সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খোলা আকাশের নিচে হাজারো পরিবার

52f611e1cd08b-fire-1বাঁশ, কাঠ আর টিন দিয়ে তৈরি ছিল খুপরি ঘরগুলো মগবাজারের মধুবাগে। শুধু তা-ই নয়, অপরিকল্পিতভাবে দোতলাও করা হয়েছিল। এই ঘিঞ্জি বস্তিতে এখন শুধু কয়লা আর ছাইয়ের স্তূপ, যা লেলিহান আগুনের সর্বগ্রাহী লেহনের চিহ্ন হয়ে আছে।



এই আগুন বস্তিবাসী কয়েক হাজার মানুষকে কেবল সর্বস্বান্তই করেনি, কেড়ে নিয়েছে সবুজ নামের এক ছোট্ট শিশুর প্রাণ। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর হাজারো সদস্যের এখন মাথাগোঁজার ঠাঁই নেই। খোলা আকাশের নিচে অনিশ্চিত এক পরিস্থিতিতে পড়েছে তারা।



স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, মাস কয়েক আগে গ্যাসলাইন আসে বস্তিতে। এর পরও রান্নার চুলা জ্বলত কাঠ দিয়ে। কাঠের চুলা থেকে প্রথমে বিদ্যুতের সংযোগ ও পরে গ্যাসলাইনে হঠাত্ করে আগুনের সূত্রপাত। এ আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে মগবাজারের মধুবাগের ঝিলপাড় বস্তিতে। পুড়ে যায় প্রায় এক হাজার ঘর। কেউ কোনো কিছু ঘর থেকে বের করতে পারেনি। হাঁড়িপাতিল, কাঁথা-কাপড়, গয়না-গাঁটি, বইখাতা সবকিছু পুড়ে ছাই।

বেশির ভাগ বাসিন্দা পোশাক কারখানার কর্মী ও রিকশাচালক হওয়ায় আগুন লাগার সময় তাঁরা ছিলেন না। এতে হতাহতের বড় ঘটনা ঘটেনি।



স্থানীয় বাসিন্দা ও ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকর্মীরা বলেন, বছর তিনেক আগে হাতিরঝিল প্রকল্পের মাটি দিয়ে ভরাট করে মধুবাগ ঝিলপাড় বস্তি গড়ে তোলা হয়। এর আগে ঝিলের ওপর বাঁশের মাচা বানিয়ে ঘর তৈরি করে ভাড়া দেওয়া হতো স্বল্প আয়ের মানুষদের কাছে। তবে মাটি ভরাট করার পর আরও এলোমেলোভাবে একের পর এক ঘর তৈরি করেন বিভিন্ন ব্যক্তি। এভাবে মধুবাগের ঝিলপাড় বস্তিতে গড়ে ওঠে প্রায় এক হাজার ঘর।



১০ ফুট দীর্ঘ ও আট ফুট চওড়া অধিকাংশ ঘরের বিদ্যুত্ ও পানির বিলসহ মাসে ভাড়া দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা। এভাবে ঘরের মালিকদের পকেটে চলে আসে লক্ষাধিক টাকা। এমনি করে মাত্র সাড়ে আট কাঠা জায়গায় দোতলা বস্তিতে প্রায় ১২০টি ঘর তৈরি করেন মহিউদ্দিন বাবুল।



মহিউদ্দিন বাবুলের দাবি, ১০ বছর আগে জায়গা কিনে তিনি ৩৫৭, ১৪-সি হোল্ডিং নম্বরে ঘর তৈরি করেন। তাঁর মালিকানায় ছিল ৪৮টি ঘর। বাবুলের বড় ভাই মফিজ উদ্দিন ও বোন আকলিমা আক্তারের মালিকানায় ছিল প্রায় ৮০টি ঘর।



স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ, বাবুলের বোন আকলিমার ঘর থেকে আজ শনিবার আগুনের সূত্রপাত। এ আগুন দ্রুত ছড়িয়ে যায় আশপাশের ঘরগুলোতে। আকলিমার ঘরের ভাড়াটিয়া শিরিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা গার্মেন্টসে ছিলাম। খবর পেয়ে আসছি। লাকড়ি দিয়ে রান্না করার সময় বিদ্যুত্ ও গ্যাসের লাইনে আগুন ছড়ায় পড়ে।’ 



পুড়ে যাওয়া আরেকটি ঘরের বাসিন্দা রুমা খাতুন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আগুনে আমার টেলিভিশন, হাঁড়িপাতিল সব পুড়ে গেছে। কিছুই বাইর করতে পারি নাই। কয়েক দিন পর আমার বিয়ের কথা ছিল। গলার হার, কানের দুল, নাকের ফুল সব পুড়ে গেছে। এখন আমার কী হইব?’



নূরুল আমিন নামের আরেক ব্যক্তি মধুবাগ বস্তির ৮৮টি ঘরের মালিক। তিনি নিজে এখানে বাস করেন না। পাশের একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকেন। কয়েক কাঠা জায়গার মালিক হলেও পাকা বাড়ি না বানানোর কারণ সম্পর্কে প্রথম আলোকে নূরুল আমিন বলেন,‘ টাকা না থাকায় বানাইতে পারি না।’ অথচ নূরুল আমিন দাবি করেন, আগুনে তাঁর ক্ষতি হয়েছে ৫০ লাখ টাকা।



এদিকে ফায়ার সার্ভিসের স্বেচ্ছাসেবী ফারুক আলম বলেন, ‘পুরো বস্তি এলাকায় ঘর এলোমেলো করে তৈরি করা হয়েছে। বিদ্যুতের তার ছিল ছড়ানো-ছিটানো। তা ছাড়া টিন, বাঁশ ও কাঠ দিয়ে ঘর তৈরির জন্য দ্রুত আগুন ছড়িয়েছে।’

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ আসাদুজ্জামান খান এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী।



পরিদর্শন শেষে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘নিহত শিশুর পরিবারকে ২০ হাজার টাকা ও ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবারকে তিন হাজার টাকা দেওয়া হবে। প্রতি পরিবারকে ২০ কেজি করে চাল দেওয়া হবে।’