বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দুই সেঞ্চুরির পরও বিষাদের বিকেল

52f3f254bd754-25ছোট্ট একটা ঝড়। তাতেই পড়ন্ত বিকেলে এলোমেলো সাজানো বাগান। ৬ উইকেটে ৩৯৬ থেকে ৮ উইকেটে ৩৯৬! তাও ভালো, বাংলাদেশের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করে বসেননি অজন্তা মেন্ডিস।

হ্যাটট্রিক না হলেও শেষবেলায় পর পর দুই বলে নাসির হোসেন আর সোহাগ গাজীকে ফিরিয়ে চট্টগ্রাম টেস্টের তৃতীয় দিনটা বাংলাদেশের হতে দিলেন না মেন্ডিসই। বাংলাদেশ শিবিরে অবশ্য অসন্তোষ আছে নাসিরের আউট নিয়ে। অফ স্টাম্পের বাইরের নিরীহদর্শন একটা বলে কাট করতে গিয়েছিলেন। টেলিভিশন রিপ্লে দেখে বাংলাদেশ দলের দাবি, নাসিরের ওই শটে ব্যাটে বল না লাগলেও আঙুল তুলে দিয়েছেন আম্পায়ার পল রাইফেল। নাসিরকে অবশ্য তার পরও কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। দিনের খেলা যখন প্রায় শেষ, ও রকম অবিবেচকের মতো ব্যাট চালাবেনই বা কেন তিনি!

দিনের শেষটা ম্লান হলেও শুরুটা ছিল আলো ঝলমলে। তামিম ইকবালকে হারিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষে দলের রান ছিল ৮৬, উইকেটে শামসুর রহমান ও ইমরুল কায়েস। কাল এই দুই ব্যাটসম্যান যোগ করলেন আরও ১৪৬ রান। শূন্য রানে তামিমের বিদায়ের পর তাদের ২৩২ রানের জুটি দ্বিতীয় উইকেটে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ। আগের সর্বোচ্চ জুটিটা ছিল তামিম ও জুনায়েদ সিদ্দিকের। ২০১০ সালে ঢাকায় ভারতের বিপক্ষে সেই জুটিটি ছিল ঠিক ২০০ রানের। সব জুটি মিলিয়ে সর্বোচ্চ রানের তালিকায় অবশ্য শামসুর-ইমরুলের ২৩২ দ্বিতীয় স্থানে। গত বছর গল টেস্টে পঞ্চম উইকেট জুটিতে মোহাম্মদ আশরাফুল-মুশফিকুর রহিমের ২৬৭ রানই এখনো সর্বোচ্চ বাংলাদেশের যেকোনো জুটিতে।

কাল মধ্যাহ্নবিরতি পর্যন্তও কোনো উইকেট না পড়ায় বাংলাদেশের জন্য সুন্দর একটা দিনেরই সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি থেকে শামসুর রহমান তখন মাত্র ৭ রান দূরে, ইমরুলের প্রয়োজন ছিল আরও ৯ রান। মধ্যাহ্নবিরতির পর শতরানের মাইলফলক প্রথমে ছুঁলেন শামসুর। অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের বলে কভার ড্রাইভটা করেই লাফিয়ে উঠলেন শূন্যে, বল বাউন্ডারি পার হলো আরও কয়েক সেকেন্ড পর। আগের দিন ৩৭ রানে একবার ‘জীবন’ পেলেও কাল মোটামুটি নির্ভুল ব্যাটিংই করছিলেন শামসুর। কিন্তু মেন্ডিসের বলে যে শটটা খেলতে গিয়ে বোল্ড হলেন, দিন শেষে তাঁর নিজেরই উপলব্ধি, ওই বলে ওই শটটা না খেললেই ভালো হতো।

ক্যারিয়ারের ১৭তম টেস্টে এসে প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন ইমরুলও। ভাগ্যের ছোঁয়া অবশ্য তিনিও পেয়েছেন। আগের দিন সেটি ৩১ রান করার পর। কাল সেঞ্চুরির ঠিক আগে দুবার পেয়েছেন ‘নতুন জীবন’। সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ৫ রান দূরে থাকতে মেন্ডিসের বলে পয়েন্টে ইমরুলের সহজ ক্যাচ নিতে পারেননি ভিতানাগে। এক বল পর আবারও ঠিক একই জায়গায় ক্যাচ দিলেন ইমরুল। ভিতানাগে এবার ক্যাচটা নিলেনও। কিন্তু ক্রিজের বাইরে পা চলে যাওয়ায় মেন্ডিসের ওই বলটাই যে হলো ‘নো’! ভাগ্যদেবীর কৃপায় ইমরুল শেষ পর্যন্ত সেঞ্চুরির হাসি হেসেছেন লাকমলকে স্কয়ার কাটে চার মেরে। কিন্তু শামসুরের মতো তিনিও সেঞ্চুরিতেই সন্তুষ্ট থাকলেন মেন্ডিসের বলে ভুল শট খেলে বোল্ড হয়ে।

দলের ২৩২ রানে শামসুরের আউটের পর ২৫৯ রানের মধ্যে মুমিনুল-ইমরুলও ড্রেসিংরুমে। তবে পঞ্চম উইকেটে মুশফিক-সাকিবের ৬০ রানের জুটিতে তিন শ পেরিয়ে যায় বাংলাদেশের স্কোর। কিন্তু দুই সেঞ্চুরিয়ানের মতো ধৈর্যের পরীক্ষায় পাস করতে পারেননি সাকিবও। শর্ট কাভারে দুই ফিল্ডার থাকার পরও পেরেরাকে ড্রাইভ করতে গিয়ে তাঁদেরই একজন করুনারত্নের হাতে ক্যাচ দিয়েছেন। নাসিরের বিতর্কিত আউটটা এরপরই। তবে তার আগে মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে সপ্তম উইকেটে তাঁর ৪৬ রানের জুটি বাংলাদেশ দলকে নিয়ে যায় চার শর কাছাকাছি।

আজ চতুর্থ দিনে শেষ দুই ব্যাটসম্যানকে নিয়ে মাহমুদউল্লাহ আর কতটা যেতে পারেন, সেটাই দেখার বিষয়। দিন শেষে সঙ্গে ছিলেন আল আমিন, ব্যাটিংয়ে নামার অপেক্ষায় আছেন রাজ্জাকও। হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট সামলে তিনি এখন ব্যাটিং করার মতো সুস্থ বলেই জানিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে কাল একই চোটে পড়া ইমরুল শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতে ফিল্ডিংয়ে না-ও নামতে পারেন। প্রথম ইনিংসে কিপিং করতে গিয়ে বাঁ হাতের কড়ে আঙুলে চোট পেয়েছেন অধিনায়ক মুশফিক। কাল ব্যথানাশক ইনজেকশন নিয়ে ব্যাটিং করলেও দ্বিতীয় ইনিংসে হয়তো কিপিং করবেন না তিনি। তবে ফিজিও-চিকিৎসকদের নিষেধের পরও ফিল্ডার হিসেবে মাঠে থেকে নেতৃত্ব দিতে চান মুশফিক।

শুধু শ্রীলঙ্কা নয়, চট্টগ্রাম টেস্টে যেন চোটাঘাতও প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়াল বাংলাদেশ দলের!