বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঢাকার বায়ুদূষণের প্রধান কারণ ইটভাটা

52f485905cbe8-imagesঢাকার চারপাশে থাকা ইটভাটা, যানজট, পুরোনো মোটরগাড়ি থেকে নির্গত কালো ধোঁয়া ও ধুলার কারণে ঢাকার বায়ুদূষণ মারাত্মক আকার ধারণ করেছে বলে মনে করছে পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো।

আজ শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনসহ (বাপা) ১৩টি সংগঠন জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক নাগরিক সমাবেশ করে। সেখানে বক্তারা বায়ুদূষণের কারণ উল্লেখ করে তা সমাধানের জন্য সরকারকে কার্যকর ও কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান।

বক্তারা বিশ্বব্যাংক ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের এক যৌথ গবেষণা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে জানান, ঢাকায় বায়ুদূষণের মাত্রা সহনীয় পর্যায়ের চেয়ে পাঁচ গুণ বেশি। প্রতি কিউবিক মিটারে এয়ারবোর্ন পার্টিকুলেট ম্যাটারের পরিমাণ ২৫০ মাইক্রোগ্রাম। আর সহনীয় মাত্রা ৫০ মাইক্রোগ্রাম।

বক্তারা বলেন, সিসাযুক্ত পেট্রল আমদানি বন্ধ এবং দুই স্ট্রোক ইঞ্জিনবিশিষ্ট বেবিট্যাক্সি বন্ধ করে দেওয়ার পরও বায়ুদূষণ মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। তাঁরা জানান, সারা দেশে কমবেশি ১০ হাজার ইটভাটা রয়েছে। এর অর্ধেকই ঢাকা শহরের আশপাশে।

আর এসব ইটভাটায় পাড়ানো হয় ভারতের মেঘালয় থেকে আমদানি করা নিম্নমানের কয়লা। সেখানে সালফারের পরিমাণ ৭ থেকে ১০ শতাংশ। অথচ এর পরিবেশসম্মত সর্বোচ্চ সীমা হচ্ছে ১ শতাংশ।

আজকের অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাপার সাধারণ সম্পাদক আবদুল মতিন। তিনি বায়ুদূষণ প্রতিরোধে পুরোনো পদ্ধতির ইটাভাটা বন্ধ করে জিকজ্যাক ইটভাটা চালু, কাঠ পোড়ানো বন্ধ, কয়লা আমদানি বন্ধ, ১৬ বছর বা তারও আগেকার যানবাহন বন্ধসহ সরকারের প্রতি ১১টি দাবি জানান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব ও খনিজবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক শহীদুল ইসলাম বলেন, বায়ু-পানি-মাটি—এ তিনটি মৌলিক উপাদানের মধ্যে বায়ুদূষণ সর্বোচ্চ। আর বায়ুদূষণ অন্য দুটি উপাদানের ওপর চরম প্রভাব ফেলছে।

আজকের সমাবেশে অংশগ্রহণকারী অন্য সংগঠনগুলো হলো গ্রিন ভয়েস, সুন্দর জীবন, নিরাপদ ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন, ডব্লিউ বিডি ট্রাস্ট, ব্লু প্ল্যানেট ইনিশিয়েটিভ, সিটিজেন রাইটস মুভমেন্ট, উন্নয়ন ধারা ট্রাস্ট, সিডাস, সেবা, আদি ঢাকাবাসী ফোরাম, পিস ও ইউনাইটেড পিপলস ট্রাস্ট।