মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গভীর নলকূপে মায়ের লাশ ওপরে সন্তানদের আহাজারি

আম্মু তুমি আমরারে ফেলে গর্তে লুকাই আছ কেন?’ গভীর নলকূপের পাইপের গোড়া জড়িয়ে ধরে এভাবেই আহাজারি করছিল গৃহবধূ শাহিনা আক্তারের (৩৫) শিশুসন্তান পাঁচ বছর বয়সী রোজিনা আক্তার। শাহিনার দুই ছেলে ইমরান হোসেন (১১), তুষার আহমেদও (৮) কাঁদছিল অঝোরে। কারণ ইতিমধ্যেই তারা জেনে গেছে এক মাস ধরে নিখোঁজ থাকা তাদের মা আর কখনোই ফিরে আসবে না। মা তাদের খুন হয়েছেন এবং লাশ কৌশলে ফেলে দেওয়া হয়েছে গভীর নলকূপের পাইপের গভীরে। গ্রেপ্তার হওয়া একজনের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, শাহিনার স্বামী মোবারক হোসেনই পারিবারিক বিরোধের কারণে ভাড়াটিয়া খুনি দিয়ে স্ত্রীকে চিরতরে সরিয়ে দিয়েছে।
কুমিল্লার দেবীদ্বারের গৃহবধূ শাহিনা নিখোঁজ হওয়ার এক মাস পর লাশের সন্ধান পাওয়া গেলেও তা গতকাল শনিবার পর্যন্ত তোলা সম্ভব হয়নি। শুক্রবার থেকেই চলছে এ চেষ্টা। পুলিশ কয়েক দফায় চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে শেষ পর্যন্ত গভীর নলকূপ স্থাপনকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ৮০ হাজার টাকা চুক্তি করে। আজ থেকে খননকাজ শুরু করা হবে বলে জানায় সংশ্লিষ্ট সূত্র। উত্তোলন ব্যয় প্রাথমিকভাবে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন ও সাবেক চেয়ারম্যান শাহজাহান বহন করছেন বলে জানা যায়। 
গতকাল দুপুরে ঘটনাস্থল ঘুরে দেখা যায়, হাজার হাজার উৎসুক জনতা দেবীদ্বার উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের ছেচড়াপুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সংলগ্ন গভীর নলকূপ এলাকায় ভিড় জমাচ্ছে। শাহিনার ছেলে ইমরান হোসেন কালের কণ্ঠকে বলে, ‘ওই রাতে সবার খাবার শেষে মা আমাদের নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। পরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে আমার মাকে দেখিনি।’
এদিকে বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটা থেকে দেবীদ্বার থানা পুলিশ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় নিরাপত্তাব্যবস্থা কঠোর করেছে। দেবীদ্বার থানার ওসি তারেক মোহাম্মদ হান্নান সাংবাদিকদের বলেছেন, নলকূপটির পাইপের বেড় হবে ২০ থেকে ২২ ইঞ্চি। লাশের পা প্রথমে ঢুকিয়ে লম্বা বাঁশ দিয়ে খুঁচিয়ে গভীরে ফেলে দেওয়ার কথা গ্রেপ্তার হওয়া আব্দুল করিম স্বীকার করেছে বলেও জানান ওসি।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দেবীদ্বার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শাহ কামাল আকন্দ বলেন, খুনিদের মধ্যে একজনকে আটক করার পরই তার স্বীকারোক্তি থেকে রহস্য উদ্ঘাটিত হয়। তিনি বলেন, ‘আমরা পাইপে রড ও বাঁশ দিয়ে প্রায় ৩৬ ফুট গভীরে লাশের আলামত পাই। তবে ফায়ার সার্ভিস, মাটি কাটার শ্রমিকদের দিয়েও লাশ উদ্ধারের চেষ্টা করে ব্যর্থ হই।’
এদিকে পুলিশ যোগাযোগ করার পর গতকাল সকালে কুমিল্লা জেলা সদর থেকে নলকূপ স্থাপন ও উত্তোলন প্রতিষ্ঠান ‘ভাই ভাই মুক্তা ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ’ কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থলে আসে এবং ৮০ হাজার টাকায় পাইপ তোলার চুক্তি হয়। প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী মো. আলী আকবর জানান, শনিবারের মধ্যেই উত্তোলন সরঞ্জামাদি স্থাপন হয়ে যাবে। রবিবার পাইপ তোলার কাজ শুরু হলেও কাজটি শেষ করতে চার-পাঁচ দিন লেগে যেতে পারে। এদিকে গ্রেপ্তার হওয়া ছেচড়াপুকুরিয়া গ্রামের আব্দুল করিমকে গতকাল শনিবার আদালতে পাঠায় পুলিশ।
জানা যায়, বছর ১৫ আগে উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের তুলাগাঁও গ্রামের মো. কেরামত আলী সরকারের মেয়ে শাহিনার সঙ্গে একই ইউনিয়নের ছেচড়াপুকুরিয়া গ্রামের মো. দুধ মিয়ার ছেলে (বর্তমানে আবুধাবি প্রবাসী) মো. মোবারক হোসেনের (৪০) বিয়ে হয়। তাঁদের দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। দুই বছর আগে মোবারক হোসেন ছুটিতে বিদেশ থেকে দেশে আসার পর দাম্পত্য কলহ সৃষ্টি হলে শাহিনার ওপর চলে নির্যাতন। তিন-চার মাস ছুটি কাটিয়ে মোবারক ফের বিদেশে চলে গেলেও শাহিনার ওপর শারীরিক-মানসিক নির্যাতন অব্যাহত থাকে। একপর্যায়ে শাহিনা দেবীদ্বার থানায় নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। অনেক চাপ দিয়েও মামলা প্রত্যাহার করাতে না পেরে মোবারক স্ত্রীকে হত্যার সিদ্ধান্ত নেন। এরপর গত ৭ ফেব্রুয়ারি রাতে শাহিনাকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে আব্দুল করিমসহ আরো কয়েকজন হত্যা করে।

– See more at: http://www.kalerkantho.com/print-edition/last-page/2014/03/09/59989#sthash.4EvZa2aa.dpuf