রবিবার, ১৪ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

টেনিসের ‘লাভ’, ‘রোমান্সে’র টেনিস

লাভ বলতে কমবেশি সবাই ভালোবাসা কথাটি বুঝলেও সব‘লাভ’ মানে ভালোবাসা নয়।এই যেমন টেনিস খেলাটিতেই লাভ শব্দটিকে বেরসিকের মতো ব্যবহার করা হয় শূন্যর পরিভাষা হিসেবে।তবে পরিভাষা যতই বেরসিক হোক না কেন টেনিস খেলোয়াড়েরা কিন্তু মোটেই বেরসিক নন।উল্টোটাই বরং বেশি দেখা যায়।টেনিস খেলোয়াড়েরা ভালোবাসার কোর্টে অনেক সময়ই‘মিক্সড ডাবলসে’র অন্য রকম এক জুটি বাঁধেন।

টেনিস খেলোয়াড়দের মধ্যে ভালোবেসে আলোচিতদের মধ্যে আছেন আশির দশকের সু বার্কার থেকে শুরু করে আছেন হালের শারাপোভারা, আছেন রজার ফেদেরাররা থেকে শুরু করে ফার্নান্দো ভারদাসকোরা, আছেন ভূরি ভূরি গ্র্যান্ড স্লামজয়ী স্টেফি গ্রাফ থেকে শুরু করে কোনো গ্র্যান্ড স্লাম না যেতা আনা কুর্নিকোভাও।

আন্দ্রে আগাসি ও স্টেফি গ্রাফআন্দ্রে আগাসি-স্টেফি গ্রাফ

অভিনেত্রী ব্রুক শিল্ডের সঙ্গে বছর তিনেকের বিবাহিত জীবনের পাট চুকিয়ে ১৯৯৯ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেন খেলতে গিয়েছিলেন আগাসি।আর স্টেফি সেবার ফ্রেঞ্চ ওপেন খেলতে এসেছিলেন কার রেসার মাইকেল বার্টেলের সঙ্গে সাত বছরের দীর্ঘ সম্পর্ক চুকিয়েই।শোককে শক্তিতে পরিণত করেই যেন পুরুষ এককে আগাসি ও মহিলা এককে স্টেফিই জিতে নেন শিরোপা!



চ্যাম্পিয়নস বলে দুজনের একসঙ্গে নাচ দিয়েই শুরু দুজনের একসঙ্গে পথচলার।তাঁদের প্রথম সন্তান জাডেন গিলের জন্মের মাত্র চার দিন আগে ২০০১ সালের ২২ অক্টোবর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয় এই জুটি।৩০টি একক গ্র্যান্ড স্লাম এবং দুটি অলিম্পিক স্বর্ণ পদক জেতা এই যুগলের কোর্টের বাইরেও বিগত এক যুগের সফল সংসার।

জিমি কনোর্স ও ক্রিস এভার্টজিমি কনোর্স-ক্রিস এভার্ট

আগাসি-গ্রাফের মতোই গল্পের শুরুটা।বরং আগাসি-গ্রাফের সিকি শতাব্দী আগে জিমি কনোর্স ও ক্রিস এভার্টই জন্ম দিয়েছিলেন গল্পটার।১৯৭৪ সালের উইম্বলডনের পুরুষ এবং মহিলা একক জিতে নেন কনোর্স ও ক্রিস এভার্ট।চেনা পরিচয় এবং প্রণয় ছিল এক বছর আগে থেকেই।



সত্তরের দশকে এই দুই শীর্ষ টেনিস তারকার প্রণয় ছুঁয়ে গিয়েছিল আপামর আমেরিকানের হূদয়।১৯৭৩ সালে আংটিবদল করে ১৯৭৪-এর ৮ নভেম্বর বিয়ের দিন ঠিক করেছিলেন তাঁরা।কিন্তু সেই পরিকল্পনা আর কখনোই বাস্তবতার মুখ দেখেনি।পরে আরও একবার আংটিবদল করলেও ১৯৭৬ সালে চিরতরে দূরে সরে যান একে অন্যের কাছ থেকে।

