বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অধিনায়কত্ব নিয়ে বিসিবির ‘খেলা’

52f7de2e4f1cf-Untitled-11শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দারুণ এক টেস্ট ড্রয়ের পর বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের থাকার কথা ফুরফুরে মেজাজে। কিন্তু সেটা হতে দিল না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডই (বিসিবি)। পরশু টেস্ট ড্রয়ের রাতে অধিনায়কত্ব নিয়ে অদ্ভুত এক সিদ্ধান্তে পুরো দলটাই উল্টো হয়ে পড়েছে এলোমেলো। টেস্ট ড্রয়ের ফুরফুরে মেজাজ নয়, দলের ভেতর এখন অস্বস্তির গুমোট হাওয়া।



ঘটনাটা পরশু রাতের। বিসিবি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানাল—শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক থাকবেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। সহ-অধিনায়ক তামিম ইকবালই। সিদ্ধান্তটা অদ্ভুত, কারণ এর আগে বোর্ড সভায় পুরো শ্রীলঙ্কা সিরিজের জন্যই মুশফিকুর রহিমের ডেপুটি করার সিদ্ধান্ত হয়েছিল তামিমকে। দুই টেস্টের সিরিজে তিনি তা ছিলেনও। 



আঙুলের চোটের কারণে মুশফিক টি-টোয়েন্টি দলে না থাকায় তাঁর অনুপস্থিতিতে এখানেও সহ-অধিনায়ক তামিমের কাঁধে আসার কথা দলের ভার। সেটা না করে তাঁকে সহ-অধিনায়ক পদেই রেখে দিয়ে নতুন করে কাউকে অধিনায়ক করে দেওয়াটা শুধু অবাক করা সিদ্ধান্তই নয়, এটি প্রশ্ন তুলেছে বিসিবির ক্রিকেটীয় চিন্তাভাবনার স্বচ্ছতা সম্পর্কেও। বোর্ড সভায় নেওয়া সিদ্ধান্ত গুটি কয়েক পরিচালকের ইচ্ছায় এভাবে উল্টে দেওয়া নজিরবিহীন। আর তামিমের যদি দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্যতা না-ই থাকে, তাহলে তাঁকে সহ-অধিনায়কই বা কেন করা হয়েছিল! সহ-অধিনায়কের কাজই তো অধিনায়কের অনুপস্থিতিতে দলকে নেতৃত্ব দেওয়া।



বিসিবির এই সিদ্ধান্তে তামিমের অপমানিত বোধ করার যৌক্তিক কারণ আছে। চুপচাপ এই ‘অপমান’ হজমও করেননি। পরশু রাতেই ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খানকে ই-মেইলে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি আর সহ-অধিনায়ক পদে থাকতে চান না। সিদ্ধান্তটা বোর্ডের আরও কয়েকজনকেও এসএমএসের মাধ্যমে জানান তামিম।

এ ব্যাপারে ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান টেলিফোনে বলেছেন, ‘সিঙ্গাপুরে থাকা বোর্ড সভাপতির সঙ্গে আমার ফোনে কথা হয়েছে। তিনি বলেছেন, কয়েকজন পরিচালকের সঙ্গে কথা বলে নাকি তাঁর মনে হয়েছে মাশরাফিকে অধিনায়ক ও তামিমকে সহ-অধিনায়ক করলে ভালো হবে। আমি যেন এটাই ঘোষণা করি। আমিও তাই করেছি।’

হঠাত্ করেই আবার অধিনায়ক! কিন্তু আনন্দের বদলে সেটি বিব্রতই করছে বেশি। কাল সকালে বাংলাদেশ দলের ঐচ্ছিক অনুশীলনে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ঢুকছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা,  প্রথম আলোতবে তামিমের পদত্যাগপত্র গৃহীত হয়নি বলে দাবি বিসিবির মিডিয়া কমিটির প্রধান জালাল ইউনুসের, ‘আমরা তার পদত্যাগ গ্রহণ করিনি। সিঙ্গাপুরে আইসিসির সভা শেষে আজ (কাল) রাতে বোর্ড সভাপতি দেশে ফিরবেন। তামিমের সঙ্গে কথা বলে তিনিই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।’



তামিম নিজে অবশ্য পদত্যাগের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে অধিনায়কত্বের প্রসঙ্গ টানেননি, ‘এই মুহূর্তে আমি পুরোপুরি ব্যাটিংয়ে মনোযোগী হতে চাই। আমি চাই না অন্য কিছু আমার পারফরম্যান্সে প্রভাব ফেলুক। সে জন্যই সহ-অধিনায়কের পদ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ নতুন অধিনায়ক মাশরাফি বিষয়টা নিয়ে কোনো মন্তব্যই করতে রাজি হননি। কাল দুপুরেই যে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে খেলোয়াড়দের কথা বলার ওপর ৪৮ ঘণ্টার নিষেধাজ্ঞা জারি করে দিয়েছেন কোচ শেন জার্গেনসেন!



