শনিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আন্তর্জাতিক চাপে এপ্রিলে ঘোষণা, ডিসেম্বরে নির্বাচন

Hasina.........প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চলতি বছরের আগামী এপ্রিলের মধ্যেই জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য সময় ঘোষণা করার জন্য চাপ দেয়া হচ্ছে। সেই অনুযায়ী চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই আরো একটি জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠান করার জন্য বলা হচ্ছে। এই জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিতে আন্তর্জাতিক মহলের বিভিন্ন শক্তিগুলো চাপ তৈরি করছে। সরকার যাতে তা করে এই জন্য এখন সময় দেয়া হয়েছে। এপ্রিলের পর থেকে তারা আর সময় দিতে চাইছে না। সেই হিসাবে তৎপরতাও চলছে। সম্প্রতি মার্কিন রাষ্টদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা দ্রুত সংলাপ ও দ্রুত সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচনের কথা বলছেন। বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন। নিজেদের অবস্থান তুলে ধরেছেন। অন্য দিকে সংবাদ সম্মেলন করেও জনগণের কাছে মার্কিন সরকারের মনোভাব প্রকাশ করেছেন। এরপর দিন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। সেটা করার পর দিনই মার্কিন সিনেটে বাংলাদেশের প্রসঙ্গ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তারা ধারাবাহিকভাবে এই আলোচনা করে যাচ্ছে। আর সরকারের উপর চাপ বাড়াচ্ছে।

সূত্র জানায়, আন্তর্জাতিক মহলের চাপ প্রতিনয়ত বাড়ায় সরকার ভেতরে ভেতরে আগাম নির্বাচনের জ্বরে কাবু কিন্তু তা প্রকাশ করছে না। ভেতরে ভেতরে সরকার নির্বাচনের জন্য কেমন করে কি করা হবে সেই ভাবে প্রস্তুতিও নিচ্ছে। এরজন্য সরকার ঠিক করেছি তারা ভেতরে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতির কথা ভাবলেও উপরে উপরে পাঁচ বছর মেয়াদ পূরণ করার কথাই বলাবেন বিভিন্ন মন্ত্রীদের দিয়ে। বোঝানোর চেষ্টা করছেন সরকারের শক্ত অবস্থানের কথা। যাতে করে বিএনপির মনোবল ভেঙ্গে যায়। এই মনোবল ভাঙ্গার জন্য চেষ্টা করছেন প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে সরকারের মন্ত্রীরা। তারা বিএনপিকে রাজনৈতিকভাবে আরো দুর্বল করে দিতে চাইছে। যাতে করে আগাম নির্বাচন হলেও বিএনপি ক্ষমতায় আসতে না পারে। তাদের পাশে জনগণ না থাকে এবং আওয়ামী লীগই আবারও নানা কৌশল করেই সরকারে আসতে পারে। তাদের লক্ষ্য আগাম নির্বাচন হোক আর যাই হোক না কেন যেমন করেই হোক তারা ২০২১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকবেন। সেই হিসাবে অনেক অঙ্ক কষেই হাঁটছেন শেখ হাসিনা।

তবে সরকারকে সেই অংকের ফল সাধারণভাবে মেলাতে দিতে রাজি নন আন্তর্জাতিক মহল। এই অবস্থায় তারা ভেতরে ভেতরে সরকারেরর বিরুদ্ধে কাজ করে যাচ্ছে। সরকারকে দিয়ে কেমন করে নির্বাচন আবারও দেয়ানো যায় সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করার জন্য কাজ করছেন। এদিকে বিদেশিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা কথা বলছেন। তাদের সব কথা মানার ভাব দেখিয়ে হলেও সরকারের প্রতি সমর্থন বাড়াতে চাইছেন। আগাম নির্বাচন করার জন্য বলেছেন, সেটাও মেনে নিয়েছেন। তবে কবে করবেন তা বলছেন না।

