রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রাজধানী ঘিরে গ্যাস-নৈরাজ্য

52ffca5ba6c94-20রাজধানী ঢাকার চারপাশে গ্যাস নিয়ে নৈরাজ্য চলছে। ২০ থেকে এক লাখ টাকার বিনিময়ে অবৈধ গ্যাস-সংযোগ দেওয়া হচ্ছে। এই প্রক্রিয়ায় প্রায় কয়েক শ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মী, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও তিতাস গ্যাসের এক শ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ঠিকাদারেরা।

বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ করপোরেশন (পেট্রোবাংলা) গত বছর আবাসিক খাতে নতুন সংযোগ প্রদান এবং অবৈধ সংযোগ বৈধকরণের ঘোষণা দেয়। তার পরই শুরু হয় এই নৈরাজ্য।

রাজধানীর পূর্ব থেকে বৃত্তাকারে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ ও রূপগঞ্জ উপজেলা, গাজীপুর, টঙ্গী, ঢাকার ধামরাই, আশুলিয়া, সাভার, কেরানীগঞ্জ ও কামরাঙ্গীরচরের বিভিন্ন গ্রামে আবাসিক ও শিল্পকারখানায় অবৈধ গ্যাস-সংযোগ দেওয়া হচ্ছে। এর ঢেউ লেগেছে মানিকগঞ্জের বিভিন্ন গ্রাম ও টাঙ্গাইলের মির্জাপুরেও। 

সাভারের ভাকুর্তা ইউনিয়নে ২০১৩ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর এমন অবৈধ সংযোগ বসানো লাইনের উদ্বোধন করেছিলেন সাবেক আইন প্রতিমন্ত্রী ও বর্তমানে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। তিনি ওই এলাকার সাংসদ। ভাকুর্তা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মন্ত্রীর সঙ্গে ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। 

জানতে চাইলে কামরুল ইসলাম গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘না, অবৈধ সংযোগ নয়, আমরা বৈধ সংযোগের লাইন উদ্বোধন করেছি। এ বিষয়ে তিতাসের সাথে কথাবার্তা চলছে। আর উদ্বোধনের দিন তিতাসের কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।’ 

সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোতে প্রথম আলোর অনুসন্ধানে প্রায় ১৫০ কিলোমিটার অবৈধ বিতরণ লাইন এবং প্রায় এক লাখ অবৈধ সংযোগের তথ্য পাওয়া গেছে। এ অবৈধ কাজ দিন দিন আরও বিস্তৃত হচ্ছে।

তবে পেট্রোবাংলা এবং তিতাস গ্যাস সঞ্চালন ও বিতরণ কোম্পানি ২০০ কিলোমিটার অবৈধ লাইন ও তিন লাখ অবৈধ সংযোগ আছে বলে এর আগে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিল। তাদের এই হিসাবে ঢাকা শহরও অন্তর্ভুক্ত আছে। 

দিনদুপুরে সরকারি রাস্তাঘাট কেটে, বাড়ি, গাছপালার ওপর দিয়ে পাইপ টেনে লাখ লাখ অবৈধ সংযোগ দেওয়া হলেও এর বিরুদ্ধে শক্ত কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। আমলে নেওয়া হচ্ছে না জননিরাপত্তার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কেও। বরং সাভার ও আশুলিয়ায় কয়েকজন গ্রাহকের বিরুদ্ধে মামলার তথ্য পাওয়া গেছে। কিন্তু অবৈধ সংযোগ প্রদানকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা দৃশ্যমান নয়।

অবৈধ লাইন ও সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে আজ থেকে অভিযান শুরু করা হবে বলে জানা গেছে। যেখানে যেদিন স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তা পাওয়া 

যাবে, সেখানে সেদিন অভিযান চলবে। 

জ্বালানিসচিব মো. মোজাম্মেল হক খানের সভাপতিত্বে ১০ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত তিতাস গ্যাস সঞ্চালন ও বিতরণ কোম্পানির পরিচালনা পরিষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেদিন থেকে গতকাল পর্যন্ত অবৈধ লাইন স্থাপনকারী ও সংযোগ গ্রহণকারীদের সময় দেওয়া হয়েছিল নিজেদের উদ্যোগে সেগুলো বিচ্ছিন্ন করার।

এই আহ্বানে মাত্র একজন গ্রাহক সাড়া দিয়েছেন। তিতাসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নওশাদ ইসলাম বলেন, গাজীপুরের জয়দেবপুর এলাকার এক ব্যক্তি অবৈধভাবে স্থাপন করা প্রায় ৪০ মিটার পাইপ তুলে তাঁদের স্থানীয় কার্যালয়ে জমা দিয়ে গেছেন।

নওশাদ ইসলাম জানান, এ পর্যন্ত ২০টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। গত এক সপ্তাহে মানিকগঞ্জের দুজন ও নারায়ণগঞ্জের একজন কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

প্রথম আলোর অনুসন্ধানে জানা গেছে, কোনো কোনো এলাকার সাবেক ও বর্তমান সাংসদও এই অবৈধ কাজের সঙ্গে যুক্ত। এ কারণে ওই সব লাইন তুলে ফেলা কিংবা সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার সাহস পাচ্ছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

অবৈধভাবে বসানো এসব লাইনের কারণে শুধু যে গ্যাস চুরি হচ্ছে, তা নয়, গ্যাস বিতরণব্যবস্থাও ভয়ানক বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটে মানুষের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে বলে তিতাসের পক্ষ থেকে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়েও বলা হয়েছে। তার পরও অবস্থার কোনো পরিবর্তন হচ্ছে না।