তবে মাশরাফির ঘনিষ্ঠ সূত্রের তথ্য, এভাবে অধিনায়ক করায় তিনি নিজেও খুশি নন। সহ-অধিনায়ক তামিমকেই টি-টোয়েন্টি সিরিজে অধিনায়ক করার পক্ষে মত দিয়ে অধিনায়কের দায়িত্ব নিতে অনিচ্ছার কথাও জানিয়ে ছিলেন। মাশরাফির মতো কোচ শেন জার্গেনসেন ও নিয়মিত অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমও বোর্ডের চাপিয়ে দেওয়া সিদ্ধান্তে বিব্রত ও বিরক্ত বলে জানা গেছে। কিন্তু বোর্ডের গা-জোয়ারি নির্দেশ চুক্তিবদ্ধ খেলোয়াড় হিসেবে না মেনে উপায় ছিল না মাশরাফির। অনুরোধে ঢেঁকি গিলে তিনি নিজেও ভীষণ বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে গেছেন। তবে জানা গেছে, তামিমের সঙ্গে মাশরাফির বরাবরের ভালো সম্পর্কটা এখনো অটুট। পরশু রাতে তামিম যখন ই-মেইল ও এসএমএসে বোর্ডের লোকজনকে নিজের সিদ্ধান্তের কথা জানাচ্ছিলেন, হোটেল পেনিনসুলায় তখন তাঁর সঙ্গেই ছিলেন মাশরাফি।

বিসিবির অবিবেচনাপ্রসূত সিদ্ধান্তের প্রভাব যে দলের ওপর এর মধ্যেই পড়া শুরু করেছে, সেটার প্রমাণ সাংবাদিকদের সঙ্গে জার্গেনসেনের গতকালের দুর্ব্যবহার। প্রকাশ্যে যাঁকে কখনো উত্তেজিত হতে বলতে গেলে কেউ দেখেইনি, সেই জার্গেনসনের মেজাজ সকাল থেকেই তিরিক্ষি হয়ে ছিল। নিয়মিত অনুশীলন না থাকলেও সকালে মাশরাফি, তামিম, রুবেল, ফরহাদ ও সাব্বিরকে নিয়ে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে গিয়েছিলেন অনুশীলন করতে। স্বাগতিক দল হওয়ার সুবিধা নিয়ে মাঝ উইকেটে অনুশীলন করেছেন ক্রিকেটাররা। সিরিজ চলাকালে মাঝ উইকেটে এমন অনুশীলন প্রচলিত রীতি বিরুদ্ধ। স্বাভাবিকভাবেই ব্যাপারটা গোপন রাখতে চেয়েছিলেন কোচ। সাংবাদিকেরা স্টেডিয়াম গেটে ভিড় করলেও তাই মাঠে ঢোকার অনুমতি মেলেনি। তার পরও ‘গোপন প্র্যাকটিসে’র তথ্য গোপন না থাকার রাগ স্টেডিয়াম গেটে জড়ো হওয়া সাংবাদিকদের ঝাড়লেন জার্গেনসেন। স্টেডিয়াম ছেড়ে যাওয়ার সময় উত্তেজিত হয়ে বকাঝকা করতে থাকেন সাংবাদিকদের।

তামিম অবশ্য তার আগেই ফিরে যান হোটেলে। যাওয়ার সময় গম্ভীর চেহারায় যেন ফুটে উঠছিল ভেতরের আন্দোলনটা। তবে সাংবাদিকদের বললেন, ‘হঠাৎ করে ঘাড়ে টান পড়েছে। ব্যাটিংয়ের সময় একটা সুইপ শট খেলে পেছন ফেরার পরই ঘাড়টা লক হয়ে যায়। সে জন্য হোটেলে ফিরে যাচ্ছি।’

আশা করা হচ্ছে, তামিমের ঘাড়ের চোট তেমন গুরুতর নয়। তবে বিসিবির কাণ্ডজ্ঞানহীনতায় পাওয়া মনের চোটটা যে গুরুতরই, সেটা পদত্যাগের সিদ্ধান্তেই স্পষ্ট।