বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ভালোবাসার মধ্যে দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছাত্রলীগ নেতা 12 জনের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

dua2-150x150৪ ফেব্রুয়ারী ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীর জন্য গভীর শোক আর বেদনার দিন। ২০১১ সালের ৪ ফেব্রুয়ারী বিকেলে গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাজার জিয়ারত শেষে ঢাকায় ফেরার পথে ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা ছাত্রলীগের ১১ নেতাসহ ১২ জন। মঙ্গলবার ছিল তাদের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী। ভাব-গম্ভীর পরিবেশে বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার মধ্যে দিয়ে ১২ ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যুবার্ষিকী পালন করে জেলা ছাত্রলীগ। এ উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শহরে শোক র‌্যালি ও দুপুরে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সকালে শহরের টি.এ.রোডের মনুমেন্টের পাশে (মঠের গোড়ায়) ১২ ছাত্রলীগ নেতার স্মরনে নির্মিত স্মৃতি স্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য, প্রধান মন্ত্রীর সাবেক একান্ত সচিব, র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এম.পি, জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র হেলাল উদ্দিন, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এবং ১৪ দলের সমন্বয়ক আমানুল হক সেন্টু, জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আল মামুন সরকার। পরে জেলা আওয়ামীলীগ, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ, শহর আওয়ামীলীগ, জেলা যুবলীগ, জেলা ছাত্রলীগ  ও বিভিন্ন অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তক অর্পন করা হয়। পুষ্পস্তক অর্পন শেষে  জেলা ওলামা সমন্বয়ক পরিষদের নেতা মাওঃ আবদুল্লাহ নিহত ছাত্রনেতাদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করেন। উল্লেখ্য ২০১১ সালের ৪ ফেব্রুয়ারী বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসনের উপ-নির্বাচনে বিজয়ী আওয়ামীলীগ নেতা র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এম.পি’র সফরসঙ্গী হয়ে টুঙ্গীপাড়া জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাজার জিয়ারত শেষে ঢাকায় ফেরার পথে ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলার সলিলদিয়ায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ১২ ছাত্রলীগ নেতা। এরা হলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী আলম শান্ত-(৩১), ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারী কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক এজিএস আরিফুল ইসলাম বাবু-(৩০), জেলা ছাত্রলীগ নেতা শওকত হোসেন লিয়েন-(২৮), মোর্শেদ আলম-(২৯), শাহজাহান রহমতুল্লাহ রুমেল (২৮), অ্যাডভোকেট জিয়াউল আমিন রিয়াদ-(২৯), শেখ রায়হান উদ্দিন-(২৮), হাফেজ আব্দুল্লাহ মাসুদ তানভীর-(২৯), মোঃ ইমরানুর রেজা ইমরান-(২৮), নূরুল আসিফ চৌধুরী (২৮), মোঃ আলমগীর-(২৮) ও মাইক্রোবাস চালক মিজানুর রহমান-(৩৫)। সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়ে এখনো পঙ্গুত্ব নিয়ে বেঁচে আছেন জেলা ছাত্রলীগ জাহিদ হোসেন পাভেল। ১২ ছাত্রনেতার স্মৃতিকে ধরে রাখতে টি.এ.রোডের মনুমেন্টের পাশে (মঠের গোড়ায়) র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এম.পি’র ঐকান্তি প্রচেষ্টায় ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে শহরের স্মৃতি সৌধ নির্মিত হয়।