মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ভোটের আগে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাছাইয়ের ভোটাভুটি

brahmanbaria-9ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য গত রবিবার ভোটাভুটির আয়োজন করে আওয়ামীলীগ। ব্যতক্রমী এই ভোটাভুটিতে সাধারণ ভোটার হিসেবে অংশ নেন সরাইল উপজেলার নয়টি ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা। তারা গোপন ভোটের মাধ্যমে নিজ দলের একাধিক প্রার্থী থেকে সরাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যান তিনটি পদে তিনজন নেতাকে নির্বাচিত করেন। সরাইল আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা-কর্মী জানান, রবিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা শহরের দলীয় এক কার্যালয়ে চলে এই ভোটাভুটি। এসময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য আওয়ামীলীগ নেতা র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দসহ সরাইল আওয়ামীলীগের বেশকয়েকজন নেতা ও তৃণমূল নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। ভোটে চেয়ারম্যান পদে সরাইল উপজেলা আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা অংশ নেন। এতে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর। এছাড়াও ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে বর্তমান উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও চুন্টা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহজাহান মিয়া এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামীলীগের মহিলা সম্পাদিকা ও কালীকচ্ছ ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্যা রোকেয়া বেগম প্রতিদ্বন্দ্বিতার মাধ্যমে এই ভোটাভুটিতে জয়লাভ করেন। এদিকে দলের এই ভোটে অংশ নিয়ে পরাজিত হওয়ার পরও একাধিক আওয়ামীলীগ নেতা দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যান পদে তারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। রিটানিং কর্মকর্তার দফতর ও দলীয় সূত্রে জানা গেছে, রবিবার মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিন বিকেল পর্যন্ত সরাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সমর্থিত ছয় জন চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়ে তারা মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এছাড়াও আওয়ামীলীগ সমর্থিত ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুইজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুইজন তাদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। রবিবার সন্ধ্যায় নিজ কার্যালয়ে আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর সাংবাদিকদের বলেন, উপজেলা পরিষদ ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার আগেই আজকে (রবিবার) দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ের ভোটাভুটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছি। এতে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আমি সর্বোচ্চ ১৪ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছি। এই নির্বাচনে আমার একটি টাকাও খরচ করতে হয়নি। আশা করি উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে উপজেলাবাসী আবারো আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন। আমি সব সময় জনসাধারণের সেবায় নিয়োজিত থাকবো ইনশাল্লাহ্। দলীয় একাধিক প্রার্থীর বিষয়ে রফিক উদ্দিন ঠাকুর বলেন, সময়মত সবকিছুর সমাধান হয়ে যাবে। যারা দলকে ভালবাসে তারা দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে কিছু করবে তা আমার মনে হয় না। আওয়ামীলীগ নেত্রী রোকেয়া বেগম বলেন, দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীরা আমাকে ভাইস-চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হিসেবে ভোট দিয়ে জয়লাভ করিয়েছেন। এ জন্য আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। আমি বরাবরই জনসাধারণের সেবায় নিয়োজিত আছি। উপজেলাবাসী আমাকে তাদের সেবা করার সুযোগ দিলে এলাকার নানা উন্নয়নসহ সমাজের অবহেলিত বেকার নারীদের আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে তাদেরকে স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার সকল উদ্যোগ গ্রহণ করব। 

এ জাতীয় আরও খবর