শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী লীগই বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের প্রধান শিকার : লেনিন

 


leবাংলাদেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ-উল আলম লেনিন। পূর্ণাঙ্গ সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো।

এবিনিউজ: ৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর গঠিত সরকার তার কাজ সুষ্ঠুভাবে করে যাচ্ছে। বিরোধী পক্ষের তেমন কোনো আন্দোলন চোখে পড়ছে না। মোটামুটিভাবে সবকিছু শান্ত দেখা যাচ্ছে। তো এ অবস্থায় এ কথা বলার কি সুযোগ আছে যে, দেশে কোনো রাজনৈতিক সংকট নেই?

নূহ-উল আলম লেনিন: দেখুন রাজনৈতিক সংকট বলতে যা বোঝায় সেটি এখন নেই। যে সংকট ছিল তা  ৫ই মে ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মাধ্যমে সমাধান হয়েছে। ভালো হোক বা মন্দ হোক, কেউ পছন্দ করুক না করুক সংবিধান এবং আইন অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফলে নির্বাচনও বৈধ এবং নির্বাচিত সরকারও বৈধ। নির্বাচনের পর আমরা দেখতে পেলাম দেশবাসী স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছে। নির্বাচনের আগে যেভাবে দেশব্যাপী সন্ত্রাস, হত্যা, অবরোধ, জ্বালাও পোড়াও, খুন, সাম্প্রদায়িক হানাহানি এবং সংঘাত যেভাবে জনজীবনকে  অতিষ্ট করে তুলেছিল তার অবসান ঘটেছে। দেশের মানুষ এখন শান্তি এবং নিরাপত্তাবোধ করছে।
তাছাড়া জনজীবনেও স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে এসেছে। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে যে বিপর্যয় সৃষ্টি হয়েছিল সেটাকেও আমরা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি। অলরেডি আমাদের ইকোনোমি তার স্বাভাবিক গতিতে চলতে শুরু করেছে। নির্বাচনের আগে মনে হয়েছিল বাংলাদেশের যারা ডেভালাপমেন্ট পার্টনার  তারা সরকারের প্রতি বিরূপ মনোভাব পোষণ করে। কিন্তু নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয়লাভের পর আমাদের সকল উন্নয়ন সহযোগী দেশ এবং বন্ধুরাষ্ট্রসহ সবাই কিন্তু  বর্তমান সরকারকে স্বাগত জানিয়েছে এবং সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেছে। সেদিক থেকে বিবেচনা করলে দেশ তার স্বাভাবিক গতি ফিরে পেয়েছে। দেশের অর্থনীতি, শিক্ষাসহ সবক্ষেত্রে মানুষের জীবনে শান্তি ও স্বস্তি ফিরে এসেছে। মানুষের এখনকার প্রত্যাশা হচ্ছে এই শান্তি এবং স্বস্তির পরিবেশ ধরে রাখা এবং গণতান্ত্রিক অভিযাত্রাকে সামনের দিকে নিয়ে যাওয়া। সেই অর্থে দেশে এখন তেমন কোনো সংকট এবং সংঘাত নেই যার জন্যে মানুষ খুব চিন্তিত। কিন্তু বিএনপি নতুন করে সংকট সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে।

এবিনিউজ: ৯ম জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধীদল বিএনপি কিন্তু দেশের একটা বড় জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করছে। এ অবস্থায় তাদেরকে রাষ্ট্র পরিচালনার কাজে অংশগ্রহণ করানোর বা তাদের সঙ্গে সমঝোতার ভিত্তিতে আবার নির্বাচনের কোনো চিন্তাভাবনা আপনাদের আছে কি না?

নূহ-উল আলম লেনিন: আপাতত দেশে নির্বাচনের কোনো পরিবেশ নেই, একই সঙ্গে এ ব্যাপারে আমরা কোনো চিন্তাও করছি না। তবে একথা সত্য যে বিএনপি একটি প্রধান রাজনৈতিক দল যার বিরাট সমর্থকগোষ্ঠী রয়েছে। তবে বিএনপিকে তাদের আÍসমালোচনা ও পর্যালোচনা করতে হবে। তারা ৫ই জানুয়ারি নির্বাচন না করে যে ভুল করেছেন। তাদের ঘাঁড়ে জামায়াত সওয়ার হয়ে দেশকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসসের দিকে নিয়ে গিয়ে একটি নির্বাচনমুখী দলকে মেইন স্ট্রিম নির্বাচন থেকে এমনকি আনুষ্ঠানিক বিরোধী দলের অবস্থান থেকেও সরিয়ে নিল। এর ফল দেশের গণতন্ত্রের জন্য শুভ ও কল্যাণকর হবে না। বিএনপির জন্যও তা শুভ ফল বয়ে আনবে না। বিএনপি যে নীতি এবং কৌশল অবলম্বন করেছিলেন তার পুনর্মূল্যায়ন করতে হবে এবং তাদের ভুলগুলো চিহ্নিত করে তা সংশোধন করতে হবে। এরপর তারা রিঅর্গানাইজড হয়ে যদি সরকারের কাছে এসে মৌলিক প্রশ্নে যে মতভিন্নতা রয়েছে সে বিষয়ে সংলাপ করতে পারে। আর সেই সংলাপ শুভ ফল বয়ে আনতে পারে। আমরা সংলাপের বিরোধী না। গত ২৯ তারিখে রাষ্ট্রপতি জাতীয় সংসদে সংলাপের কথা বলেছেন। প্রধানমন্ত্রীও এর আগে বলেছিলেন বিএনপি যদি জামায়াত ছেড়ে আসে এবং অবরোধ, হত্যা, সন্ত্রাস, সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদ বন্ধ করে তখন সংলাপের একটা পরিবেশ সৃষ্টি হতে পারে। আর তখন সংলাপের মধ্যে দিয়ে যদি ঐক্যমত্য হয় সেক্ষেত্রে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হতে পারে। তবে আমরা দেখছি যে বিএনপি এখনও পর্যন্ত সেই রিয়ালাইজেশনের দিকে যাননি। বরং তারা এখনও তাদের পুরনো স্লোগান তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানাচ্ছে। এই যে একটা নির্বাচন হয়ে গেল, এই যে বাস্তবতা সেটাকে অস্বীকার করে পারলে কালকেই নির্বাচন দাবি করছেন বিএনপি। আর তাদের এখনও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের যে দাবি সেটা ৫ই মে’র নির্বাচনে ফয়সালা হয়ে গেছে। সুতরাং তারা যদি তাদের অবস্থানের মূল্যায়ন না করে তাহলে তাদের সাথে সংলাপের বাস্তবতা তো আমি দেখি না। সংলাপ হতে হবে সংবিধানের ফ্রেম ওয়ার্কের মধ্যে।

এবিনিউজ : দ্রুত বা মধ্যবর্তী নির্বাচনের ব্যাপারে দেশের ভেতর এবং বাইরে অনেকেই কথা বলছেন। তবে সরকারের কোনো কোনো মন্ত্রী বা নেতা বলছেন ৫ বছরের মধ্যে কোনো নির্বাচন নয়। তো এ ব্যাপারটি আপনি একটু স্পষ্ট করবেন কি?

নূহ-উল আলম লেনিন: সংবিধান অনুযায়ী সরকার ৫ বছরের জন্যেই  নির্বাচিত হয়েছে এবং স্বাভাবিকভাবেই ৫ বছর পরই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আর আমরা সে কথাই বলছি। তবে তার অর্থ এই না যে এটি সংলাপের পূর্বশর্ত। দেশের কল্যাণের জন্য জামায়াত এবং জঙ্গিবাদী দলগুলো ছাড়া অন্য সকলের সাথে আলোচনা হতে পারে। আমরা আহবান জানাবো- আসুন আমরা দেশের উন্নতির জন্য, মানুষের কল্যাণের জন্য একযোগে কাজ করি। আগামী নির্বাচন ৫ বছর পরে হোক বা ৫ দিন পরে হোক, রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হতেই পারে।

এবিনিউজ : দেশে ক্রসফায়ার বা বিচারবহির্ভূত কোনো হত্যা হচ্ছে না বলে দাবি করেছেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তো গণমাধ্যমের খবরে এর উল্টো চিত্র পাওয়া যাচ্ছে। তাছাড়া দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। আসলে এ ব্যাপারে সরকারের অবস্থান কি?
নূহ-উল আলম লেনিন: দেখুন আমাদের অবস্থান খুবই স্পষ্ট। আমরা বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে। আমি বলব আওয়ামী লীগই বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের প্রধান শিকার। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে যা শুরু হয়েছিল। তারপর ৪ জাতীয় নেতাকে হত্যা করা হলো। এমনকি শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল। ক্লিনহার্ট অভিযান পরিচালনা করেছিল ততকালীন সরকার। আর এসব শুরু করেছিল বিএনপি জামায়াত চক্র। তাদের হাত রক্তে রঞ্জিত। বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে যেসব সংবাদপত্র নিউজ করেছে বা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তারা নিজেরাই পরিসংখ্যান দিয়েছে ২০০৫/২০০৬ সালে কতোটা বিচারবহির্ভূত হত্যকাণ্ড হয়েছে আর ২০১৩ সালে কতটিতে নেমে এসেছে। আর এই তথ্যকে যদি আমরা ধরি তাহলে আমরা দেখব যে বিচারবহির্ভূত হত্যকাণ্ড ক্রমশ হ্রাসমান এবং এটাকে আমরা জিরো পয়েন্টে নিয়ে যেতে চাই। কিন্তু সবসময় সবকিছু রাষ্ট্রের হাতে থাকে না। আমাদের দেশে বা আমাদের সমাজ বাস্তবতায় আমরা চাইলেও সবকিছু করতে পারিনা। কারণ দুটো সন্ত্রাসীদল যদি ক্রসফায়ার করে বা সরকারি বাহিনী আসামী ধরতে গেলে যদি তাদের ওপর আক্রমণ হয় তাহলে স্বাভাবিকভাবে তারা জীবনরক্ষার জন্য প্রতি আক্রমণ করবেই। এই ধরণের ইনসিডেন্ট হতে পারে। কিন্তু আমরা সুস্পষ্টভাবে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিরোধী।