এর আগে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে অনেকেই অনেক কথা বলেছেন। বলেছেন অনেক হিসাব কাগজে কলমে করা সম্ভব কিন্তু তা বাস্তবে তা সম্ভব নয়। শেখ হাসিনা ২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ সালের গোড়া পর্যন্ত প্রমাণ করেছেন তিনি যা চেয়েছেন বা চাইবেন এর সব হয়েছে। আগামী দিনেও হবে। যা করতে চেয়েছেন তাই  করতে পেরেছেন। বিএনপি যা চেয়েছে তার কিছুই দিবেন না ঠিক করেছিলেন সেটাতে পেরেছেন। গত ছয় বছরে শেখ হাসিনা একের পর এক বিজয়ের হাসি হাসছেন। বেগম খালেদা জিয়া বার বার পরাজয় মেনে নিয়েছেন। রাজনৈতিক চালে ভুল করেছেন।  ৫ জানুয়ারি জনগণ ভোটে দেয়নি। এটা তাদের বিজয় মনে করছেন।  তাহলেও বড় নেতাদের উপর ভরসা করতে পারছেন না। বিভিন্ন নেতার ব্যাপারে তার মনে সন্দেহ দানা বেঁেধছে। তারা সফল হতে পারেননি কোন আন্দোলন করে। তার ঘনিষ্ট একটি সূত্র জানায়, বিএনপির কাউন্সিল হবে। এই জন্য প্রস্তুতিও নেয়া হচ্ছে। আর কাউন্সিল করে নতুন নতুন ও সাহসী নেতাদের এবং বিশেষ করে গত এক বছরে যারা বিভিন্ন এলাকাতে আন্দোলন করে সফল হয়েছেন ওই সব নেতাদেরকে আগামী দিনের জন্য দাযিত্ব দিতে হবে। তা না দিলে হবে না।

আগামী দিনে বিএনপিকে নতুন করে আন্দোলন করতে হবে। সরকার আগাম নির্বাচন দিতে চাইছে। আন্তর্জাতিক প্রভাবশালী শক্তিগুলো যখন আওয়ামী লীগের সঙ্গে কথা বলছে তখন তারা তাদেরকে এটাই বলেই আশ্বস্ত করছেন যে তারা নির্বাচন দিতে চান। বিএনপিকে শর্ত মেনেই আলোচনায় আসতে হবে। তারাও চিন্তা করছে সরকারি দল যেটা বলছে সেটাতে যুক্তি আছে। এই কারণে তারাও জামায়াতকে ছাড়ার কথা বলছে বিএনপিকে। কিন্তু বিএনপি চেয়ারপারসন তাদেরকে ছাড়তে রাজি নয়। এই কারণে সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসার জন্য যে উদ্যোগ নেয়া দরকার তা নিতে পারছেন না। সরকারও এমন এক কৌশল করে দিয়েছে যে যাতে করে সংলাপ দ্রুত করতে না হয়। আওয়ামী লীগ এই ক্ষেত্রে ড্রাবল রোল প্লে করছে। বিএনপি সেটা বুঝলেও তারা কোন ড্রাবল রোল প্লে করতে পারছে না। কেবল সরকারের সঙ্গে আলোচনা করার আগ্রহ প্রকাশ করছে। সরকারকে তাদের সঙ্গে সংলাপে ও আলোচনায় বসার জন্য কোন ধরনের চাপ তৈরি করতে পারছেন না। সরকার তাদেরকে আন্দোলন করতে দিবে না সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সরকার এতে সফলও হচ্ছে।

 

বিদেশিদের চাপ অনুযায়ী সরকার কারাগারে আটক নেতাদের ছেড়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে। তারা ওই সব প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক শক্তিকে দেখাতে চাইছে যে তারা তাদের কথা মেনে বিএনপির নেতাদেরকে ছেড়ে দেয়ার জন্য সব ব্যবস্থা করেছে। এটাও তাদের একটি কৌশল।

এদিকে সরকারের একজন প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিএনপি আন্দোলন করুক মিছিল মিটিং করুক। কিন্তু তাদেরকে কোন ভাবেই এটাতে সফল হতে দেয়া যাবে না যে তারা সরকারকে হটানোর জন্য আন্দোলন করে দেশের পরিস্থিতি অশান্ত করবে। এটা কোন ভাবেই আমরা মানবো না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কাজে লাগানো ছাড়াও আমরা তাদের সংখ্যা আরো বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সরকার এক দিকে বিএনপির সঙ্গে আলোচনার কথা বলছে অন্য দিকে আবার নতুন করে বিএনপির সব ধরনের আন্দোলন ঠেকানোর জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। এই অবস্থায় বিএনপিকে একটি বড় সমাবেশ করতে দিলেও এখন আর সেইভাবে সমাবেশ করার জন্যও সুযোগ দিতে চাইছে না। সব মিলিয়ে বিএনপি কোনঠাসা অবস্থায় রয়েছে। সরকার সেটা রেখেই যাতে করে বিএনপি জনগনকে পাশে টানতে না পারে সেই অবস্থায় রেখেই বিএনপি সঙ্গে আলোচনা করে একটি সমঝোতা করে নির্বাচন দিতে চাইছেন। সমঝোতাটাও করবে সরকার এমনভবে যাতে করে বিএনপি মানলে মানতে পারে না মানলেও বিএনপিরই ক্ষতি সরকারের কোন ক্ষতি নেই। এই রকম একটি পরিকল্পনা চলছে।

