রবিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আখাউড়া সীমান্তে একুশ উদযাপন হয়নি

Brahmanbaria_picব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া সীমান্তে এবার বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপিত হয়নি।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষের অনীহার কারণে ফলে এবার এই সীমান্ত এলাকার অন্তত হাজার বিশেক মানুষ দুই দেশর এই আয়োজনে অংশ নিতে পারেননি।

শুক্রবার সকালে সরজমিনে আখাউড়া স্থলবন্দর গিয়ে দেখা যায়, অমর একুশ উদযাপনের জন্যে ভারতে যাওয়ার আশায় হাজার হাজার মানুষের জটলা। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও পুলিশ জনতাকে শত অনুরোধ করেও সরাতে পারছেন না। একপর্যায়ে জনতা ভারতে যাওয়ার দাবি তুললে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দফায় দফায় লাঠিচার্জ করেন।

এ সময় আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ খুরশীদ শাহরিয়র ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অং সা থোয়াই লোকজনকে সরে যাওয়ার জন্য মাইকিং করেন। বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এ অবস্থা বজায় থাকে।

আগতদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তাদের বেশিরভাগই ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, নরসিংদী, কিশোরগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে এসেছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনীহার কারণে এ বছর আখাউড়া সীমান্তের নো ম্যানস ল্যান্ডে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কোনো অনুষ্ঠান হয়নি। নিরপত্তার অজুহাতে সে দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অনুষ্ঠান না করার জন্য ত্রিপুরা রাজ্য সরকারকে চিঠি দেয়। বাংলাদেশের উদ্যোক্তারা এ নিয়ে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বললেও কোনো ফল হয়নি।

আখাউড়ার রুটি গ্রামের চিত্ত শীল বলেন, মুড়ি ও মোয়া নিয়ে ভাগ্নেকে দেখার জন্য যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু এসে দেখি এবার ভারতে যেতে দেওয়া হবে না। ভারত যাব বলে এক বছর ধরে অপেক্ষা করছিলাম। কিন্তু এখন না যেতে পেরে খুব কষ্ট লাগছে।

গত বছর একুশ আয়োজনের অন্যতম উদ্যোক্তা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তিতাস আবৃত্তি সংগঠনের পরিচালক মো. মনির হোসেন বলেন, আমরা দুই বছর ধরে ২১ ফেব্রুয়ারিতে দু’দেশের মানুষের মিলন মেলার আয়োজন করি। কিন্তু এবার ভারতীয়দের অনীহায় তা করা হয়নি।