মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিচারবহির্ভূত হত্যার বিরুদ্ধে মামলা হলে ব্যবস্থা নেবে সরকার : আইনমন্ত্রী

Anis-2বাংলাদেশের আইন ও বিচারমন্ত্রী আনিসুল হক বিবিসিকে বলেছেন, বিচার বহির্ভূত হত্যাকা-ের কোন অভিযোগ নিয়ে মামলা হলে সরকার অবশ্যই তা তদšত্ম করে ব্যবস্থা নিবে। তিনি বলেন, সরকার কখনোই এ ধরনের হত্যাকা- অনুমোদন করে না, করবেও না। বাংলাদেশে বিশেষ করে ৫ই জানুয়ারির পর থেকে বিরোধী জোটের পক্ষ থেকে বিচার বহির্ভূূত হত্যাকা-ের বিভিন্ন অভিযোগ তোলা হচ্ছে। গত সপ্তাহেও বিরোধী দল বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন একমাসে তাদের দেড়শ’র বেশি নেতাকর্মী হয় হত্যা না হয় গুমের শিকার হয়েছেন। যদিও একটি ইংরেজী দৈনিক নিজেরা অনুসন্ধান করে বলছে যে আসল সংখ্যা অনেক কম। তবে দেশের শীর্ষ স্থানীয় মানবাধিকার সংস্থা আইন ও শালিস কেন্দ্রের পরিসংখ্যান উল্লেখ করে দেশের শীর্ষ একটি বাংলা দৈনিক রিপোর্ট করেছে ১লা জানুয়ারি থেকে ৯ ই ফেব্রুয়ারি পর্যšত্ম ৪১ দিনে ৪৪ জন বিচার বহির্ভূত হত্যাকা-ের শিকার হয়েছেন বাংলাদেশে।

বিচারবহির্ভূত হত্যাকা- নিয়ে সরকারের বক্তব্য কি এ নিয়ে বৃটেন সফররত বাংলাদেশের আইন ও বিচারমন্ত্রী আনিসুল হক বিবিসি বাংলা রেডিওকে দেয়া এক সাক্ষাত বলেন, প্রথম থেকেই বিচার বহির্ভূত হত্যাকা- আমরা গ্রহণ করে নি এবং করবোও না। আমাদের বক্তব্য পরিস্কার যে, বিচার বহির্ভূত হত্যাকা-ের যদি কোন অভিযোগ আমরা পাই এবং তদšত্ম করে যদি দেখা যায় বিচার বহির্ভূত হত্যা হয়েছে সেই ক্ষেত্রে যারা এটা করেছেন তাদেরকে শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করবো।

বিচার বহির্ভূত হত্যাকা- আপনারা গ্রহণ করবেন না তার অর্থ কি? এই ধরনের হত্যাকান্ড হচ্ছে কি হচ্ছে না ? এমন প্রশ্নের উত্তরে আইনমন্ত্রী বলেন, দুইভাবে এটাকে দেখা হবে। এই যে বিচার বহির্ভূত হত্যার কথা বলা হচ্ছে এইসব্ হত্যায় ভিক্টম কারা । দেখা গেছে বেশিরভাগ সময় ভিক্টিম হচ্ছে অপরাধীরা। যেজন্য আমি তদšেত্মর কথা বললাম। এমনও হতে পারে যে, তারা যখন বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তখন শত্রুপক্ষ তাদেরকে মারার পরে এই দোষটা সম্পূর্ণ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপর দেয়ার চেষ্টা করছে। আরেকটা হচ্ছে এখন বলা হয়, ক্রস ফায়ার। কিন্তু আসলে এনকাউন্টারে এরকম মারা যায়। অত্যšত্ম হিংস্র সন্ত্রাসীদের যখন ধরার চেষ্টা করা হয় তখন তারা চেষ্টা করেন পালিয়ে যাওয়ার এবং তখন তারা তাদের কাছে যে অবৈধ অস্ত্র থাকে সেটা ব্যবহার করেন। তখন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর গুলি করা ছাড়া অন্যকোন গত্যšত্মর থাকে না ।