সূত্র জানায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অষ্ট্রেলিয়া, জার্মান, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জাপান, চীন, ইংল্যান্ড এরা সবাই আগাম নির্বাচন চাইছে। এর আগে তারা সব দলের অংশহগ্রহণে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চেয়েছে। আর এই নির্বাচন চাইলেও সরকার তা করেনি। এমনকি জাতিসংঘের সহকারি সেক্রেটারি জেনারেল অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো বাংলাদেশে এসে দুই দলকে রাজনৈতিক আলোচনার টেবিলে বসালেও শেষ পর্যন্ত সাফল্য আসেনি। তারানাকো চলে যাওযার পর তারা একটি বৈঠকে বসে সফল আলোচনা করবে এমন প্রত্যাশা করলেও তা হয়নি। সরকার নিয়ম রক্ষার নির্বাচনের কথা বলে ক্ষমতাসীন হয়ে একেবারেই বসে গেছেন। এখন আর সমঝোতা করার কোন ইচ্ছে নেই। তবে বিদেশিদের কাছে এটাই বোঝানার চেষ্টা করেছেন তারা নির্বাচন না করলে সমস্যা হতো। আর সেই সঙ্গে এটাও  গণতন্ত্রের জন্যও সমস্যা হতো। এই ব্যাপারে আন্তর্জাতিক শক্তিগুলো কোন ছাড় দিতে রাজি নয় তাদের কথা একটাই নির্বাচন হতেই হবে। এর কোন বিকল্প নেই। বাংলাদেশে তারা এক দলীয় নয় কিংবা সরকারের ইচ্ছে মাফিক বিরোধী দল নয় তারা শক্তিশালী ও বড় সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন দেখতে চাইছে। সেটাই যাতে করে সেই ব্যাপারে কাজ করছে। এখন তারা প্রকাশ্যে ততোটা তা না করলেও ভেতরে ভেতরে বিভিন্নভাবে সরকারের উপর চাপ তৈরির চেষ্টা করছে। সরকারের সঙ্গে তাদের আলোচনাও হয়েছে। এই আলোচনার প্রেক্ষিতে তারা বলেছে এপ্রিল পর্যন্ত সময় দিতে। এপ্রিলে সরকার ঘোষণা করবে কবে তারা নির্বাচন করবে। সেই নির্বাচন এই বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে হবে এমন কথাও তাদেরকে জানানো হয়েছে। তবে এই কথায় বিদেশিরা এখন একটু শান্ত থাকলেও ও দৌঁড়ঝাপ কম করলেও তারা পুরো বিষয়টি মনিটরিং করছে। কখন কি করতে হবে সেটাও ঠিক করছে। সেই হিসাবে সরকার ভীষণ চাপের মধ্যে রয়েছে। আগাম নির্বাচন না করলে কি হবে সেই ব্যাপারেও সরকারকে সতর্ক করে দিয়েছে ওই সব শক্তিগুলো। ফলে ভেতরে অনেক টানা পোড়েন চললেও এটা প্রকাশ করা হচ্ছে না সরকারের তরফ থেকে। সরকার শক্ত অবস্থানই রাখতে চাইছে। সেই ভাবে কাজ করছে।

এদিকে এখন সরকারের উপর চাপ সৃৃষ্টি করা বিএনপির একটি বড় কাজ। সরকারের একজন মন্ত্রী বলেন, বিদেশিরা যতই সরকারকে চাপে রাখুক বিএনপি সেই ধরনের চাপ তৈরি করতে না পারলে সরকারতো আগাম নির্বাচনের দিকে যাবে না। এখন বিএনপি কতখানি সরকারের উপর চাপ তৈরি করতে পারে এবং তা করার জন্য কি করতে পারে সেই জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে। সেটাই দেখার বিষয়।