মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মসজিদ কমিটির সাথে গ্রামবাসীর বিরোধ যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংর্ঘষের আশংকা

clashm-300x240ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলা মূলগ্রাম ইউনিয়নের ডাবিরঘর গ্রামে আধিপত্য বিস্তার ও  মসজিদের জমি কেনা বেচাকে কেন্দ্র করে যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংর্ঘষের আশংকায় গ্রামবাসীদের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে। গত ৩ ফেব্র“য়ারি সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা ডাবিরঘর গ্রামের একটি পুরান মসজিদ ভেংগে মসজিদের ওয়াক্ফকৃত জমি একক সিদ্ধা্েত বিক্রি করে নতুন মসজিদ নিমার্নের উদ্যোগ নেয় । মসজিদ কমিটির সভাপতি ডাবিরঘর গ্রামের হুসেন আহাম্মদ মেম্বার গ্রাম বাসীদের না জানিয়ে মসজিদের জমি বিক্রি করার উদ্যোগে গ্রাম বাসীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ডাবিরঘর গ্রামের হুসেন ব্যাপারী জানান, গ্রামের একটি স্বার্থান্বেষী মহল গ্রাম বাসীদের না জানিয়ে মসজিদের নামে ওয়াকফাকৃত ২৮ শতক জমি সাড়ে ১৫ লাখ টাকা বিক্রি করেন মসজিদ কমিটির সভাপতি হুসেন মেম্বার ও তার লোকজন একই গ্রামের সৌদি প্রবাসী বাছির মিয়ার নিকট। মসজিদের জমি বিক্রী করার বিষয়টি গ্রামবাসীদের মধ্যে চাপাক্ষোভ বিরাজ করছে। ডাবিরঘর গ্রামের আতাব মিয়া জানান, গ্রামবাসীদের না জানিয়ে মসজিদের জমি বিক্রি করা হলে যে কোন সময় ভায়াবহ রক্তক্ষয়ী সংর্ঘষের ঘটনা ঘটতে পারে। এদিকে মসজিদের ইমাম মোঃ রফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান মসজিদের জমি বিক্রীর বিষয়টি মসজিদ কমিটি আমার (তার) সাথে কোন পরামর্শ করেননি। মসজিদ কমিটির সভাপতি হুসেন আহাম্মদ মেম্বার সাংবাদিকদের জানান,  গ্রামের মুসল্লীদের স্বার্থে ঝরাজীর্ণ পুরান মসজিদ ভেংগে ও  স্থান পরিবর্তন করে মসজিদের  ২৮ শতক ভুমি বিক্রি করে নতুন মসজিদ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয় । ওই মসজিদের যাতায়াতের জন্য আমার নিজস্ব ৫ শতক ভ’মির  উপর দিয়ে রাস্তা নির্মান করা হয় । তিনি আরো জানান মসজিদ কমিটির সাবেক কোষাধ্যক্ষ  সামসুল হক ১৫ শতক ও নূরূল ইসলাম  ওই মসজিদের ৫২ শতক জমি বিক্রি করে পুরাতন মসজিদ সংস্কার করেন  কিন্তু আস্থর ভেংগে পরার আশংকায়  মসজিদে মুসল্লিরা নামাজ পড়তে  ভয় পায়। বর্তমানে মসজিদের ২৮ শতক ভূমি সাড়ে পনের লক্ষ টাকায় বিক্রি করা হলেও পরবর্তিতে এলাকার সাত গ্রামের শালিসিয়ানদের নিয়ে মুলগ্রাম বাজারে গত ৩০ জানুয়ারী  এক সভা অনুষ্ঠিত  হয় । ওই সভার আহবাযক ছিলেন মূলগ্রামের এনামুল খা এবং সভাপতিত্ব করেন মোজালক মাষ্টার । সভায় জুরি বোর্ডে  সাড়ে পনের লক্ষ টাকার স্থলে  বিশ লক্ষ টাকা বিক্রির সিদ্ধান্ত প্রদান করে । এদিকে ডাবির ঘর গ্রামের মীর কাশেম,শাহন মিয়া, আবু মিয়া,দুবরাজ মিয়া সহ আরো অনেকে সাংবাদিকদের জানান প্রকাশ্য নিলাম হলে আরো অধিক মূল্যে জমিটি বিক্রি করা যেত। কিন্তু হুসেন মেম্বার সাতগ্রামের মোড়ল ডেকে প্রহসন মূলক  সিদ্বান্ত নেয়। এই ঘটনায় যে কোন সময়  রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকায় গ্রামবাসীদের মধ্যে আতংক উদ্বেগ উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে । গ্রামবাসী প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছে ।