শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্র্যাডম্যানের পরই মুমিনুল!

52f6acfd6d16f-16‘স্যার ডনের পরই এখন আপনি, জানেন সেটা?’

প্রশ্ন শুনে ফোনের আরেক প্রান্তে কোনো সাড়াশব্দ নেই। হয়তো ধাতস্থ হতে খানিকটা সময় নিলেন। খানিকপর শোনা গেল কণ্ঠ, ‘জানতাম না। আর এসব যত কম জানা যায়, ততই ভালো।’

উত্তরের প্রথম অংশটুকু অপ্রত্যাশিত ছিল না। ব্যাটিং-গড়ে তিনি এখন স্যার ডন ব্র্যাডম্যানের পরই, এই তথ্য জানা থাকার আশা করাটা বাড়াবাড়িই। কালই টেস্ট রান ছাড়িয়েছে ৭০০। কমপক্ষে সাত শ রান করেছেন এমন ব্যাটসম্যানদের মধ্যে স্যার ডন ব্র্যাডম্যানের পর (৯৯.৯৪) তাঁর ব্যাটিং গড়ই (৭৫.৫০) এখন ক্রিকেট ইতিহাসে সেরা। পরিসংখ্যানের খুঁটিনাটি জানা না থাকারই কথা। তবে বিস্ময় জাগাল উত্তরের দ্বিতীয় অংশটুকু। তথ্যটি জানার পর যেখানে ভালো লাগার ভেলায় ভাসার কথা, মুমিনুল হক সেখানে বলছেন, যত কম জানা যায় ততই ভালো! অবাক হতে দেখে পরে ছোট্ট একটা ব্যাখ্যা জুড়ে দিলেন, ‘এসব মাথায় ঢুকলে আসলে একধরনের আত্মতৃপ্তি চলে আসতে পারে। আর এমন কিছু বেশ চাপও বটে। বেশি বেশি ভাবলে গড়টা ধরে রাখার একটা চাপ চলে আসতে পারে।’ 

যুক্তির নিক্তিতে ব্যাখ্যাটিকে ভালোই ওজনদার মনে হতে পারে। কিন্তু বাস্তবতার নিরিখে বিশ্বাস করতে কষ্ট হয়। চাপ ব্যাপারটির ছাপ যে তাঁর ব্যাটিংয়ে দেখাই যাচ্ছে না! কাল যেমন খেললেন, টেস্টের শেষ দিনে এমন ম্যাচ বাঁচানো সেঞ্চুরি নেই গ্রেটের তকমা লেগে থাকা অনেক ব্যাটসম্যানেরও। এই মাঠে তাঁর আগের সেঞ্চুরিটির কথা মনে আছে? যখন উইকেটে গিয়েছিলেন, বাংলাদেশ দুই ওপেনারকে হারিয়েছিল ৮ রানেই। মাথায় নিউজিল্যান্ডের ৪৬৯ রানের বোঝা। মুমিনুলের ব্যাট থেকে এল ম্যাচের গতিপথ বদলে দেওয়া ১৮১ রানের ইনিংস। পরের টেস্টেই আবার ম্যাচ বাঁচানো অপরাজিত ১২৬, জ্বর নিয়ে উইকেটে নেমেও অসাধারণ এক ইনিংসে নিশ্চিত করেছিলেন বাংলাদেশের ম্যাচ ও সিরিজ ড্র। কে না জানে, টেস্ট ক্রিকেটে দলের প্রথম ইনিংসের চেয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে চাপটা অনেক বেশি। কত কত গ্রেট ব্যাটসম্যানের গড় দ্বিতীয় ইনিংসে একদমই গড়পড়তা। অথচ মুমিনুলের গড় প্রথম ইনিংসে ৫৫.৮৫, দ্বিতীয় ইনিংসে ১২১.৩৩! এমন একজনের কণ্ঠে চাপ পেয়ে বসার শঙ্কা বেমানান নয়!

এবার মুমিনুল বোঝালেন, শঙ্কাটা আসলে চাপকে কাছে ঘেঁষতে না দেওয়ার নিজের তৈরি বর্ম, ‘আমি জানি, আমার কাছে সবার প্রত্যাশা বাড়ছে। বাড়ির সবার প্রত্যাশা, দলের সবার, মানুষের, আপনাদের প্রত্যাশা। রেকর্ড-টেকর্ড ভেবে অযথা আরও বাড়তি চাপ নিতে চাই না।’

এই চাপকে জয় করতে পারার কারণেই তিন সেঞ্চুরির মধ্যে এগিয়ে রাখছেন কালকের সেঞ্চুরি, ‘আজকে ব্যাটিং করতে অনেক কষ্ট হয়েছে। ওরা অনেক ভালো জায়গায় বোলিং করেছে, অনেক চাপও ছিল।’ তাঁর ব্যাটিং দেখে অবশ্য কষ্টের ব্যাপারটা বোঝা যায়নি। নিজের সহজাত ব্যাটিংই করেছেন। তাতে বেশ কবারই ব্যাটের কানা নিয়েছে বল, অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন কয়েকবার। তবে বাজে বলের প্রাপ্য মেটাতে ভুল করেননি।

তবে চাপ যে তাঁকেও মাঝেমধ্যে কাবু করে, সেটা খানিকটা বোঝা গেছে নব্বইয়ে তাঁকে নড়বড়ে দেখে। সেটা অস্বীকারও করেননি মুমিনুল, ‘একটু নার্ভাস হয়েছিলাম। অনেক বড় বড় ব্যাটসম্যানও নব্বইয়ে চাপ অনুভব করে।’ তবে নার্ভাসনেসের কাছে হার না মেনে ঠিকই ছুঁয়েছেন তিন অঙ্ক। ছাড়িয়ে গেছেন বাংলাদেশের সবাইকে। ৭ টেস্টেই ৩ সেঞ্চুরি, ৩ সেঞ্চুরি ছুঁতে তামিম ইকবালের লেগেছিল ১৯, হাবিবুল বাশারের ২৯ ও মোহাম্মদ আশরাফুলের ৩০ টেস্ট। বাংলাদেশের হয়ে চার নম্বরে সবচেয়ে বেশি রানও এখন মুমিনুলের, ১৩ ইনিংসে ৭৫৫। আশরাফুলের ৬৯১ ছিল ৪৪ ইনিংসে!

তবে সব ছাপিয়ে সবচেয়ে চোখ ধাঁধানো এখন ব্যাটিং-গড়টাই, ‘ব্র্যাডম্যানের পর!’ সময়ের সঙ্গে এই ব্র্যাডম্যানীয় গড় থাকবে না স্বাভাবিকভাবেই। সেটা জানেন মুমিনুলও, ‘এভাবেই শুধু ভালো ব্যাটিং করে যেতে চাই।’ আর হ্যাঁ, চান মজা দিতে।

এই ‘মজা’র গল্পটা মজার। টেস্ট শুরুর আগের দিন সংবাদকর্মীদের সঙ্গে টুকটাক আলাপচারিতায় স্বভাবসুলভ নির্লিপ্তই ছিলেন মুমিনুল। নেটের দিকে পা বাড়িয়ে নিজে থেকেই বললেন, ‘আমার সাথে কথা বলে আপনারা বোধ হয় মজা পান না।’ পরে মিনিট ১৫ নক করার পর ড্রেসিংরুমের সিঁড়ির দুই ধাপ ভাঙার পর আবার পেছন ফিরে বললেন, ‘সমস্যা নেই, মাঠেই মজা পাবেন!’

‘মজা’ যথেষ্টই দিয়েছেন সবাইকে, দেবেন হয়তো আরও অনেক!

সর্বোচ্চ টেস্ট গড় (কমপক্ষে ৭০০ রান)

ম্যাচ রান গড় সর্বোচ্চ ১০০/৫০

ডন ব্র্যাডম্যান ৫২ ৬৯৯৬ ৯৯.৯৪ ৩৩৪ ২৯/১৩

মুমিনুল হক ৭ ৭৫৫ ৭৫.৫০ ১৮১ ৩/৩

স্টুয়ি ডেম্পস্টার ১০ ৭২৩ ৬৫.৭২ ১৩৬ ২/৫

চেতেশ্বর পুজারা ১৮ ১৬১৩ ৬৪.৫২ ২০৬* ৬/৪

সিডনি বার্নস ১৩ ১০৭২ ৬৩.৬৫ ২৩৪ ৩/৫

* পুজারার গড় গতকাল পর্যন্ত