লেটন হিউয়িট ও কিম ক্লাইস্টার্সলেটন হিউয়িট-কিম ক্লাইস্টার্স

সকাল দেখেই সব সময় দিনের অবস্থা বোঝা যায় না।বিশেষ করে বিখ্যাত লোকজনের ভালোবাসার ক্ষেত্রে।প্রায় প্রতিটা বড় ম্যাচেই একজনের খেলা থাকলে আরেকজনের সক্রিয় উপস্থিতি দেখে মনে হয়েছিল এই ভালোবাসা ক্ষণিকের নয়।বিশেষত ২০০৩ সালে সিডনি বন্দরে নৌবিহারের পর এই ধারণা আরও বদ্ধমূল হয়েছিল।ওই বছর আংটিও বদল করেছিলেন।কিন্তু এই সম্পর্ক ভেঙে যায় ২০০৪ সালে।শোনা যায়, সব ব্যাপারে হিউয়িটের বাবা-মায়ের উপস্থিতিই এই সম্পর্ক অবসানে বড় ভূমিকা পালন করে।



২০০০ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলতে গিয়েই বেলজিয়ান ক্লাইস্টার্সের পরিচয় অস্ট্রেলিয়ান হিউয়িটের সঙ্গে।২০০৩-এ আংটিও বদল করেন তাঁরা।কিন্তু শেষ পর্যন্ত ক্লাইস্টার্স বিয়ে করেন বাস্কেটবল তারকা ব্রায়ান লিঞ্চকে এবং হিওয়িট অস্ট্রেলীয় অভিনেত্রী বেক কার্টরাইটকে।

রজার ফেদেরার ও মিরকা ভাভরিনেচরজার ফেদেরার-মিরকা ভাভরিনেচ

কোর্টে রজার ফেদেরারের খেলা মানেই অবধারিতভাবে দর্শক সারিতে একটা কোমল মুখের ওপর বারবার ক্যামেরা ফেরানো।২০০০ সালের সিডনি অলিম্পিকের অলিম্পিক ভিলেজে এই দুই সুইস টেনিস খেলোয়াড়ের পরিচয় ও প্রণয়।সেই থেকে তাঁরা আজও আছেন একসঙ্গেই।আকিলিস ইনজুরির কারণে ২০০২ সালে অল্পদিনেই ক্যারিয়ারের ইতি টানতে বাধ্য হন মিরকা।



শুধু ইনজুরি নয়, ফেদেরারের ক্যারিয়ারের স্বার্থেই নিজের ক্যারিয়ার জলাঞ্জলি দিয়েছিলেন মিরকা।২০০৯ সালের ১১ এপ্রিল বিয়ে করেন ফেদেরার-মিরকা।মাস তিনেক পর জন্ম নেয় তাঁদের যমজ প্রথম সন্তান রিভা ও রোজ।

আনা কুর্নিকোভা ও এনরিক ইগলেসিয়াসআনা কুর্নিকোভা-এনরিক ইগলেসিয়াস

‘অংশগ্রহণটাই বড় কথা’ এই আপ্তবাক্যটিকে একেবারে কাগজে-কলমে প্রমাণ করে ছেড়েছেন আনা কুর্নিকোভা।কোনো গ্র্যান্ড স্লাম না জিতলেও মাতামাতির কোনো কমতি ছিল না এই রুশ গ্ল্যামার গার্লকে নিয়ে।স্বল্প সময়ের কিছু খুচরো প্রেম করলেও কুর্নিকোভা ২০০১ সাল থেকে স্প্যানিশ-আমেরিকান গায়ক-গীতিকার, অভিনেতা এনরিকের সঙ্গে সম্পর্কের পর কিছুটা স্থির হয়েছিলেন।



এনরিকের মিউজিক ভিডিও‘এসকেপ’-এ দুজনের উপস্থিতি বিনোদন জগতে ঝড় তুলেছিল।প্রায় ১২ বছর একসঙ্গে থাকার পর গত বছরের অক্টোবরে তাঁরা আলাদা হয়ে যান।তাঁদের সম্পর্কটা বিয়ে পর্যন্ত গড়িয়েছিল কি না, এ নিয়ে বেশ গুঞ্জনও আছে।