ব্যাখ্যাটা কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ বহু আগে থেকেই শুনছে। এই সরকারের আমলে না, আগের সরকার বা তার আগের সরকার যখনই কিছু হয় তখনই ব্যাখ্যা দেয়া হয় সরকারের পক্ষ থেকে এবং নিরাপত্তা বাহিনীর পক্ষ থেকে। মানুষ কিন্তু এসম¯ত্ম ব্যখ্যাগুলো আর বিশ্বাস করছে না।

বিবিসির এ প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, কথা হচ্ছে যেটা ফ্যাক্ট সেটা বিশ্বাস না করলেও ফ্যাক্ট, বিশ্বাস করলেও ফ্যাক্ট। কিন্তু আমরা যে যেটা মনে করি যে, এর বাইরেও এইসব হত্যাকা- হয়ে গেলেও কিন্তু যেই আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এটার জন্য দায়ি তার কাছ থেকে কিন্তু সংশ্লিষ্ট বিভাগ থেকে এ ব্যাপারে কৈফিয়ত চাওয়া হচ্ছে যে এটা কেন হলো এবং এটাকে তার ব্যর্থতা হিসেবেই দেখা হয়।

আজকেই বাংলাদেশের একটি শীর্ষ বাংলা দৈনিকে একটি খবর বেরিয়েছে, সেখানে একটা পরিসংখ্যান দেয়া হয়েছে, যেখানে ১ লা জানুয়ারী থেকে ১০ই ফেব্রুয়ারি পর্যšত্ম ৪১ দিনে ৪৪ জন মারা গেছে এবং এগুলোকে তারা বলছে বিচার বহির্ভূত হত্যাকা- এবং এই হিসাবটা তারা দিচ্ছে বাংলাদেশের একটি শীর্ষ মানবাধিকার সংস্থা আ্ইন ও শালিস কেন্দ্রের রিপোর্টের ভিত্তিতে। জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, খবরের কাগজে খবর প্রকাশ হওয়া এখানেই যদি এটার সমাপ্তি হয় তাহলে আমি কিন্তু এটাকে বিচার বহির্ভূত হত্যাকা- বলে মেনে নিতে রাজি না। আমার কথা হচ্ছে বাংলাদেশে আইনের শাসন আছে, বাংলাদেশের একটা আইন আছে। আমি বলবো যারা এই রিপোর্টগুলো বের করছেন তারা নিজেরা বাদি হয়ে মামলা করুক। আমরা তদšত্ম করতে রাজি আছি।

কিন্তু তারাও তো বলছে যখন আমরা কথাগুলো বলছি তখন সরকার তো নিজে থেকেই এগুলো তদšত্ম করতে পারে। এর উত্তরে আনিসুল হক বলেন, আমার কথা হচ্ছে এগুলো তদšত্ম করার জন্য আইনের আশ্রয় নিতে হবে। যারা মারা গেছেন হয় তাদের আত্মীয় স্বজন অথবা এই যে আইন ও শালিস কেন্দ্রের কথা বললেন বা এই যে পত্রিকার কথা বললেন, তারা বাদি হয়েও কিন্তু মামলা করতে পারেন। যেই মুহুর্তে মামলা হবে সেই মুহুর্তে কিন্তু এটা সরকারের দায়িত্ব হয়ে যাবে তদšত্ম করার। আমরা তো সেই তদšত্ম করার জন্য প্রস্তুত আছি।

কিন্তু এক্ষেত্রে কি সরকার নিজে তদšত্ম করতে পারে না ? জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, আইনজীবী হিসেবেই আমি কথাটা বললাম যে,এটা হচ্ছে আইনের পথ। আর সরকারের যে তদšত্মটা হবে সেটা হবে বিভাগীয় তদšত্ম। সেই ক্ষেত্রে বিভাগীয় তদšত্ম আমরা করছি কি করছি না সেটার ভিতরে না গিয়ে আমি বলছি ওনারা যেটা বলছেন তাতে আমাদের যে বিভাগীয় তদšত্ম হচ্ছে সেখানে এই মিলটা আমরা পাচ্ছি না।সেই কারণে আমি বার বার বলছি যে আইনের আশ্রয় নেন। আমরা তদšত্ম করতে প্রস্তুত।