বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরাইলে মন্দির ও শ্বশানের জায়গাটি ভেঙ্গে খাল

sarail-pic-04-02-14-300x224সরাইলের পানিশ্বরে হিন্দুদের কালিমন্দির ও শ্বশান সংলগ্ন জায়গাটি নিয়ে যে কোন মূহুর্তে বড় ধরনের সংঘর্ষ বেঁধে যেতে পারে। হিন্দুরা বলছে মন্দিও ও শ্বশানের জায়গা ভেঙ্গে খালে চলে গেছে। আমরা ওই জায়গা ভরাট করেছি। পানিশ্বর বাজার সংলগ্ন ১২২ দাগের ১৫ শতাংশ খাস খালে বালি ফেলে ভরাটের পর এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ বিষয়ে গত ৩ ফেব্র“য়ারী সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন সার্বজনীন কালিমন্দির কমিটির সভাপতি শ্রী শচীন্দ্র দেব নাথ। অভিযোগ পত্রে ও সরজমিনে জানা যায়, ষোলাবাড়ি ও আশপাশের কয়েকটি মহল্লার বাড়িঘর ও চার’শ বিঘা কৃষি জমির পানি নিস্কাশনের একমাত্র মাধ্যম সরকারি এ খালটি। খালের পাশেই রয়েছে হিন্দুদের কালিমন্দির ও শ্বশান। দীর্ঘদিন ধরে ৩/৪’শ বছরের পুরানো এ খালটি দখলে নেওয়ার পায়তারা করছে স্থানীয় একটি কুচক্রী মহল। গত কয়েক দিন ধরে রাতের অন্ধকারে মেঘনা নদী থেকে ড্রেজারের সাহায্যে বালু উত্তোলন করে খালটি ভরাট করে ফেলেন স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের কিছু লোক। সুযোগে ওই খালের বড় একটা অংশ দখল করে নেয় স্থানীয় ইউপি মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কিছু লোক। এলাকার সহস্রাধিক কৃষক ও সাধারন মানুষ পানি নিস্কাশনের পুরানো এ খালকে উদ্ধার করার জন্য রাস্তায় নেমে আসে। তারা দখলদারদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়ে প্রতিবাদ করতে থাকেন। বাজার কমিটির সম্পাদক আঙ্গুর মিয়া, স্থানীয় সর্দার আবু বক্কর (৭০), আবদুস সাত্তার (৬৫), হাবিবুর রহমান (৬৫), সিরাজ মিয়া (৭০), জালাল উদ্দিন (৭২) ও ইউপি সদস্য মোঃ ফজল মিয়া বলেন, জন্মের পর থেকে দেখছি এলাকার ফসলি জমি বাড়ি ঘরের পানি এ খাল দিয়ে নিস্কাশন হচ্ছে। এখন পানি নিস্কাশনের কোন ব্যবস্থা না রেখে খাল দখল করছে তারা। স্থানীয় লোকজনের জন্য এ দখল অভিশাপ হয়ে দাঁড়াবে। হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতা মন্টু দেব ও গৌরাঙ্গ বলেন, পূর্ব পাশের বয়লারের মালিক খাস খালটি অনেক আগে ভরাট করে দখলে নিয়ে গেছেন। নকশায় খালের আকৃতি বাঁকা। আমারা মন্দিরের ভেঙ্গে যাওয়া জায়গার সাথে সামান্য খাস জায়গা ভরাট করেছি। সুযোগে কিছু মুক্তিযোদ্ধা আমাদের টিনের ঘর ভেঙ্গে ওই জায়গা দখলে নেওয়ার পায়তারা করছে। তারা সাইনবোর্ড ও ঝুলিয়েছে। ইউপি মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার মোঃ জিল্লুর রহমান জায়গায় ঝুলানোর কথা স্বীকার করে বলেন, আমরা লীজ পাওয়ার আবেদন করেছি। চুড়ান্ত কাগজ পায়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। সংশ্লিষ্ট সকলকে নোটিশ করেছি। 

এ জাতীয় আরও খবর

যাত্রী বেশি হলে বিমানবন্দরে ল্যাব বাড়ানো হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬১

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাইল সেই ব্যাংক

মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সে বোমা আতঙ্ক, যেভাবে চলে অভিযান

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে এবার নওগাঁর আদালতে মামলা

আমিনবাজারে ৬ ছাত্র হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১৯ জনের যাবজ্জীবন

ওমিক্রন আতঙ্কে ভারত : ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় আবারও বাংলাদেশ

সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে, লঘুচাপটি শক্তিশালী হচ্ছে

নিয়ম ভেঙে তুলে নেওয়া হয় ৩৬৮৭ কোটি টাকা

এইচএসসিতে বসেছে প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থী

৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

কথা দিয়ে কথা রাখুন : কাদের