বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

একদিকে লক্ষ্মী টেরা অন্যদিকে ক্ষ

52f29ab203a12-2সোহিনী গান করেন লন্ডনে৷ ‘লক্ষ্মী টেরা’ আর ‘ক্ষ’ নামে দুটি ব্যান্ডেরই কণ্ঠশিল্পী তিনি৷ ঢাকায় এসেছেন সম্প্রতি৷ ইতিমধ্যেই সুগায়িকা হিসেবে নাম করেছেন৷ তাঁরই সঙ্গে কথা হলো ‘আনন্দ’-এর…

লক্ষ্মী টেরা, ক্ষ-দুটোই লন্ডনভিত্তিক গানের দল৷ লক্ষ্মী টেরা কিষণ খানের ব্যান্ড৷ কিষণ খান পিয়ানো বাদক৷ ব্যান্ডটি অ্যাফ্রো, লাতিন, জ্যাজ এমনকি বাংলা ফোক গান নিয়েও কাজ করছে৷ প্রথম কনসার্ট করে ২০০৬ সালে লন্ডনের কুইন এলিজাবেথ হলে৷ কনসার্টে আরও গান করেছিলেন অর্ণব৷ এই কনসার্টেই লক্ষ্মী টেরার সঙ্গে পরিচয় সোহিনী আলমের৷ সেই থেকে তিনি গান করছেন এই ব্যান্ডের সঙ্গে৷ 

বাংলাদেশে এ পর্যন্ত পাঁচবার এসেছে লক্ষ্মী টেরা৷ প্রথম আসে ২০০৯ সালে৷ ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকা ওয়ার্ল্ড মিউজিক ফেস্টিভ্যালে লক্ষ্মী টেরার গান দারুণ প্রশংসিত হয়৷ 

ক্ষ-র যাত্রা শুরু ২০০৭ সালে৷ দুই বন্ধু অলিভার উইকস আর সোহিনী মিলে গড়ে তোলেন ব্যান্ডটি৷ ক্ষ-লন্ডনভিত্তিক বাংলা গানের দল৷ সব ধরনের বাংলা গানই ক্ষ-র পছন্দ৷ ওই গানগুলোর কথা আর সুর ঠিক রেখে সংগীতায়োজনে ব্যবহার করা হয় আধুনিক বাদ্যযন্ত্র৷ সোহিনীর ভাষায়, ‘গানগুলোকে আমরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শ্রোতাদের কাছে তুলে ধরছি৷ তাই সংগীতায়োজনটা এখানে খুব গুরুত্বপূর্ণ৷’

‘লক্ষ্মী টেরা’, ‘ক্ষ’-দুটোই পেশাদার ব্যান্ড৷ আর দুটি ব্যান্ডেই কণ্ঠশিল্পী হিসেবে আছেন সোহিনী৷ ইউরোপে অবাঙালিদের কাছে বাংলা গান জনপ্রিয় করতে ভূমিকা রাখছেন তিনি৷ 

সোহিনীর জন্ম লন্ডনে৷ মা হিরণ আলম ছিলেন সংগীতশিল্পী, ডাকসুর সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন৷ বিয়ের পর লন্ডনে চলে যান৷ সেখানেও তাঁর এই সংগীতচর্চা অব্যাহত ছিল৷ গানে সোহিনীর হাতেখড়ি মায়ের কাছেই৷ মায়ের মৃত্যুর পর ১৯৮৭ সালে ঢাকায় চলে আসেন সোহিনী৷ 

ও লেভেল আর এ লেভেল করেছেন ঢাকায়৷ স্নাতক আর স্নাতকোত্তর যুক্তরাষ্ট্রে৷ কিছুদিন সেখানে চাকরিও করেছেন৷ এরপর চলে যান যুক্তরাজ্যে, লন্ডনেই তাঁর বসবাস ৷ ব্যান্ডের নাম ক্ষ কেন? সোহিনী বললেন, ‘ঢাকায় দেখেছি সব ব্যান্ডের ইংরেজি নাম৷ আমরা বাইরে থাকি৷ সেখানে বাংলা গানের চর্চা করি৷ আমি আর অলিভার আমাদের ব্যান্ডের জন্য এমন একটা নাম খুঁজছিলাম, যা অবাঙািলরাও মনে রাখতে পারবে৷ ক্ষ অক্ষরটি আমাদের দারুণ পছন্দ হয়৷’

এরই মধ্যে লক্ষ্মী টেরার দুটো অ্যালবাম বেরিয়েছে, নো ভিসা রিকোয়ার্ড আর চে গুয়াভা’স রিকশ ডায়েরিজ৷ এখন চলছে তৃতীয়টির কাজ৷ ক্ষ-র প্রথম অ্যালবাম আসবে জুলাই মাসে৷ এখনো অ্যালবামটির কোনো নাম চূড়ান্ত হয়নি৷ সোহিনীর ইচ্ছা, ব্যান্ডের নামেই হবে অ্যালবামের নাম, ক্ষ৷ 

ক্ষ ব্যান্ড বাংলাদেশে খুব পরিচিত হয় ২০১২ সালে ডিসেম্বর মাসে৷ তখন ইউটিউবে ক্ষ-র গাওয়া ‘আমার সোনার বাংলা’ গানের মিউজিক ভিডিও দেওয়া হয়৷ আলোচনা আর সমালোচনা দুটোরই মুখোমুখি হতে হয় তাদের৷ 

‘আমরা গানটি গান হিসেবেই গাওয়ার চেষ্টা করেছি৷’ বললেন সোহিনী৷ 

সোহিনী জানালেন, তিনি এখন উত্তর লন্ডনে থাকছেন৷ প্রতিবছর একবার অন্তত দেশে আসেন৷ এবার এসেছেন কাজ নিয়ে৷ ক্ষ যে গানগুলো করছে, ওই সব গানের গীতিকার, সুরকারদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় অনুমতি নেওয়ার জন্য৷ কিন্তু কাজটি করতে এসে তাঁকে ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে৷ সোহিনী বললেন, ‘এ েদশে এখনো কপিরাইটের বিষয়টি প্রতিষ্ঠিত না৷ তাই তো বিদেশের শ্রোতাদের কাছে এ েদশের শিল্পী, গীতিকার কিংবা সুরকারেরা এখনো অপরিচিত৷ এটা বিশ্বের শ্রোতাদের কাছে বাংলা গানকে পৌঁছে দেওয়ার পথে বড় বাধা৷’

এ জাতীয় আরও খবর

দেশের মানুষকে বিজয় দিবসে শপথ পড়াবেন প্রধানমন্ত্রী

যাত্রী বেশি হলে বিমানবন্দরে ল্যাব বাড়ানো হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬১

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাইল সেই ব্যাংক

মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সে বোমা আতঙ্ক, যেভাবে চলে অভিযান

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে এবার নওগাঁর আদালতে মামলা

আমিনবাজারে ৬ ছাত্র হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১৯ জনের যাবজ্জীবন

ওমিক্রন আতঙ্কে ভারত : ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় আবারও বাংলাদেশ

সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে, লঘুচাপটি শক্তিশালী হচ্ছে

নিয়ম ভেঙে তুলে নেওয়া হয় ৩৬৮৭ কোটি টাকা

এইচএসসিতে বসেছে প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থী

৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড