শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কাকে অনুসরণ করছেন সুজান!

5319984ca71ca-Sussanne-2অনলাইন ডেস্ক : হৃতিক রোশনের সঙ্গে ১৩ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার পর সম্প্রতি বান্দ্রায় পার্টিতে মেতে উঠতে দেখা গেছে সুজান রোশনকে। সুজানের হাতে আঁকা নতুন একটি উলকি সেখানে উপস্থিত সবার নজরে পড়ে। উলকিতে লেখা রয়েছে, ‘অনুসরণ করো তোমার…’। বাক্যটি অসম্পূর্ণ হওয়ায় বর্তমানে সুজান তাঁর একাকী জীবনে কাকে অনুসরণ করছেন তা ঠিক স্পষ্ট নয়।

সুজানের হাতে আঁকা উলকির মর্মার্থ এখন পর্যন্ত উদ্ধার করা সম্ভব না হলেও অনেকের ধারণা, হৃতিকের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর নিজের মনকেই অনুসরণ করছেন সুজান। তিনি সেটাই করছেন যাতে তাঁর মন সায় দিচ্ছে। সম্প্রতি এক খবরে এমনটিই জানিয়েছে জিনিউজ।

বলিউডে বেশ কিছুদিন ধরেই হৃতিক রোশন ও সুজান রোশনের দাম্পত্য জীবনের টানাপোড়েনের গুঞ্জন চলছিল। শুরুর দিকে এসব গুঞ্জনকে অস্বীকার করেছিলেন ‘কৃশ’ তারকা হৃতিক। অবশেষে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর বিচ্ছেদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের কথা নিশ্চিত করেন তিনি।

বর্তমানে হৃতিক তাঁর বাবা-মায়ের সঙ্গে জুহুতে থাকছেন। আর দুই ছেলে রিহান ও রিদানকে নিয়ে ভারসোভা এলাকায় ভাড়া করা একটি অ্যাপার্টমেন্ট ভবনে বসবাস করছেন সুজান। হৃতিক-সুজান তাঁদের ১৩ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানার সিদ্ধান্ত নিলেও এই জুটির পরিবারের সদস্যরা মনেপ্রাণে চাইছেন, বিবাদ মিটিয়ে আবার নতুনভাবে সংসারজীবন শুরু করুক হৃতিক-সুজান। সম্প্রতি এই জুটির মধ্যে সমঝোতার উদ্যোগ নেন রাকেশ রোশন ও সঞ্জয় খান। তাঁরা সুজানের সঙ্গে দেখা করে তাঁকে বিয়ে টিকিয়ে রাখার জন্য আরেকবার চেষ্টা করতে বলেন। অবশ্য এই প্রস্তাবে সুজানের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে এখন পর্যন্ত কিছুই জানা যায়নি।     

২০০০ সালের জানুয়ারিতে ‘কহো না পেয়ার হ্যায়’ ছবির মাধ্যমে বলিউডে পা রেখেছিলেন হৃতিক। তিনি একই বছরের ২০ ডিসেম্বর বলিউডের বর্ষীয়ান অভিনেতা ও নির্মাতা সঞ্জয় খানের মেয়ে সুজানের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন। কয়েক বছর চুটিয়ে প্রেম করার পরই বিয়ে করেছিলেন হৃতিক-সুজান। ২০০৬ সালে তাঁদের ঘরে আসে প্রথম ছেলে রিহান। দুই বছর পর তাঁদের দ্বিতীয় ছেলে রিদানের জন্ম হয়।

একটা সময়ে বলিউডের অন্যতম সুখী দম্পতি হিসেবে উচ্চারিত হত হৃতিক-সুজানের নাম। কিন্তু গত বছর তাঁদের সাজানো সংসারে অশান্তির ঢেউ ওঠে। হৃতিক-সুজানের সম্পর্কে টানাপোড়েনের খবর প্রথম চাউর হয় গত সেপ্টেম্বর মাসে। হৃতিকের বাবা রাকেশ রোশনের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে সুজান তাঁর বাবা-মা ও ভাইয়ের সঙ্গে অতিথি হিসেবে হাজির হন। শুধু তা-ই নয়, বেশ দেরিতে অনুষ্ঠানে যোগ দিলেও মাত্র আধঘণ্টা পরেই সেখান থেকে চলে যান সুজান। তাঁর এমন সংক্ষিপ্ত উপস্থিতি ও হঠাত্ চলে যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে নানা কানাঘুষা ওঠে।

শুরুর দিকে দাম্পত্য জীবনের টানাপোড়েনের খবরকে গুজব দাবি করলেও গত ১৩ ডিসেম্বর এক বিবৃতির মাধ্যমে হৃতিক জানান, ‘১৭ বছরের সম্পর্কের ইতি টেনে আমার কাছ থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সুজান। আমার পুরো পরিবার কঠিন এক সময় পার করছে।’

হৃতিক আরও বলেন, ‘আমি কোনোভাবেই চাই না, আমাদের বিচ্ছেদের খবরে আমার ভক্তদের মধ্যে বিয়ে প্রথা নিয়ে বিরূপ মনোভাবের সৃষ্টি হোক। বিয়ে প্রতিষ্ঠানটির ওপর আমার পূর্ণ আস্থা রয়েছে। আমি এ প্রতিষ্ঠানটিকে সর্বোচ্চ সম্মান ও শ্রদ্ধার চোখে দেখি।’

বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তের কথা জানালেও, এর পেছনের কারণ সম্পর্কে হৃতিক কিংবা সুজান কেউই স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। বিচ্ছেদের কারণ জানতে চাইলে সুজানের ভাষ্য ছিল, ‘অনেক সময় কোনো কারণ ছাড়াই অনেক কিছু ঘটে যায়। পরিস্থিতিই মানুষকে বাধ্য করে অপ্রত্যাশিত কোনো সিদ্ধান্ত নিতে। বিচ্ছেদের কারণ নিয়ে আমি স্পষ্ট করে কিছু বলতে চাই না। কারণ আমি নিজেও একজন মা এবং মেয়ে।’

হূতিক ও সুজান কেউই তাঁদের বিচ্ছেদের মূল কারণ না জানালেও বলিউডে জোর গুঞ্জন, সহ-অভিনেত্রী ক্যাটরিনা কাইফের সঙ্গে হৃতিকের ঘনিষ্ঠতা আর সুজানের সঙ্গে অর্জুন রামপালের ঘনিষ্ঠতার কারণে ভেঙেছে হৃতিক-সুজানের সংসার।