সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জনগণ কি স্বতঃস্ফুর্তভাবে বিএনপি প্রার্থীদের বেছে নেবে?


bootস্থানীয় সরকার নির্বাচন একটি অরাজনৈতিক নির্বাচন হলেও এটি অনেক আগে থেকেই অলিখিতভাবে রাজনৈতিক নির্বাচনের রূপ নিয়েছে। আর এই রাজনৈতিক রূপের প্রবলতা সময় ও পরিস্থিতির সাথে পাল্লা দিয়ে কখনও বাড়ে, কখনও কমে।

তবে রাজনৈতিক রূপ পেলেও স্থানীয় সরকার নির্বাচনের এলাকা ভিত্তিক একটি চরিত্র আজও রয়ে গেছে। ভোটাররা প্রতিনিয়ত স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। এলাকার উন্নয়ন থেকে শুরু করে সব ধরণের সেবার সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। তাই স্থানীয় সরকার নির্বাচনকে রাজনীতিকীকরণের পরেও ভোটাররা ভোট দেয়ার আগে প্রার্থীর রাজনৈতিক পরিচয়ের চেয়েও ব্যক্তি পরিচয়কেই বিশেষ বিবেচনায় আনেন।

১৯৯৪ সালের ৩০ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত দেশের চার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন প্রথম বারের মত প্রবল রাজনৈতিক রূপ পায়। বিশেষ করে ঢাকায় বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মির্জা আব্বাস ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ হানিফের পেছনে দু’টি দলই সর্বশক্তি নিয়োগ করেছিল। শুধু দলের কেন্দ্রীয় নেতারাই নন, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া প্রতিদিনই মির্জা আব্বাসের পক্ষে জনসংযোগ কিংবা জনসভায় অংশ নিয়েছেন। আর হানিফের পক্ষে জনসংযোগ কিংবা জনসভা করেছেন তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা। ওই নির্বাচনেও কিন্তু ভোটাররা দলের চেয়ে ব্যক্তিকেই বড় করে দেখেছেন। বিশেষ করে ওয়ার্ড কমিশনার বাছাই করেছেন ব্যক্তি বিবেচনায়।

আগেই বলা হয়েছে যে, সময় ও পরিস্থিতি অনুযায়ী স্থানীয় সরকার নির্বাচনকে রাজনীতিকীকরণের প্রবলতা বাড়ে কমে। সাম্প্রতিক সময়ে প্রবল রাজনৈতিক রূপ পায় পাঁচ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। ওই নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা বিপুল ভোটে জয়ী হন। প্রার্থীর যোগ্যতা কিংবা অযোগ্যতা নিয়ে অনেক আলোচনা পর্যালোচনা হলেও কার্যত ভোটাররা আওয়ামী লীগের প্রতি সম্মিলিত অনাস্থা জানিয়েছিলেন।

এর পরই জাতীয় নির্বাচন যা পুরোপুরিই রাজনৈতিক। কিন্তু ওই নির্বাচন বর্জন করে দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জয়ী হওয়া বিএনপি’র ধারণা ছিল দলটির প্রতি বিপুল জনসমর্থন তৈরি হয়েছে। কিন্তু একের প্রতি অনাস্থা মানেই যে অন্যের প্রতি পূর্ণ আস্থা নয় সেই বিচার করতে পারেনি বিএনপি। বিএনপি ধারণা করেছিল তাদের প্রতি জনগণের পূর্ণ আস্থার কারণেই জনগণ নির্বাচন শুধু বর্জনই নয়, প্রতিহতও করবে। কিন্তু নির্বাচনে জনগণ অংশ নেয়নি নিজের নিরাপত্তার কারণেই। আর বিএনপি মাঠে না থাকায় কেউ নির্বাচন প্রতিহতও করতে যায়নি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে।

তবে অবরোধ আর হরতালের মধ্যেও নির্বাচন অনুষ্ঠানের পর আওয়ামী লীগ যখন সরকার গঠন করে ফেলে তখন বিএনপি’র ভেতরে একটা অনুশোচনা কাজ করতে থাকে। অনেকে আত্মসমালোচনা করে বলতে থাকেন নির্বাচনে না যাওয়া ভুল হয়েছে। এসব আত্মসমালোচনার মধ্যেই উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিয়ে দল ও কর্মীদের চাঙ্গা করার চেষ্টা করছেন বিএনপি’র নীতিনির্ধারকরা। অবশ্য উপজেলা নির্বাচনে অংশ গ্রহণ নিয়ে দলের মধ্যে মতদ্বৈততাও রয়েছে।

বুধবার ৪০টি জেলার ৯৭টি উপজেলায় নির্বাচন হচ্ছে। সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোট গ্রহণ চলবে বিকেল ৪টা পর্যšত্ম। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী উৎসবমূখর পরিবেশে শাšিত্মপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চললেও ঝিনাইদহের কয়েকটি কেন্দ্রে সংঘর্ষ ও পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। বরিশাল ও ভোলায় কেন্দ্র দখলের অভিযোগে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা এসেছে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষ থেকে।

