বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নারীরা ভীষণ উদ্যমী’

53187c327aea2-armyযুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর নারী প্রতিনিধি কর্নেল জেনিফার ওয়াকার বলেছেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নারীরা ভীষণ উদ্যমী। তাঁরা নিজেদের আত্মবিশ্বাসের ওপর নির্ভর করে সব প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করতে সক্ষম।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকায় সেনা সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত ‘ইউএস অ্যান্ড বিডি ফিমেইল অফিসার্স অ্যান্ড সোলডার্স সাবজেক্ট ম্যাটার এক্সপার্ট এক্সচেঞ্জ’ শীর্ষক সেমিনারে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রায় ৩০০ নারী কর্মকর্তা অংশ নেন। কর্নেল জেনিফার ওয়াকার আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে নারী কর্মকর্তাদের ব্যক্তিত্ব অসাধারণ এবং অনুকরণীয়। বাংলাদেশের নারীরা শুধু পেশাদারই নন, তাঁরা তাঁদের ব্যক্তিত্বও দারুণভাবে ধরে রাখতে পারেন। বিষয়টি আমাদের আকর্ষণ করেছে।’

গতকাল যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নারী কর্মকর্তাদের নিয়ে যৌথ উদ্যোগে দুদিনব্যাপী ওই সেমিনারের আয়োজন করা হয়। এতে সাতটি প্রজেকশনের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র সামরিক বাহিনীর সাত সদস্যের নারী প্রতিনিধিদল অংশগ্রহণ করে।

সেমিনারের সমাপনী বক্তব্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পক্ষে মেজর জেনারেল আশরাফ আবদুল্লাহ ইউসুফ বলেন, ‘আমাদের দেশে নারীরা ঘরের ভেতরে আর বন্দী থাকছেন না, তাঁরা পুরুষের পাশাপাশি সব ক্ষেত্রে কাজ করে যাচ্ছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘নারীরা সব ক্ষেত্রে মনোযোগ দিয়ে ভালো কাজ করতে সক্ষমতা দেখিয়েছেন। তাই ভবিষ্যতেও নারীদের সহযোগিতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কাজ করে যাবে।’

সেমিনারে উঠে এসেছে নারীর কর্মক্ষেত্রের হাজারো সমস্যা এবং তার সমাধান। যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর সাত নারী কর্মকর্তা সেমিনারে চারটি  এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নারী কর্মকর্তারা তিনটি বিষয় উপস্থাপন করেছেন।

সেমিনারে সুনির্দিষ্টভাবে সেনাসদস্য হিসেবে নারীদের স্বাস্থ্যগত বিষয়ের পাশাপাশি বর্তমান বৈশ্বিক পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে সব প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলার উপায় নিয়ে আলোচনা হয়। সেনাবাহিনীর নারী সদস্যরা বিভিন্ন সামরিক রীতিনীতি ও আচার-আচরণ তাঁদের পুরুষ সহকর্মীদের মতো কীভাবে কাজে লাগাতে পারেন, তা নিয়েও আলোচনা হয়। অংশগ্রহণকারী নারী কর্মকর্তারা নিজ নিজ সেনাবাহিনীর ইতিহাস, সেনাবাহিনীতে নারী কর্মকর্তা, সৈনিকদের অবদান এবং ভবিষ্যতে তাঁদের সক্ষমতা বৃদ্ধির উপায় উপস্থাপন করেন।

সেমিনারে নার্সিং কর্মকর্তা মেজর ফরিদা আকতার প্রথম আলোকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশে পেশাগত দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের  আয়োজন প্রতিবছর করা উচিত।

সেমিনারে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রেহেনা বেগম, মেজর আফসানা রহমান এবং মেডিকেল ও ডেন্টাল কোরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।