বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ইউক্রেন-সংকট নিয়ে ওবামা-পুতিন দীর্ঘ ফোনালাপ

5312e787883fe-Ukraine-crisis[1]ইউক্রেনে সেনা পাঠিয়ে রাশিয়া আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

আজ রোববার বিবিসি অনলাইনে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়, ইউক্রেন-সংকট নিয়ে গতকাল শনিবার ওবামা ও পুতিন টেলিফোনে ৯০ মিনিট কথা বলেন। এ সময় ইউক্রেনের স্বায়ত্তশাসিত উপদ্বীপ ক্রিমিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির প্রতি আহ্বান জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

ওবামার অভিযোগ ও আহ্বানের জবাবে পুতিন বলেন, মস্কো তার স্বার্থ ও ইউক্রেনে রুশভাষীদের রক্ষার অধিকার রাখে।
হোয়াইট হাউসের এক বিবৃতিতে জানানো হয়, দুই নেতা টেলিফোনে কথা বলেছেন। ইউক্রেন নিয়ে গভীর উদ্বেগের কথা পুতিনকে জানিয়েছেন ওবামা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেছেন, রাশিয়া সেনা পাঠানোর মাধ্যমে ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব ও ভৌগোলিক ঐক্য লঙ্ঘন করেছে। ক্রেমলিনের এই পদক্ষেপ আন্তর্জাতিক আইনেরও সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। সরাসরি আলোচনার মাধ্যমে চলমান সংকট শান্তিপূর্ণভাবে সমাধানের ওপর জোর দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইউক্রেন-সংকটে রাশিয়ার ভূমিকার প্রেক্ষাপটে কূটনৈতিক তত্পরতা জোরদার করেছে যুক্তরাষ্ট্র।
ইউক্রেন জানিয়েছে, দেশটিতে সেনা পাঠানোর বিষয়ে রুশ পার্লামেন্ট অনুমতি দেওয়ার পর ইউক্রেনের সেনাবাহিনীকে সর্বোচ্চ সতর্ক রাখা হয়েছে।

পরিস্থিতি আলোচনার জন্য মস্কোয় নিযুক্ত রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে কানাডা। একই সঙ্গে জুনে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য জি-৮ সম্মেলনে যোগ না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটি।
ইউক্রেনে রুশ সেনাবাহিনীকে কাজে লাগানোর জন্য প্রেসিডেন্ট পুতিনের এক অনুরোধ অনুমোদন করেছে রুশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ। ক্রিমিয়ায় শান্তি ফিরিয়ে আনতে ওই অঞ্চলের নতুন প্রধানমন্ত্রী সের্গেই আকসিওনভের সাহায্যের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ অনুমোদন চান রুশ পুতিন। রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অবশ্য বলছে, এর অর্থ এই নয় যে ইউক্রেনে রুশ সেনা মোতায়েন আসন্ন। পুতিনের এ অতি আগ্রহের ব্যাপারে সতর্ক করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইউক্রেন কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, ক্রিমিয়ায় ছয় হাজার সেনা মোতায়েন করেছে রাশিয়া। দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী আইগোর তেনইয়ুখ অভিযোগ করে বলেন, ক্রিমিয়ায় রাশিয়ার ছয় হাজার সেনা ও ৩০টি সাঁজোয়া যান প্রবেশ করেছে। প্রতিরক্ষামন্ত্রী গতকাল দেশটির পার্লামেন্টে জানান, ইউক্রেনের সম্মতি ছাড়াই বা সতর্কতা জারি না করেই শুক্রবার থেকে সেনা পাঠাতে শুরু করেছে রাশিয়া।

রাশিয়াকে হুঁশিয়ার করে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালালে মস্কোকে এর মূল্য দিতে হবে। আর ইউক্রেনের অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, রুশ সাঁজোয়া যান ইউক্রেনের শহরগুলোতে চক্কর দেবে, এমনটি বরদাশত করা হবে না।

গত শুক্রবার ইউক্রেন অভিযোগ করেছিল, রাশিয়ার বাহিনী ক্রিমিয়ার দুটি বিমানবন্দর দখলে নিয়েছিল। এর পর ওই দিনই হোয়াইট হাউসে এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেন, ইউক্রেনে যেকোনো ধরনের সামরিক অভিযান চালানো হলে মস্কোকে এর মূল্য দিতে হবে।

মস্কোর প্রতি হুঁশিয়ারি দিয়ে ওবামা আরও বলেন, ইউক্রেনে কোনো ধরনের সামরিক আগ্রাসন চালানো হলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সঙ্গে নিয়ে ইউক্রেনের পাশে দাঁড়াবে যুক্তরাষ্ট্র। এদিকে ইউক্রেন সরকারের অভিযোগ, কৃষ্ণ সাগরে রুশ নৌঘাঁটি থেকে ক্রিমিয়ায় শত শত সেনা চলাচল করছে। ওই সেনারা মস্কোপন্থী মিলিশিয়াদের সহযোগিতা দিচ্ছে।

এ জাতীয় আরও খবর