রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মালয়েশিয়ার যাত্রীবাহী বিমান নিখোঁজ

২২৭ যাত্রী ও ১২ ক্রু বহনকারী বোয়িং-৭৭৭ বিমানটি মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং যাওয়ার পথে গতকাল শনিবার ভোররাতে নিখোঁজ হয়। তবে সিএনএন জানায়, বিমানে যাত্রীর তালিকায় ২২৭ জনের নাম থাকলেও ২২৫ জন ছিল। অস্ট্রেলিয়া এবং ইটালির সরকারি সূত্র জানিয়েছে, এই দুই দেশের দুইজন নাগরিকের বিমানে যাত্রা করার কথা থাকলেও তারা বিমানে উঠেনি। মালয়েশিয়ার স্টার অনলাইন এবং দ্য সান জানিয়েছে, আকাশে টহলের সময় সাগরে দীর্ঘ তেলের দুটি স্তর দেখতে পেয়েছে ভিয়েতনামের বিমান। তবে তার সঙ্গে নিখোঁজ বিমানের সংশ্লিষ্টতা আছে কিনা সেবিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। কিন্তু যে ধরনের স্তর দেখা গেছে তা কেবল বিধ্বস্ত বিমান থেকেই নি:সৃত হয়। নিউইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, তেলের স্তর দীর্ঘ ১২ মাইল জুড়ে বিস্তৃত।



বিমানটি স্থানীয় সময় রাত ২টা ৪০ মিনিটে নিখোঁজ হয়ে যায়। অবশ্য বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার আগে কোনো ডিসট্রেস সিগনাল দেয়নি। একে খুবই অস্বাভাবিক ঘটনা হিসাবে উল্লেখ করেন ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের সাবেক পাইলট রস আইমার। তিনি বলেন, এটিকে একটি নজিরবিহীন ঘটনা বলা যায়। এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি বোয়িং ৭৭৭ বিমানের ১৯ বছরের ইতিহাসে এমন মারাত্মক দুর্ঘটনা আর ঘটেনি। মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স এক বিবৃতিতে জানায়, বোয়িং বি ৭৭৭-২০০ সিরিজের উড়োজাহাজটি দিয়ে এমএইচ২৭০ ফ্লাইট পরিচালনা করা হচ্ছিল। স্থানীয় সময় শুক্রবার রাত ১২টা ৪১ মিনিটে এটি বেইজিংয়ের উদ্দেশ্যে উড়ে যায়। বেইজিংয়ের স্থানীয় সময় সাড়ে ৬টায় উড়োজাহাজটির অবতরণ করার কথা। তবে রাত ২টা ৪০ মিনিটের পর উড়োজাহাজটির সঙ্গে আর যোগাযোগ করতে পারেনি সুবাং এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল। বিমানটি নিখোঁজ থাকার প্রায় ৪ ঘণ্টা পর ভিয়েতনামের নৌ-কর্মকর্তা অ্যাডমিরাল নগো ভ্যান ফ্যাটের বরাত দিয়ে দেশটির তুয়োই ট্রে বার্তা সংস্থা বিমানটির বিধ্বস্ত হওয়ার খবর জানায়। অ্যাডমিরাল ফ্যাট জানিয়েছেন, দক্ষিণ ভিয়েতনামের একটি দ্বীপের কাছে অবস্থানরত কয়েকটি নৌকা থেকে তাকে বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার খবর জানানো হয়। রয়টার্স জানিয়েছে, বিমানটি নিখোঁজ হওয়ার আঠার ঘণ্টা পর গতকাল রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত বিধ্বস্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। 



মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজ্জাক কুয়ালালামপুরে সাংবাদিকদের বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত প্রয়োজন তল্লাশি ও উদ্ধার অভিযান চলবে। তিনি বলেন, মালয়েশিয়া বিমান বাহিনীর ১৫ বিমান, ছয়টি নৌজাহাজ ও তিনটি কোস্টগার্ডদের টহল জাহাজ অভিযানে নিয়োজিত রয়েছে। তিনি সবাইকে প্রার্থনার আহ্বান জানিয়েছেন। সহযোগিতার জন্য চীন ও ফিলিপাইনও দক্ষিণ চীন সাগরের কাছাকাছি এলাকায় তাদের জাহাজ পাঠিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র, ফিলিপাইন ও সিঙ্গাপুর তল্লাশিতে সহযোগিতার জন্য সামরিক বিমানও পাঠিয়েছে। এছাড়া চীন আরো জাহাজ ও বিমান পাঠানোর জন্য প্রস্তুত রেখেছে বলে জানিয়েছেন পরিবহনমন্ত্রী ইয়াং চুয়ানতাং। যাত্রীদের মধ্যে ১৩টি দেশের নাগরিক রয়েছেনimage_114395