বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আইপিএলের ১৬টি ম্যাচ বাংলাদেশে!

IPL-2ক্রীড়া ডেস্ক: 

গত ৮ ফেব্রুয়ারি আইসিসির সিঙ্গাপুর সভার পর থেকেই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল সপ্তম আইপিএলের আসর বসতে যাচ্ছে বাংলাদেশে। সেটা নিয়ে তখন ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনাও হয় বিশ্ব ক্রিকেটাঙ্গনে।   বাংলাদেশের ক্রিকেটবোদ্ধারা বাংলাদেশকে আইপিএলের ভেন্যু বানানোটাকে বিপিএলের (বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ) জন্য হুমকি হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন ওই সময়। পরে অবশ্য ভারত জানিয়েছিল, বাংলাদেশে আইপিএলের কোনো ম্যাচ হবে না। কিন্তু সেখানেই থেমে থাকেনি আলোচনার স্রোত। আইপিএলের সপ্তম আসরের ভেন্যু হিসেবে আবারও আলোচনায় বাংলাদেশ। ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যম জোরেশোরে খবর দিচ্ছে বাংলাদেশে আইপিএলের ১৬টি ম্যাচ হওয়ার সম্ভাবনা আছে। ভারতের জনপ্রিয় অনলাইন ‘মাই আনন্দবাজার’ ও ‘আইবিএন লাইভ’ সোমবার জানিয়েছে, ভারতীয় ক্রিকেটের কর্মকর্তারা বাংলাদেশে সপ্তম আইপিএলের ১৬টি ম্যাচ অনুষ্ঠানের কথা জোর দিয়ে ভাবছেন। যদিও এখনো পর্যন্ত এ নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।   ভারতীয় ক্রিকেট নিয়ন্ত্রণ বোর্ড ও দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে আনন্দবাজার আরো খবর দিয়েছে, ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) যে সময়ে শুরু হবে, ঠিক একই সময় ভারতের লোকসভা নির্বাচনও। নিরাপত্তার প্রশ্নে ওই সময়টাতে আইপিএলের ম্যাচ অনুষ্ঠানকে ঝুঁকি হিসেবে দেখছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ কারণে তারা ১৬টি ম্যাচ প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশে অনুষ্ঠানের কথা বিবেচনা করছে।  ২০০৯ সালে লোকসভা নির্বাচনের কারণে আইপিএলের ভেন্যু হয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু আফ্রিকায় ম্যাচ আয়োজন অনেক ব্যয়বহুল। সেই বিবেচনায় বাংলাদেশই তাদের কাছে উত্তম বিকল্প।    জানা গেছে, এ ব্যাপারে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে ইতিমধ্যে প্রস্তাব দিয়েছে ভারতের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (বিসিসিআই)। এখন দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রস্তাবটি গ্রহণ করলে আসন্ন সপ্তম আইপিএলের ১৬টি ম্যাচ বাংলাদেশে অনুষ্ঠানের ব্যাপারে তারা বিসিবিকে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দেবে। বাকি ৪৪টি ম্যাচ হবে ভারতে।   আগামী ৯ এপ্রিল শুরু হতে পারে সপ্তম আইপিএলের আসর। অন্যদিকে ৭ এপ্রিল শুরু হবে ভারতের লোকসভা নির্বাচন। চলবে ১২ মে পর্যন্ত। ৮০ কোটি ৪০ লাখ ভারতীয় ভোটার ৯ লাখ ৩০ হাজার ভোটকেন্দ্রে ভোট দেবেন। এর জন্য বাড়তি নিরাপত্তার  উদ্যোগ নিতে হবে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে। একই সময়ে আইপিএলের মতো জনপ্রিয় ক্রিকেট আসরের নিরাপত্তাও তাদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।   জানা গেছে,  সমস্ত ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকরা আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিলকে জানিয়েছেন, ওই সময়ে আইপিএলের কোনো ম্যাচ থাকলে তা নিরাপত্তার খাতিরেই দেশের বাইরে আয়োজন করা উচিত। এ ভাবনা থেকেই বাংলাদেশের নাম উঠে এসেছে। সূত্রগুলো আরো জানাচ্ছে, পূর্বঘোষিত সময়ে আইপিএল শুরু হলে তার নিরাপত্তা নিশ্চিত সম্ভব নয়- এমনটা এরই মধ্যে ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিক ও বিসিসিআইকে জানিয়েও দিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বিকল্প হিসেবে ২০০৯ সালের মতো সপ্তম আইপিএলের ভেন্যু দক্ষিণ আফ্রিকায় সরিয়ে নেওয়া যায় কি না, মন্ত্রণালয় তাও ভাবতে বলেছে। তবে দক্ষিণ আফ্রিকায় কেবল ১৬টি ম্যাচ আয়োজন করা হলে তা হবে আয়োজকদের জন্য বেশি ব্যয়বহুল।      ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে আরো জানা যায়, ৪৪ থেকে ৭৩ শতাংশ ম্যাচ দেশের মধ্যেই আয়োজনের কথা ভাবা হচ্ছে। বাকি ম্যাচগুলো হয় দক্ষিণ আফ্রিকা, নয়তো বাংলাদেশে আয়োজনের সক্রিয় চিন্তা করা হচ্ছে। তবে দক্ষিণ আফ্রিকায় ১৬টি ম্যাচের আয়োজন করা আর্থিকভাবে সম্ভব নয় বলে ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকরা জানিয়েছেন বিসিসিআইকে। এ ক্ষেত্রে প্রতিবেশী বাংলাদেশে ১৬টি ম্যাচ অনুষ্ঠানের বিষয়ে আলাপ-আলোচনা চলছে। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তাদের ওপরই নির্ভর করছে সপ্তম আইপিএলের আংশিক ভেন্যু বাংলাদেশ হতে যাচ্ছে কি না।