তাদের ব্যাপক সহযোগিতা করেছে। নির্বাচনে সামরিক বাহিনীর পাশাপাশি আধা-সামরিক বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করে থাকেন। এর মধ্যে র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব) ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) রয়েছে। এ ছাড়া প্রতিটি উপজেলায় একজন বিচারিক ও চারজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে রয়েছেন। প্রার্থী কিংবা তার সমর্থকরা বিধি ভঙ্গ করলে তাত্ক্ষণিক সাজা দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। আর বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটরা অভিযোগ আমলে নিয়ে সামারি ট্রায়ালের মাধ্যমে অপরাধীকে শাস্তি দেন।





ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা, ভোটকেন্দ্র ও কক্ষ :নির্বাচনে ভোটারদের ভোটদানে সহায়তার জন্য রয়েছেন পাঁচ হাজার ৪৪৪ জন প্রিসাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ৩৫ হাজার ৩৩১ এবং পোলিং অফিসার ৭০ হাজার ৬৬২ জন। আর ভোটকেন্দ্র পাঁচ হাজার ৪৪৪টি, কক্ষ ৩৫ হাজার ৩৩১টি। ইসির তথ্যমতে, প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে একজন প্রিসাইডিং অফিসার এবং প্রতিটি কক্ষে একজন সহকারী প্রিসাইডিং ও দু'জন পোলিং অফিসার দায়িত্ব পালন করেন।





ভোটার ও ব্যালট :৪১ জেলার ৮১ উপজেলায় মোট এক কোটি ৩১ লাখ ৮৫ হাজার ১৩ জন ভোটার। এর মধ্যে ৬৬ লাখ ১৩১ জন নারী এবং ৬৫ লাখ ৬৭ হাজার ৮৩২ জন পুরুষ ভোটার। চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত ভাইস চেয়ারম্যান— এ তিনটি পদের বিপরীতে ব্যালট মুদ্রণ হয়েছে এক কোটি ৩১ লাখ ৮৫ হাজার ১৩টি।





তৃতীয় ধাপে যেসব 





আসনে নির্বাচন 





এবার যে ৮১টি উপজেলায় নির্বাচন হবে তা হলো- ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর, দিনাজপুরের সদর ও নবাবগঞ্জ, নীলফামারীর সদর, লালমনিরহাটের আদিতমারী, কুড়িগ্রামের সদর, রৌমারী ও চিলমারী, গাইবান্ধার সদর ও সাদুল্লাপুর, জয়পুরহাটের আক্কেলপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর, ভোলাহাট ও শিবগঞ্জ, নওগাঁর মান্দা, পোরশা ও ধামুইরহাট, রাজশাহীর গোদাগাড়ি, চারঘাট ও দুর্গাপুর, চুয়াডাঙ্গার দামুরহুদা, যশোরের মনিরামপুর, নড়াইলের লোহাগড়া, বাগেরহাটের সদর, মোড়েলগঞ্জ, রামপাল, মোংলা ও শরণখোলা, খুলনার পাইকগাছা, সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ, ভোলার সদর, বরিশালের মুলাদী, হিজলা ও বাবুগঞ্জ, পিরোজপুরের নেছারাবাদ, জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ, শেরপুরের শ্রীবর্দী, ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়া, গৌরীপুর, মুক্তাগাছা, ফুলপুর ও ধোবাউড়া, নেত্রকোনার সদর ও মোহনগঞ্জ, কিশোরগঞ্জের সদর, কুলিয়ারচর ও হোসেনপুর, ফরিদপুরের সদর, আলফাডাংগা ও সদরপুর, চরভদ্রাসন, ভাংগা ও মধুখালী, গোপালগঞ্জের টুংগীপাড়া, শরীয়তপুরের সদর ও নড়িয়া, সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ, সিলেটের দক্ষিণ সুরমা, মৌলভীবাজারের বড়লেখা, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী ও দেলদুয়ার, কুমিল্লার নাংগলকোট, হোমনা, বুড়িচং, চৌদ্দগ্রাম, ব্রাহ্মণপাড়া, তিতাস, চাঁদপুরের কচুয়া ও হাজীগঞ্জ, নোয়াখালীর সেনবাগ, লক্ষ্মীপুরের কমলনগর, চট্টগ্রামের চন্দনাইশ ও সীতাকুন্ড, রাঙ্গামাটির বরকল, বাঘাইছড়ি ও কাউখালি, মানিকগঞ্জের ঘিওর, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর, ফেনীর দাগনভূঁইয়া এবং বান্দরবান জেলার বান্দরবান সদর ও আলী কদম।