রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

একুশের অনুষ্ঠানের সুযোগে সীমান্ত পাড়ি দেয়ার আশায় আখাউড়া সীমান্তে হাজার মানুষের ভীড়

Untitled-37পাসপোর্ট ভিসা কিছুরই প্রয়োজন নেই, অবাধে সীমান্ত পাড়ি দিতে পারে যে কেউ, শত হাজার মানুষ। অবাধে বিচরণও করা যায় দু দেশের অভ্যন্তরে ঢুকে। গত দু বছর একুশের অনুষ্ঠান উপলক্ষে এমনই হয়েছে। এবারও এমনই হবে এই ভেবে কয়েক হাজার মানুষ গতকাল শুক্রবার ভীড় করেছে আখাউড়া সীমান্তে। অমর একুশ উদযাপনের সুযোগে ভারতে যাওয়ার আশায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর এলাকায় জড়ো হয়েছিল এবার হাজার বিশেক মানুষ। তবে এবার সে সুযোগ পাওয়া যায়নি। ভারতীয় কর্তৃপক্ষের অনীহার কারণে সীমান্ত এলাকায় একুশ উদযাপন না হওয়ায় বিষন্ন মনেই ফিরতে হয়েছে তাদেরকে। গতকাল শুক্রবার সকালে আখাউড়া স্থলবন্দরে দেখা গেছে , হাজার হাজার মানুষের জটলা। নারী পুরুষ শিশু অনেক মানুষ। নানা যানবাহনে চড়ে  এসেছে তারা। সীমান্ত পাড়ি দেয়ার চেস্টা রোধে সীমান্ত রক্ষীদেরও হিমশিম খেতে হয়েছে।  বিজিবি ও পুলিশ আগতদের শত অনুরোধ করে সরাতে পারছিল না। ভারতে যাওয়ার দাবি ছিল সকলের সোচ্চার। গত ২ বছর গিয়েছে এবার কেন নয় এতে অনেকে ছিল বিক্ষুব্ধ। এক পর্যায়ে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা দফায় দফায় লাঠিচার্জ করেন। এখানে শুধু ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষ নয় অনেকে এসেছে রাজধানী ঢাকা সহ অন্যান্য জেলা থেকে। আখাউড়ার রুটি গ্রামের চিত্ত শীল বলেন, ‘মুড়ি ও মোয়া নিয়ে ভাগ্নেকে দেখার জন্য যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু এসে দেখি এবার ভারতে যেতে দেওয়া হবে না। ভারত যাব বলে এক বছর ধরেই অপেক্ষা করছিলাম। কিন্তু এখন না যেতে পেরে মনে খুব কষ্ট লাগছে’। আগতদের একজন জয়পাল জানান, ওপারে তার আত্মীয়রা অনেক জিনিষ কিনে রেখেছে, সহজে আনতে পারবে তাই তিনি  এসেছে সীমান্তে। তারেক মিয়া জানান, পাসপোর্টং ভিসা ছাড়া একুশের দিনে ভারত যাওয়া যায় গত দুই বছরের ধারাবাহিকতায় এবারও যেতে পারবে তাই ঢাকা থেকে তার ৪ বন্ধু সহ সীমান্তে এসেছে। রাখী সাহা জানান, এখানে অনুষ্ঠান হবে এটা বড় কথা নয় অন্যান্য বারের মতো এবার সীমান্ত খোলা থাকবে আত্মীয় স্বজনের সাথে দেখা করতেই সীমান্তে  এসেছেন স্বপরিবারে। গত দুই দিন ধরে সীমান্তের এই বিষয়টি ছিল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার টক অব দ্যা টাউন, গণমাধ্যম কর্মী সহ সংস্কৃতি কর্মীদের কাছে ফোনের পর ফোন সীমান্তে অনুষ্ঠান হচ্ছে কিনা। ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল অনেকে। বিভিন্ন পত্রিকায় এবার অনুষ্ঠান হচ্ছে না এই খবরও প্রকাশিত হয়। তবুও কৌতুহল, ব্যাপক আগ্রহ, সীমান্তে গেলে পাড়ি দেয়ার সুযোগ হতেও পাড়ে এই ভেবে অনেকে গিয়েছে আখাউড়া সীমান্তে। হাজার মানুষ ভীড় জমে যায়।এক পর্যায়ে প্রায় বিশ হাজার লোকের সমাগম ঘটে যায় স্থলবন্দর এলাকায়। আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ খুরশীদ শাহরিয়র, থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অং সা থোয়াই লোকজনকে সরে যাওয়ার জন্য মাইকিং করেন। বেশ কয়েকবার এ ধরণের মাইকিং করা হয়। বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত চলতে থাকে এ অবস্থা। উল্লেখ গত ২ বছর আখাউড়া সীমান্তে ত্রিপুড়া এবং ব্রাহ্মণাড়িয়ার সংস্কৃতি সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে একুশের অনুষ্ঠান হয়েছে। এসব অনুষ্ঠানে ত্রিপুড়া রাজ্যের মন্ত্রী, বাংলাদেশের সংসদ সদস্য, প্রশাসনের কর্মকর্তা, দুদেশের সংস্কৃতি কর্মীরা যোগ দেয়। অনুষ্ঠান দেখাকে কেন্দ্র করে দু দেশেই পাসপোর্ট ভিসা ছাড়া অবাধ প্রবেশ বিচরণ, বেড়ানোর সুযোগ পায় অনেক মানুষ। এবারও এমন হবে এ প্রত্যাশা ছিল অনেকের। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের অনীহার কারণে এ বছর আখাউড়া সীমান্তের নো-ম্যানসল্যান্ডে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কোনো অনুষ্ঠান হয় নি। নিরপাত্তার কারণ দেখিয়ে সে দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় অনুষ্ঠান না করার জন্য ত্রিপুরা রাজ্য সরকারকে চিঠি দেয়। বাংলাদেশের উদ্যোক্তারা এ নিয়ে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বললেও কোনো ফল হয় নি এক থা জানান, গত বছর একুশ আয়োজনের অন্যতম উদ্যোক্তা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তিতাস আবৃত্তি সংগঠনের পরিচালক মো. মনির হোসেন , তিনি বলেন‘আমরা দু’বছর ধরেই ২১ ফেব্রুয়ারিতে দু’দেশের মানুষের মিলন মেলার আয়োজন করি। কিন্তু এবার ভারতীয়দের অনীহায় তা করা হয় নি। তবে দু’দেশের মধ্যে সম্প্রীতির বন্ধন দৃঢ় করতে এ ধরণের আয়োজন খুবই জরুরি’।