মারিয়া শারাপোভা-গ্রিগর দিমিত্রভ

মারিয়া শারাপোভার হাতের আংটি নিয়ে মিডিয়ায় গুঞ্জন কম হয়নি।স্লোভানিয়ান বাস্কেটবল খেলোয়াড় সাশা ভুয়াচিচের সঙ্গে সম্পর্কের পরিণতিকে মনে হচ্ছিল কেবল সময়ের ব্যাপার।২০০৯ সাল থেকে সম্পর্ককে ২০১০ সালে বাগদানের ঘোষণার মাধ্যমে আরও দৃঢ় করেন তাঁরা।তবে ২০১২-এর আগস্টে শারাপোভা নিশ্চিত করেন তাঁদের বিয়েটা আর হচ্ছে না।সে বছরেই দুজন আলাদা হয়ে যান।শারাপোভা এখন প্রেম করছেন আরেক টেনিস খেলোয়াড় গ্রিগর দিমিত্রভের সঙ্গে।বয়সে দিমিত্রভ শারাপোভার চেয়ে চার বছরের ছোট হলেও সেটি তাঁদের প্রেমে বাধা হয়নি।

এবং অন্যান্য

সানিয়া মির্জা, আনা ইভানোভিচ, ক্যারোলিন ওজনিয়াকিরাও কোর্টের বাইরের এই লাভ ম্যাচে খুব একটা খারাপ করছেন না।২০১০-এ অস্ট্রেলিয়ান গলফার অ্যাডাম স্কটের সঙ্গে খণ্ডকালীন প্রণয় ছিল ইভানোভিচের।পরের বছর সেই ভাঙা প্রেম আবার জোড়া লাগলেও টেকেনি এক বছরের বেশি।

এ বছর ১ জানুয়ারি আইরিশ গলফার ররি ম্যাকইলরয়ের সঙ্গে বাগদানের ঘোষণা দেন ডেনিশ তারকা ওজনিয়াকি।বাল্যবন্ধু সোহরাব মির্জার সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্কের মধুর সমাপ্তি টানতে ২০০৯ সালে বাগদান হয় সানিয়া মির্জার।কিন্তু অনেক জল ঘোলা করার পর ২০১০-এর ১২ এপ্রিল পাকিস্তানি ক্রিকেটার শোয়েব মালিকের সঙ্গে ঘর বাঁধেন সানিয়া।সানিয়াকে বিয়ের আগে অন্য একটি মেয়ের সঙ্গে মালিকের কথিত বিয়ে নিয়েও কম আলোচনা হয়নি।

টেনিস তারকাদের সম্পর্কেও অনেক টানাপোড়েন দেখা যাচ্ছে।তবে রূপকথার গল্পের শেষটার মতোই আপাতত তাঁরা ‘অবশেষে সুখে-শান্তিতে বসবাস করিতে লাগিলেন…।’

এ জাতীয় আরও খবর

এক মাসের আগে কমছে না জ্বালানি তেলের দাম, ইঙ্গিত প্রতিমন্ত্রীর

গোপন ছবি দিয়ে সাবেক স্ত্রীকে ‘ব্ল্যাকমেইল করছেন’ হিরো আলম

স্বামীকে খুশি করতে ‘রক্ষিতা’ আনলেন স্ত্রী!

ডিমের হালি ৭০ টাকা!

বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজতে কমিশনের রূপরেখা প্রস্তুত : আইনমন্ত্রী

সিসিএর গবেষণা : নারীরা বেশি পর্নোগ্রাফির শিকার, পুরুষেরা হ্যাকিংয়ের

পুলিশের গাড়িতে তেল বরাদ্দ কমেছে

ক্ষমতায় গেলে কুইক রেন্টাল ও বিদ্যুৎ খাতে আইন বাতিল করবে বিএনপি

হলিউড অভিনেত্রী অ্যান হেচে আর নেই

কাজের কথা বলে ভাড়া বাসায় নিয়ে ধর্ষণ, খুবি শিক্ষার্থী কারাগারে

‘পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশবাসীর কাছে কৌতুক অভিনেতায় পরিণত হয়েছেন’

স্বামীকে খুশি করতে ‘রক্ষিতা’ আনলেন স্ত্রী!