এবিনিউজ: সবশেষে জানতে চাইব, দেশের স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নে রাজনৈতিক শিষ্টাচার ও সহনশীলতা  অপরিহার্য একটি উপাদান। তো বাংলাদেশের রাজনীতিতে সেটি কতোটা আছে বলে আপনার মনে হয়?
নূহ-উল আলম লেনিন: বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে আমার একান্ত ব্যক্তিগত অভিমত হচ্ছে, আমরা গণতন্ত্র শিখছি। বাংলাদেশের জনগণ মুক্তি সংগ্রামের ভেতর দিয়ে দেশকে স্বাধীন করেছে। আর সেটিও গণতান্ত্রিক মুভমেন্টের একটা অংশ। পাকিস্তানি কাঠামোর মধ্যে গণতন্ত্র ছিল না। কাজেই সেখানে স্বাধিকারের জন্য, বাঙ্গালীর আত্মনিয়ন্ত্রণের জন্য বা গণতন্ত্রের জন্য আমরা ৭১ যুদ্ধ করেছি। কিন্তু বাংলাদেশের জšে§র ৪২ বছর অতিক্রান্ত হলেও এ দেশের জন্য দুর্ভাগ্য হচ্ছে এখানকার গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো এখনও পর্যন্ত স্থায়ী ভিত্তির উপর দাঁড়াতে পারেনি। গণতন্ত্র চর্চার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে যথেষ্ট পরিমাণ ফাঁক এবং দূরত্ব রয়েছে। জনগণের মধ্যেও এই মানসিকতার সমস্যা আছে। সুতরাং এখানে আন্তঃ রাজনৈতিক দল এবং রাজনৈতিক দলের অভ্যন্তরে গণতন্ত্র চর্চার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। আমরা চলতে চলতে ভুল করব, ভুল শোধরাব এবং ভুল থেকে শিক্ষা নেব আর এভাবেই আমাদের গণতন্ত্র বিকশিত হবে।
ইউরোপে দুইশত বছর আগে গণতান্ত্রিক অভিযাত্রা শুরু হয় আজকে তারা বর্তমান অবস্থায় পৌঁছেছে। সুতরাং আমাদের গণতন্ত্র ও শিষ্টাচার শিখতে সময় লাগবে। আপনারা ভারতীয় লোকসভার অবস্থা দেখেন। গত ৬৭ বছর যাবত সেখানে গণতন্ত্র আছে। অথচ সেখানে সংসদের ভেতরে মরিচের গুঁড়া নিয়ে প্রতিপক্ষের ওপর আক্রমণ করা হলো। এটা কোন শিষ্টাচারের মধ্যে পড়ে। ইউরোপের অনেক দেশেও মাঝে মাঝে এধরনের ঘটনা ঘটতে দেখা যায়। আর সে তুলনায় আমাদের সংসদ অনেক ভালো। সূত্র: এভিনিউজ

এ জাতীয় আরও খবর

রংপুরে করোনা শনাক্তের হার বাড়ছে  : একদিনে সর্বোচ্চ  ৪৩৮ জন

রংপুর নগরীর প্রধান সড়কগুলো চার্জার ও অটো রিকশার দখলে

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফল

ইতালিতে হাইপোথার্মিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সাত বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে : দূতাবাস

সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর পোশাক কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত বলেই ষড়যন্ত্র-অপপ্রচারে বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী

কাদের টাকায় লবিষ্ট নিয়োগ, ফখরুলকে কাদের

শাবিপ্রবি উপাচার্য ক্যাম্পাস ত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলনের ঘোষণা

রাতে তাপমাত্রা কমতে পারে

ফল ঘোষণা হয়নি, বাইরে বিজয়ের গুজব

রাত ৮টার পর রাজশাহীতে বন্ধ থাকবে সব দোকান

জোড়া সেঞ্চুরির ম্যাচে ঢাকার মধুর প্রতিশোধ