রবিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেড় বছর পর গ্রাহকের চেক ফেরত সরাইলের কালিকচ্ছ কৃষি ব্যাংকে

index_14554ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার কালিকচ্ছ কৃষি ব্যাংক শাখার তেলামতিতে অবাক হয়েছেন গ্রাহক পারভিন আক্তার। ব্যাংক কর্মকর্তাদের দায়িত্বহীন কর্মকান্ডে হতাশ হয়েছেন দুই সহস্রাধিক গ্রাহক। জমার দেড় বছর পর অযত্ন অবহেলায় পড়ে থাকা চেকটি উদ্ধার হয় গ্রাহকের তাগিদে। ততক্ষণে মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে চেকের। বরিবার সকালে সরাইলের কৃষি ব্যাংক কালিকচ্ছ শাখায় এ ঘটনা ঘটেছে। ভূক্তভোগী গ্রাহক ও ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালের ২০ সেপ্টেম্বর ১১’শ ৩২ টাকার একটি একাউন্ট পে চেক (নং- ১৫২১৪৫২) পারভীন আক্তার জমা দেন তার কালিকচ্ছ শাখার সঞ্চয়ী ৫৫১৭ নং হিসাবে। চেক প্রদানকারী শাহিনার সরাইল কৃষি ব্যাংক শাখার চলতি হিসাব নং-৩৮১ থেকে ওই টাকা কালেকশন হওয়ার কথা। ব্যাংক দুটির দূরত্ব মাত্র দুই কিলোমিটার। গ্রাহক পারভীন আক্তার সপ্তাহে তিনদিন তার একাউন্টে লেনদেন করার জন্য ব্যাংকে যাতায়ত করে চলেছেন। ১৬ মাস পেরিয়ে গেলেও ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কোনদিনও চেক ফেরতের বিষয়টি তাঁকে জানায়নি। রোববার একাউন্ট চেক করে পারভীন জানতে পারেন ওই টাকাটা তার একাউন্টে এখনো জমা হয়নি। কারন খুঁজতে গিয়ে দেখেন দুইটি কাগজযুক্ত ওই চেকটি অযতেœ অবহেলায় নোংরা অবস্থায় ব্যাংকের পুরনো একটি ড্রয়ারে পড়ে আছে। শাহিনার স্বাক্ষর মিলেনি এ কারনে চেকটি কালিকচ্ছ শাখায় গত ২০১২ সালের ৭ অক্টোবর ফেরত পাঠায় সরাইল কৃষি ব্যাংক। ১৬ মাস পর ঘুম ভাঙ্গে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের। ততক্ষণে ওই চেকের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। টেনশনে পড়ে যান পারভীন। চেকের তারিখ কেটে শাহিনার ইনিশিয়াল স্বাক্ষর নিয়ে আবার চেকটি জমা দেওয়ার পরামর্শ দেন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। চেক প্রদানকারী শাহিনা আক্তার বলেন, আমার স্বাক্ষরে কোন ক্রুটি নেই। এটাই আমার স্বাক্ষর। ভুক্তভোগী গ্রাহক পারভীন আক্তার বলেন, তারা বিষয়টি আমাকে আরো আগে জানাতে পারত। ভাগ্য ভাল শাহিনা মারা গেলে তো এখন আর কিছুই করার ছিল না। এটা কর্তৃপক্ষের গাফিলতি। কৃষি ব্যাংক কালিকচ্ছ শাখার ব্যাবস্থাপক মোঃ সুলেমান ভূঁইয়া ১৬ মাস পর চেক ফেরতের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাটি আমি আসার আগে আনোয়ার হোসেনের সময় ঘটেছে। তখন চেকের কাজ করতেন দ্বিতীয় কর্মকর্তা জয়শ্রী সাহা। তবে বিষয়টি আরো আগে গ্রাহককে জানানো উচিত ছিল। গ্রাহকও খবর নিতে পারতো। কৃষি ব্যাংক ব্রাহ্মণবাড়িয়া আঞ্চলিক শাখার ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মোঃ মাহমুদ হাসান বলেন, যে কর্মকর্তা কাজটি করেছেন এবং যার ড্রয়ারে চেকটি পাওয়া গেছে তাকেই এ ঘটনার দায় দায়িত্ব নিতে হবে। 

এ জাতীয় আরও খবর