সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিলেট স্টেডিয়ামের উদ্বোধন : প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় সিলেটবাসী


 


image_79তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর শুক্রবার সিলেট সফরে আসছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর এই সফরকে কেন্দ্র করে গোটা নগরী ও আশপাশে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। দেশসেরা সিলেট স্টেডিয়ামের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করতেই মূলত প্রধানমন্ত্রীর আজকের সিলেট সফর। স্টেডিয়াম উদ্বোধন করে আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিশাল সুধী সমাবেশে ভাষণ দিবেন তিনি।

জানা যায়, আজ শুক্রবার দুপুর ১২টায় হেলিকপ্টার যোগে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে এসে পৌঁছবেন প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে সড়কপথে সিলেট সার্কিট হাউজে এসে নামাজ ও মধ্যাহ্ন বিরতি শেষে বিকাল আড়াইটায় হযরত শাহজালাল ও শাহপরান (রহ.) মাজার জিয়ারত করবেন। পরে সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামের উদ্দেশ্যে যাত্রা করবেন এবং স্টেডিয়ামটির উদ্বোধন করে সেখাইে সুধি সমাবেশে ভাষণ দিবেন।

প্রধানমন্ত্রীর সিলেট সফরকে কেন্দ্র করে দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। সেই সঙ্গে সিলেটবাসী তাদের ন্যায্য দাবি দাওয়ারও সুস্পষ্ট ঘোষণা চান। সিলেট স্পেশাল ইকোনমিক জোন, ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরকে পূর্ণাঙ্গ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রূপদানসহ সিলেটের উন্নয়নে বিভিন্ন ঘোষণা চায় সিলেটবাসী।

সিলেটবাসী প্রধানমন্ত্রীর আজকের সফরকে অনেকটাই আশাব্যঞ্জক বলে মনে করছেন। দলীয় নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন সুধী সমাবেশে সিলেটের বেশ কিছু দাবী দাওয়া তুলে ধরা হবে। এতে প্রধানমন্ত্রীর ইতিবাচক সাড়া আসতে পারে বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে।

এদিকে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট সফরকে কেন্দ্র করে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকেও ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। গোটা নগরীতে গত এক সপ্তাহ ধরে চলছে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ। রাস্তাঘাট ইতোমধ্যে হকারমুক্ত ও আবর্জনামুক্ত করা হয়েছে। দিনরাত কাজ করছে সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন কর্মীরা। মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী নিজেই নগরী পরিচ্ছন্নতার কাজ তদারকী করছেন। ইতোমধ্যে নগরীর বিভিন্ন স্থানে সিটি করপোরেশন ও দলের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে শতাধিক তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। নেয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি।


অপরদিকে, প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে নেওয়া হয়েছে ৭ স্তরের নিরাপওা ব্যবস্থা।

এব্যাপারে সিলেট বিভাগিয় কমিশনার এন এম জিয়াউল আলম বাংলামেইলকে বলেন, ‘আমরা সব ধরনের নিরাপওা প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সফল করার লক্ষ্যে আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত।’

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক সফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বাংলামেইলকে বলেন, ‘প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে অপরুপ রুপে সাজিয়ে আছে সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম। এখন প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের অপেক্ষায় আছি আমরা।’

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বাংলামেইলকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে সিলেটবাসীর দাবি ছিল একটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের, সেই দাবির বাস্তাবয়নের লক্ষ্যে আজ প্রধানমন্ত্রী সিলেট আসছেন। স্টেডিয়াম উদ্বোধন করে সিলেটবাসীর স্বপ্নকে পরিপূর্ণ করবেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ ক্রিকেট আয়োজনের জন্য সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীতকরণের কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। সবুজ চা বাগান আর উঁচু নিচু টিলা বেস্টিত এ স্টেডিয়ামের নয়নাভিরাম সৌন্দর্য যে কাউকে সহজে মুগ্ধ করে। আইসিসি প্রতিনিধি দল ইতোমধ্যে বেশ কয়েকবার স্টেডিয়াম পরিদর্শণ করে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন এবং সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়েছেন। অনেকেই এ স্টেডিয়ামকে দেশসেরা এবং বিশ্বের অন্যতম সুন্দর স্টেডিয়াম হিসেবে মন্তব্য করেছেন।

৮৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ স্টেডিয়াম তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কারণে কেবল বিশ্বমান নয়, বিশ্বসেরা মাঠে পরিণত হয়েছে। এখন শুধু বিশ্বকাপের খেলা উপভোগের অপেক্ষা করছেন সিলেটবাসী।

নজরকাড়া এ স্টেডিয়ামের গ্যালারীতে বসানো হয় ১৪ হাজার লাল সবুজ চেয়ার। মিডিয়া ভবনের প্রথম তলায় রয়েছে টিভি প্রডাকশন রুম, প্রেস ব্রিফিং রুম, জার্নালিস্ট লকার ও জার্নালিস্ট লাউন্স। দ্বিতীয় তলায় ডাইনিং লাউন্স, তৃতীয় তলায় প্রেস বক্স, চতুর্থ তলা রাখা হয়েছে ধারাভাষ্যকারদের জন্য।

স্টেডিয়ামের পশ্চিম পাশে রয়েছে চারতলা বিশিষ্ট গ্রান্ড স্ট্যান্ড ও হসপিটালিটি বক্স। মাঠের উত্তর-পশ্চিম পাশে বসানো হয়েছে ইলেকট্রনিক স্কোরবোর্ড।

সূত্র: বাংলামেইল