বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরাইলে প্রতারণা করে ব্যবসায়ীর অর্ধকোটি টাকা আত্মসাৎ : মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

sorailব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে প্রতারণা করে এক ব্যবসায়ীর অর্ধকোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। উল্টো ওই ব্যবসায়ীকে একের পর এক সাজানো মামলা দিয়ে হয়রানি করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের ধীতপুর গ্রামের বাসিন্দা মহিউদ্দিন সরকার নামে ওই ব্যবসায়ী এখন নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্থ। তিনি এ বিষয়ে প্রতিকার পেতে প্রশাসনসহ যথাযথ কর্তৃপক্ষের উর্ধ্বতন ব্যক্তিদের সহযোগিতা চেয়েছেন। জানা গেছে, ব্যবসায়ী মহিউদ্দিন সরকার ও তার অংশীদার ব্যবসায়ীরা ”হাসান বিল্ডার্স“ নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স এর মাধ্যমে বড় ধীতপুর বালুর মহাল ইজারা নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন। সম্প্রতি ব্যবসায়ী অংশীদার শাহবাজপুর গ্রামের রিপন মিয়া ও তার সহযোগী পল্টন, তৌহিদ, শামিম, সফিক সহ কয়েকজন এই বালু মহাল ব্যবসা এককভাবে ভাগিয়ে নিতে নানা ষড়যন্ত্র চালায়। তারা মহিউদ্দিন সরকার ও তার অপর অংশীদার ব্যবসায়ীদের নামে একাধিক হয়রানিমূলক চাঁদাবাজি মামলা দিয়ে আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থ করেন। মহিউদ্দিন সরকার অভিযোগ করে বলেন, রিপন মিয়া এই ব্যবসায় মাত্র ১০ পয়সা অংশীদার। অর্থ লোভী রিপন বালু মহাল পুরোটা এককভাবে করে নিতে নানা প্রতারণার আশ্রয় নেয়। সে একের পর এক মিথ্যা সাজানো মামলা দিয়ে আমিসহ আমার অপর অংশীদারদের হয়রানি করছে এবং আমাদেরকে আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। ব্যবসায়ী অংশীদারদের মিথ্যা মামলা দিয়ে সরিয়ে রেখে প্রতারক রিপন বালু মহাল ব্যবসার আয় থেকে প্রায় ৫০ লাখ টাকার বেশী হাতিয়ে নিয়ে আত্মসাৎ করেছে। ধীতপুর বালু মহালের ক্ষতিগ্রস্ত অপর ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, এরআগে জেলা প্রশাসক রাজস্ব এর কাছে ইজারা কিস্তি প্রদানের জন্য রিপন মিয়ার কাছে ১২ লাখ ২৯ হাজার টাকা দেওয়া হয়। রিপন মাত্র ৮ লাখ ৪৯ হাজার টাকা জমা দিয়ে বাকি ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করে। এদিকে জেলা প্রশাসক রাজস্ব ইজারা কিস্তি পরিশোধে তাগাদা দিলে মহিউদ্দিন সরকারসহ অংশীদাররা গত ২৫-০৮-২০১৩ তারিখে ১৫ দিনের মধ্যে কিস্তি পরিশোধ করবেন মর্মে অঙ্গীকার নামা দেন। পরে ৫-০৯-২০১৩ ইং এর মধ্যে বালু মহালের সমুদয় ৪২ লাখ টাকার রাজস্ব প্রদান করে রশিদ গ্রহনের মাধ্যমে ব্যবসা চালিয়ে যায়। এদিকে রিপন মিয়া কর্তৃক আত্মসাৎ এর ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা ফেরত চাইলে এ নিয়ে শত্রুুতা শুরু করে রিপনসহ তার সেলটার সাথীরা। তারা ষড়যন্ত্র চালিয়ে মহিউদ্দিন সরকার সহ ব্যবসায়ী পার্টনার ৯ জন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে সরাইল থানায় দুটি মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলা দায়ের করে। মিথ্যা মামলায় মহিউদ্দিন সরকার ও ফয়সল মিয়া নামে তার এক পার্টনার ৪দিন কারাগাভোগ করতে হয়। জামিন পেয়ে মহিউদ্দিন সরকার তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও প্রতারনার বিষয়ে সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। বিষয়টি নিয়ে অতিসম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দফতরে শুনানি হয়। এতে রিপন মিয়া দোষী সাব্যস্ত হলে তাকে উপজেলা নির্বাহী  কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আটক করেন। পরে টাকা পরিশোধে অঙ্গীকার করলে তার এক আত্মীয়ের জিম্মায় ছাড়া পায়। এসময় মহিউদ্দিন সরকারসহ ব্যবসায়ী পার্টনারদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার করে নেওয়ারও অঙ্গীকার করে রিপন। শুনানী কালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দফতরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। এতকিছুর পরও রিপন তার ষড়যন্ত্র অব্যাহত রাখে। মহিউদ্দিন সরকারকে বালুমহাল থেকে একেবারে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে সে। সর্বশেষ রিপন ষড়যন্ত্র করে গত ১৪ জানুয়ারি মহিউদ্দিন সরকার এর ব্যবসায়ী পার্টনার শাহেদ মিয়াকে প্রধান আসামী করে মহিউদ্দিন সরকার সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে সরাইল থানায় আরও একটি মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলা দায়ের করে। মহিউদ্দিন সরকার এসব ষড়যন্ত্র থেকে রক্ষা পেতে বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য সহ বিভিন্ন মহলকে অবগত করেন। এছাড়া চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট এর কাছেও তিনি লিখিত আবেদন করেন। এ আবেদনের প্রেক্ষিতে এ বিষয়ে বিজ্ঞ আদালত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে করা শুনানীর প্রতিবেদন আদালতে দায়েরের নিদের্শ দেন। এ ব্যাপারে সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, মহিউদ্দিন সরকারের অভিযোগ পেয়ে আমি নিজে তদন্ত করেছি। বিষয়টি থেকে যতটুকু জেনেছি ব্যবসায়ী পার্টনারদের মধ্যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরী করা হয়েছে। দু’একদিনের মধ্যে তা আদালতে প্রেরণ করা হবে।