মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দল নির্বাচন নিয়ে মুশফিকের বোমা

530a52563fdb8-Untitled-8টুর্নামেন্ট শুরুর আগে প্রথাগত সংবাদ সম্মেলনে লক্ষ্য কী, প্রতিপক্ষ কেমন—এমন সব প্রশ্নে অধিনায়কেরা সাধারণত নির্দোষ কথাবার্তাই বলে থাকেন। কিন্তু কাল এশিয়া কাপ শুরুর সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ফাটালেন বোমা। এশিয়া কাপের দল নির্বাচনের আগে নাকি তাঁর সঙ্গে কোনো আলোচনাই করেনি নির্বাচক কমিটি!


কেউ একজন অধিনায়কের কাছে জানতে চাইলেন, এশিয়া কাপের দল নিয়ে সন্তুষ্ট কি না। তখনই বোমাটা ফাটালেন মুশফিক, ‘একটা জিনিসে একটু অসন্তুষ্ট ছিলাম এবং এখনো আছি। দল করার আগে আমার সাথে আলোচনা করলে মনে হয় ভালো হতো। সেদিক থেকে আমি প্রচণ্ড ধাক্কা খেয়েছি। আমি শেষ মুহূর্ত পর্যন্তও জানতাম না কে দলে ঢুকছে কে বাইরে যাচ্ছে।’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘যে দলই দেওয়া হবে সেটা নিয়েই আমাকে খেলতে হবে। তবে অধিনায়ককে অন্তত এতটুকু সম্মান জানানো উচিত। জানি না কোন কারণে তা হয়নি। ভবিষ্যতে যে-ই অধিনায়ক হোক না কেন সে যেন সম্মানটা পায়।’


১৪-১৫ জনের দল সাধারণত নির্বাচকেরাই করে থাকলেও কোচ-অধিনায়কের পরামর্শ নেওয়াটা রীতি। সেই পরামর্শ নির্বাচকেরা গ্রহণ করতে পারেন, নাও পারেন। সেটা জেনেই মুশফিক বলেছেন, ‘আমার মতামত উনি (প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ) নিন বা না নিন সেটা ভিন্ন কথা, তবে আশা করছিলাম আমার সঙ্গে একবার অন্তত কথা বলবেন।’


সেটা না বলায় মুশফিক এতটাই মর্মাহত যে একটু আবেগপ্রবণও হয়ে পড়লেন, ‘খারাপ সময় সব দলেরই আসে। এমন সময়েই আসলে কাছের মানুষদের বোঝা যায়। তখন সবার সাহায্য পেলে খারাপ সময়টা তাড়াতাড়ি পার করা যায়।’ দলে একসঙ্গে অনেক পরিবর্তন আনাটাকে ‘বিপজ্জনক’ বলেছেন অধিনায়ক। কারও নাম না বললেও বাদ পড়া খেলোয়াড়দের কারও আরেকটু সুযোগ পাওয়া উচিত ছিল বলে মনে করেন তিনি।


পরশু রাতে দল ঘোষণা করেই সহনির্বাচক হাবিবুল বাশারকে নিয়ে ভারত সফরে গেছেন প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ। মুশফিকের অভিযোগ সম্পর্কে তাই তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে আরেক নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন বলেছেন, ‘দল নির্বাচনের সময় কোচ শেন জার্গেনসেন আমাদের সঙ্গে ছিলেন। ফিজিও বিভব সিংয়েরও পরামর্শ নিয়েছি আমরা।’ অধিনায়কের সঙ্গে আলোচনা করেছেন কি না, জানতে চাইলে অবশ্য বলেছেন, ‘এটা সাধারণত প্রধান নির্বাচকই করে থাকেন। মুশফিক খেলার মধ্যে ছিল বলে হয়তো সেটা করা হয়নি।’


শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাজেভাবে সিরিজ হারায় এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে এমনিতেই টালমাটাল দল। সাকিবের বহিষ্কার, চোটের কারণে তামিমকে না পাওয়ায় হাওয়া আরও এলোমেলো। এরই মধ্যে দল নির্বাচন নিয়ে মুশফিকের মন্তব্য আগুনে ঘি ঢালার মতো। তবে মুশফিক পরিষ্কার করেছেন, তাঁর অভিযোগটা দল নির্বাচনের প্রক্রিয়া নিয়ে, দল নিয়ে নয়, ‘যে ১৫ জন এসেছে তাদের অভিনন্দন। আমাকে এই ১৫ জনকে নিয়েই খেলতে হবে এবং আশা করব এই ১৫ জনকে নিয়ে আমরা সেরা খেলাটাই খেলব।’


শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হতাশাজনক সিরিজের পর সেরাটা খেলা একটু কঠিনই। মুশফিক নিজেও বাস্তবতা বুঝে বড় কোনো স্বপ্ন দেখাচ্ছেন না, ‘বাস্তবতা চিন্তা করলে সাম্প্রতিক এই পারফরম্যান্সের পর এশিয়া কাপের ফাইনালে যাওয়া বা ফাইনালে জেতা খুব কঠিন।’ তবে এটা এক দিক থেকে তাঁর কাছে চাপমুক্তিরও কারণ, ‘খেলোয়াড়দের ওপর চাপ একটু কম থাকবে। সে সুযোগে চেষ্টা করব নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটা ফিরিয়ে আনতে। হারি বা জিতি, প্রক্রিয়াগুলো যেন ঠিক থাকে।’


এশিয়া কাপের জন্য যে পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছিল বাংলাদেশ দল, প্রত্যাশিত অনেককেই না পাওয়াটাকে সে পথে বড় একটা ধাক্কাই মনে করছেন মুশফিক, ‘যেভাবে পরিকল্পনা করে এগোচ্ছিলাম সে জায়গাটায় আমরা বড় ধাক্কা খেয়েছি, এটা সত্যি। সত্যি বলতে এশিয়া কাপে আমাদের আর হারানোর তেমন কিছু নেই।’ তবে আশঙ্কার কথা, এখন আফগানিস্তানকেও বড় প্রতিপক্ষ মনে হচ্ছে মুশফিকের কাছে। তার পরও এই দলটির বিপক্ষেই সরাসরি জয়ের কথা বলেছেন অধিনায়ক। বাকি তিন দলের বিপক্ষে লক্ষ্য—খুব ভালো ক্রিকেট খেলে গত দেড়-দুই বছরের ধারাবাহিকতায় ফেরা।


ঝড়ের মধ্যে পড়া জাহাজের কাপ্তান মুশফিকুর রহিম। কে জানে, সামনে কতটা বিপৎসঙ্কুল পথ অপেক্ষা করছে তাঁর জন্য।

এ জাতীয় আরও খবর