বিক্ষিপ্ত কিছু সংঘর্ষের ঘটনা ঘটলেও এ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে বলেই দেশবাসীর প্রত্যাশা। তবে নির্বাচনের ফল কি হবে তা নিয়ে চলছে জল্পনা কল্পনা। রাজনৈতিক দলগুলোও নির্বাচন তাদের পক্ষে যাবে বলেই প্রত্যাশা করছে। এজন্য দলের শক্তিও নিয়োগ করা হচ্ছে নিজ নিজ প্রার্থীর পক্ষে।

তবে বিএনপি’র প্রত্যাশা এখানে একটু বেশি। বিএনপি মনে করছে সরকারের প্রতি অনাস্থা জানাতে ভোটাররা এমনি এমনিই বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের ভোট দিয়ে দেবেন। কিছু ভোটারের মনোভাব এমন হতে পারে সত্যি। কিন্তু সার্বিকভাবে ভোটাররা আওয়ামী লীগের প্রতি অনাস্থা জানাতে বিএনপি-কে বেছে নেবে এটা ভাবা রীতিমত বোকামী। হতে পারে শাসক দলের প্রতি মানুষের অনাস্থা তৈরি হয়েছে। কিন্তু সেই অনাস্থাই যে বিএনপি’র প্রতি আস্থা তা ভোটাররা কখনই বিএনপি-কে বলেননি।

বিএনপি ও তার ১৯ দলীয় জোট নির্বাচন বর্জন করতে গিয়ে টানা অবরোধ আর হরতালের ডাক দিয়ে নিজেরা আত্মগোপনে গিয়ে জনগণকে যে চরম ভোগাšিত্মতে ফেলেছিল তা মানুষ এখনও ভুলে যায়নি। পিকেটিং-এর নামে মানুষ হত্যা, অগ্নিসংযোগ তো ছিলই। পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে পারেনি, জীবনের প্রথম গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষাটিও দিয়েছে অনিশ্চয়তার মধ্যে। মুমূর্ষ রোগী সময় মত হাসপাতালে যেতে না পেরে অকালে মারা গেছেন। দিনমজুর কাজ করতে না পারায় ঘরে চুলা জ্বলেনি। কৃষি উপকরণ সময় মত না পেয়ে অনেক কৃষক তার জমিতে প্রত্যাশিত ফসল ফলাতে পারেননি। এমনই অনেক ভোগাšিত্মর শিকার হয়েছেন এদেশের সাধারণ মানুষ। কিন্তু কখনও জনসভা, কখনও সংবাদ সম্মেলন আবার কখনও ভিডিও বার্তার মাধ্যমে আন্দোলনের ঘোষণা দিয়ে জনগণকে অনিশ্চয়তার মধ্যে ঠেলে দিয়ে বিএনপি নেতা-কর্মীরা মাঠে থাকেননি। ওই আন্দোলনের ফল শুণ্য।

দলীয় নেতা-কর্মীদের অংশ গ্রহণ এবং জনগণের সম্পৃক্ততা ছাড়া কোন কিছুই যে সফল হয় না তার এক জলšত্ম উদাহরণ বিএনপি’র সাম্প্রতিক আন্দোলন। ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন পরবর্তি বিএনপি দু’একটি সংবাদ সম্মেলন আর সেমিনার ছাড়া প্রকাশ্য কোন কর্মকাণ্ডে নেই। সেই বিএনপি ঘরে বসে থাকবে আর জনগণ উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের স্বতঃস্ফুর্তভাবে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন এমনটা ভাবা কতটা যুক্তিযুক্ত তা বিশ্লেষণ করে দেখা দরকার বিএনপি’র নীতিনির্ধারকদের।

এ জাতীয় আরও খবর

দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মিসরে গির্জায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৪১

ফাঁস হওয়া গোপন ভিডিও নিয়ে যা বললেন অঞ্জলি

‘বালুখেকো’ সেলিমকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

পাখির আঘাতে বিকল লন্ডনগামী বিমানের ফ্লাইট

বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়েতে বাসের ধাক্কায় নিহত ২

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত বুয়েট শিক্ষার্থীরা

বুয়েটের আন্দোলনকারীরা শিবির: জয়

অনুশীলনে গুলিবিদ্ধ বিজিবি সদস্যের মৃত্যু

সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ বিষয়ে করা রিট খারিজ

বঙ্গবন্ধু হত্যার বড় সুবিধাভোগী জিয়া ও তার পরিবার : তথ্যমন্ত্রী

আপনারা সবাই আমারে খায়া ফেললেন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী