সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যেখানে সমস্যা দেখছেন মুশফিক

5306691160c8e-Untitled-4মুশফিকুর রহিম একা। খেলায়। খেলা শেষেও। ৭৯ রানের ইনিংস দিয়ে বলতে গেলে একাই লড়লেন শ্রীলঙ্কার ২৮৯ রানের বিপক্ষে। ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণীতেও দলের প্রতিনিধি হয়ে একাই এলেন।

হেরে গেলে এখন এটাই অলিখিত নিয়ম। যত কষ্টকরই হোক ‘শেষ কৃত্যানুষ্ঠানে’র আনুষ্ঠানিকতায় একা হাঁটতে হয় অধিনায়ককে। কালও একা একাই ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে এলেন। তবে এসে ছাতাটা মেলে ধরলেন পুরো দলের ওপরই।

ব্যর্থতা ছোটখাটো অনেক প্রশ্ন উসকে দেয়। আর বাংলাদেশ দল তো আছে ব্যর্থতার মিছিলে! টি-টোয়েন্টি সিরিজের দুই ম্যাচেই জয়ের সুবাস নিয়ে ফেরার পর প্রথম ওয়ানডেতে জিততে জিততে হেরে যাওয়া। কালও ক্যাচ মিসের মহড়া আর উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসার বিলাসী ব্যাটিংয়ে প্রত্যাশা মেটাতে পারেনি বাংলাদেশ দল। সংবাদ সম্মেলনে ছুটে যাওয়া আরও অনেক তীরের সঙ্গে মুশফিকুর রহিমকে বিদ্ধ করল ‘মাহমুদউল্লাহ আসলে কী করছেন দলের জন্য’ প্রশ্নটাও। জবাবে মুশফিক শুধু মাহমুদউল্লার জন্যই ঢাল হলেন না, আগলে দাঁড়ালেন পুরো দলকেই, ‘আমি চেষ্টা করি কেউ খারাপ করলে তাকে সমর্থন দিয়ে তার কাছ থেকে সেরাটা আনতে। এটা শুধু রিয়াদ (মাহমুদউল্লাহ) ভাইয়ের বেলায়ই নয়, সবার ক্ষেত্রেই। টেস্টে যেমন মার্শাল খারাপ করছিল, আমরা তাকে সমর্থন দেওয়ার চেষ্টা করেছি। একটা খেলোয়াড় যদি মনে করে আজ খারাপ করলেই বাদ, সেটা দলের জন্য কখনোই ভালো হয় না।’

ব্যর্থতার জন্য একা কারও ওপর দোষ না চাপিয়ে মুশফিক দায় চাপালেন সবার কাঁধে। বললেন, গুরুত্বপূর্ণ সময়ে করা ভুলগুলোই ভন্ডুল করে দিচ্ছে সব পরিকল্পনা, ‘গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আমরা একটু বেশি ভুল করে ফেলছি। যখন একদমই ভুল করা যায় না, তখনই ভুলগুলো হচ্ছে। এত বেশি ভুল করে ফেললে যেকোনো দলের বিপক্ষেই জয়টা খুব কঠিন।’

নিজে ৭৯ রান করলেও মাঠে খুব মিস করেছেন একটা বড় জুটি। শ্রীলঙ্কা ১৫-২০ রান বেশি করে ফেলেছে বলে যেমন মনে হচ্ছে, মুশফিক তেমনি কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন নিজেদের ব্যাটসম্যানদেরও, ‘আমরা কখনোই রান রেটে পিছিয়ে ছিলাম না। তবে যখন আপনি ২৮৯ তাড়া করবেন তখন অন্তত একটা বড় জুটি লাগে। অন্তত যদি দুইটা সেট ব্যাটসম্যান থাকত…ওরা যেমন ৩ উইকেট পড়ার পর একটা বড় জুটি গড়েছে। মিডল অর্ডারে আমাদের দুই সেট ব্যাটসম্যান তাড়াতাড়ি আউট হয়ে গেছে। সাকিব আর নাসিরের আউটই আমাদের ব্যাকফুটে ঠেলে দিয়েছে।’

শ্রীলঙ্কার সঙ্গে নিজেদের তুলনা করতে গিয়ে একপর্যায়ে অসহায়ই শুনিয়েছে মুশফিকের কণ্ঠ। বড় দলগুলোতে সেট ব্যাটসম্যানরা টেল এন্ডারদের সাহায্য পায়। কিন্তু বাংলাদেশ দলে সেটা হয় খুব কমই। কাল যেমন মুশফিকও লম্বা সময়ের জন্য পেলেন না কারও সঙ্গ।

ধারাবাহিক পরাজয়ের কারণ হিসেবে দুটি বিষয়ই সামনে আনছেন অধিনায়ক। একটা তো গুরুত্বপূর্ণ সময়ে করা ভুলগুলো, আরেকটা হলো যাদের ধারাবাহিক পারফরম্যান্সে গত এক-দেড় বছরে বাংলাদেশ দলের অন্য চেহারা দেখেছে সবাই, তাদের হঠাৎ করে নিভে যাওয়া। আর এতে পুরো দলের আত্মবিশ্বাসের পারদটাই গেছে নেমে। এ অবস্থা কাটিয়ে ওঠার একটাই উপায় দেখছেন মুশফিক, ‘একটা জয়ই পারে আমাদের এখান থেকে বের করতে। তবে সেটা করার জন্য এই দেড় বছরে যত কষ্ট করেছি তার চেয়ে দ্বিগুণ কষ্ট করতে হবে। এই একটা জয় পাওয়া যেকোনো দলের বিপক্ষেই খুব কঠিন হবে।’ মুশফিকের আশা, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কালকের শেষ ম্যাচে সর্বস্ব দিয়ে হলেও ছিনিয়ে আনা যাবে কাঙ্ক্ষিত সেই জয়।

মুশফিকের সঙ্গে সেই জয়ের অপেক্ষায় থাকবে গোটা বাংলাদেশই।

এ জাতীয় আরও খবর

দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মিসরে গির্জায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৪১

ফাঁস হওয়া গোপন ভিডিও নিয়ে যা বললেন অঞ্জলি

‘বালুখেকো’ সেলিমকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

পাখির আঘাতে বিকল লন্ডনগামী বিমানের ফ্লাইট

বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়েতে বাসের ধাক্কায় নিহত ২

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত বুয়েট শিক্ষার্থীরা

বুয়েটের আন্দোলনকারীরা শিবির: জয়

অনুশীলনে গুলিবিদ্ধ বিজিবি সদস্যের মৃত্যু

সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ বিষয়ে করা রিট খারিজ

বঙ্গবন্ধু হত্যার বড় সুবিধাভোগী জিয়া ও তার পরিবার : তথ্যমন্ত্রী

আপনারা সবাই আমারে খায়া ফেললেন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী