সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৯৭ উপজেলায় চলছে ভোটগ্রহণ

image_110036দেশের ৯৭টি উপজেলা পরিষদে নির্বাচনে আজ বুধবার ভোটগ্রহণ চলছে। সকাল আটটায় শুরু হওয়া ভোট গ্রহণ চলবে বিকাল চারটা পর্যন্ত। নির্বাচনে ৪০ জেলার ১ কোটি ৬৪ লাখ ৭৮ হাজার ১৭২ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচন ঘিরে সহিংসতার আশঙ্কা না থাকলেও সশস্ত্র বাহিনী, র্যাবসহ পর্যাপ্ত সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে। অরাজনৈতিক হলেও রাজনৈতিক দলগুলোর সক্রিয় অংশগ্রহণে প্রথম দফার এই উপজেলা নির্বাচনে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে।



নির্বাচন কমিশনার মো. শাহ নেওয়াজ ইত্তেফাককে জানান, আচরণবিধি লংঘনসহ সব ধরনের অনিয়ম ঠেকাতে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কাছে যথাযথ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নির্বাচনী দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা দায়িত্বে অবহেলা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। দায়িত্ব পালনে কোন ধরনের শৈথিল্য বরদাশত করা হবে না।



ঝুঁকিপূর্ণ ২৬৬২ ভোটকেন্দ্র !



উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস-চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান -এই তিনটি পদে ১ হাজার ২৫৯ জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা এই নির্বাচনকে মর্যাদার লড়াই হিসেবে গ্রহণ করেছে। প্রার্থী বাছাই থেকে শুরু করে প্রচারণার প্রতিটি বিষয় কেন্দ্র থেকে মনিটরিং করা হচ্ছে। প্রার্থীদের পক্ষে পোলিং এজেন্টদের বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে নানা তত্পরতা সত্ত্বে বড় দুটি দলই বিদ্রোহী প্রার্থীদের নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়েছে। অনেক বিদ্রোহী প্রার্থীকে দু'দলই বহিষ্কার করেছে। রাজনৈতিক দল ও সাধারণ মানুষের মধ্যে নির্বাচন ঘিরে আমেজ বিরাজ করলেও কমিশনের কর্মকর্তাসহ ঊধ্বর্তন ব্যক্তিদের আগ্রহ তেমন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। গতকাল নির্বাচন নিয়ে কমিশনের আনুষ্ঠানিক বৈঠকও স্থগিত করা হয়েছে। নির্বাচন নিয়ে কমিশন থেকে কোন ব্রিফিংও করা হয়নি। নির্বাচনের ৯ টা ঘন্টার আগ পর্যন্ত (গতকাল বিকাল ৫টা) ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের সংখ্যা কত তার হিসাবই জানাতে পারেনি ইসি। জানতে চাইলে কমিশনের এক কর্মকর্তা বলেন, তারা এ বিষয়ে কিছুই জানেন না। পরে তড়িঘড়ি করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছ থেকে তথ্য নিয়ে সন্ধ্যায় জানানো হয়, ৬ হাজার ৯৯৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ২ হাজার ৬৬২টি ঝুঁকিপূর্ণ।



অভিযোগ এলেও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না



মঙ্গলবার পর্যন্ত কমিশনে প্রার্থীরা বেশ কিছু লিখিত অভিযোগ করলেও অভিযোগপত্র সংশ্লিষ্ট টেবিলেই পড়ে আছে। এর মধ্যে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামের মিরসরাই থেকে চেয়ারম্যান প্রার্থী গিয়াসউদ্দিন লিখিত অভিযোগে বলেন, উপজেলার ৪৫টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র দখল করতে পারে প্রতিপক্ষরা। একই দিনে ঝিনাইদহ সদরের চেয়ারম্যান প্রার্থী এডভোকেট আবদুল আলিম একই ধরনের অভিযোগ করেন। এর আগে গত ১২ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ ফরিদপুর-৪ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মুজিবুর রহমান নিক্সনের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ করেন। কিন্তু কমিশনে প্রতিনিয়ত এ রকম একাধিক অভিযোগ এলেও কোন অভিযোগই আমলে নেয়া হচ্ছে না।



এ ব্যাপারে ইসি কর্মকর্তারা ইত্তেফাককে জানান, জেলা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তারা সরকারি কর্মকর্তাদের নির্বাচনী কাজে সহায়তা করছে মাত্র। উপজেলা নির্বাচনে যে হারে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসাবে নিযুক্ত করা হয়েছে তাতে কার্যত এই নির্বাচনের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে ইসি।



মাঠে সেনা, র্যাব, বিজিবি



অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে প্রথম ধাপের নির্বাচন শেষ করতে মাঠে নামানো হয়েছে সশস্ত্র বাহিনীকে। নির্বাচনের পরবর্তী দুইদিন পর্যন্ত তারা নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করবে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মাঠে রয়েছেন তারা। প্রতি উপজেলায় ১ প্লাটুন করে সেনাবাহিনীর সদস্য টহল শুরু করেছেন। পাশাপাশি প্রতি উপজেলায় সেনাবাহিনীর দুই থেকে তিনটি গাড়ি থাকবে। সঙ্গে সেনাবাহিনীর কমান্ডিং অফিসার ও একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট রয়েছে। এছাড়া মোবাইল ফোর্স হিসেবে পর্যাপ্ত পরিমাণ র্যাব, বিজিবি, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। প্রতি কেন্দ্রে থাকছে ১৪ জন পুলিশ-আনসার। এছাড়া নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে ৩৮৮ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ৯৭ জন বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে রয়েছেন।



মনিটরিং সেল গঠন



নির্বাচন সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ করতে এবং অনিয়ম ঠেকাতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা ও ইসি কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে কেন্দ্রীয় মনিটরিং সেল গঠন করেছে ইসি। মঙ্গলবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত টানা তিন দিন ইসি সচিবালয়ের তৃতীয় তলার কনফারেন্স কক্ষে এই সেল কাজ করবে।



যে ৯৭ উপজেলায় আজ ভোট



আজ প্রথম ধাপে খাগড়াছড়ি সদর, রামগড়, পানছড়ি, মানিকছড়ি, মাটিরাঙ্গা ও মহালছড়ি, ঝিনাইদহ সদর, কালিগঞ্জ, কোটচাঁদপুর ও শৈলকুপা, মাগুরা সদর, শ্রীপুর, ভোলার লালমোহন, মানিকগঞ্জের দৌলতপুর, শিবালয়, সিঙ্গাইর, সাটুরিয়া, গাজীপুরের কাপাসিয়া, রাজবাড়ীর পাংশা, পঞ্চগড়ের সদর, বোদা, অটোয়ারী, দেবীগঞ্জ, কাহারোল, খানসামা, রংপুরের তারাগঞ্জ ও মিঠাপুকুর, কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারি, উলিপুর, ফুলবাড়ি, গাইবান্ধার সাঘাটা, বগুড়ার সারিয়াকান্দি, শেরপুর, ধুনট ও নন্দীগ্রাম, দুপচাঁচিয়া, সোনতলা, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল, নাটোরের সিংড়া, সিরাজগঞ্জের সদর, রায়গঞ্জ, উল্লাপাড়া, কাজীপুর, মেহেরপুর সদর, কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা ও সদর, নড়াইলের কালিয়া, জামালপুর সদর, সরিষাবাড়ি, সদর ও বালিয়াকান্দি, গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী, মুকসুদপুর, মাদারীপুরের কালকিনি, শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ ও ডামুড্যা, জাজিরা, গোসাইর হাট, সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, ছাতক, মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, হবিগঞ্জের মাধবপুর, বাহুবল, নীলফামারির ডিমলা, সৈয়দপুর ও জলঢাকা, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ, নওগাঁর মহাদেবপুর, রানীনগর, পাবনার সাঁথিয়া, আটঘড়িয়া, সুজানগর, যশোরের অভয়নগর, বরিশালের বাকেরগঞ্জ, গৌরনদী, নেত্রকোনার দুর্গাপুর, কেন্দুয়া, কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর, নিকলী, করিমগঞ্জ, ঢাকার দোহার, নবাবগঞ্জ, নরসিংদীর পলাশ, বেলাবো, সিলেটের বিশ্বনাথ, জকিগঞ্জ, কোম্পানীগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, চট্টগ্রামের হাটহাজারি, মিরসরাই, সাতক্ষীরার আশাশুনি, রাজশাহীর মোহনপুর, খুলনার দিঘলিয়া ও কয়রায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।



প্রসঙ্গত, গত ১৯ জানুয়ারি নির্বাচন কমিশন প্রথম ধাপের ১০২টি উপজেলার তফসিল ঘোষণা করলেও আজ বুধবার ভোট হবে ৪০ জেলার ৯৭টি উপজেলায়। সীমানা নির্ধারণ নিয়ে জটিলতার কারণে রংপুরের চারটি উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত রয়েছে। এগুলো হলো-রংপুর সদর, কাউনিয়া, গঙ্গাচরা ও পীরগাছা। এ ধাপের পীরগঞ্জ উপজেলার ভোট হবে ২৪ ফেব্রুয়ারি।



এছাড়া দ্বিতীয় ধাপে ১১৬ উপজেলায় ২৭ ফেব্রুয়ারি, তৃতীয় ধাপে ৮৩ উপজেলায় ১৫ মার্চ এবং চতুর্থ ধাপে ৪২ জেলায় ৯২টি উপজেলায় ভোট হবে ২৩ মার্চ। চলতি সপ্তাহে পঞ্চম ধাপের তফসিল ঘোষণার কথা রয়েছে।