বুধবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া যুব মহিলা লীগের কাইজ্জা

M Legeসরব আলোচনা ব্রাহ্মণবাড়িয়া যুব মহিলা লীগের পারফরমেন্স নিয়ে। তবে এই পারফরমেন্স সাংগঠনিক নয়। লাগাতার নিজেদের মধ্যে বিবাদ, অশ্রাব্য গালাগাল আর সর্বশেষ চড়-থাপ্পড় মারার পারফরমেন্স। দীর্ঘদিনের কানাঘুষার গণ্ডি পেরিয়ে তাদের এই পারফরমেন্স এখন টক অব দি টাউনে পরিণত হয়েছে। জেলা যুব মহিলা লীগের শীর্ষ কয়েক নেত্রীর কর্মকাণ্ডে বিব্রত জেলা আওয়ামী লীগ এবং অন্যান্য সহযোগী সংগঠন। ক্ষুব্ধ সদরের সংসদ সদস্য। সর্বশেষ ঘটনার পর পৌরসভায় সালিশ সভার আয়োজন করা হয় তাদের নিয়ে। যদিও মীমাংসা হয়নি। জেলা আওয়ামী লীগ ও মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রীরা ঘটনার বিচারের জন্য এখন সংসদ সদস্যের অপেক্ষা করছেন। তারা বলছেন- ৪ঠা ফেব্রুয়ারি সংসদ সদস্য এলে এনিয়ে কথা হবে। ৫ই জানুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ পৌর মিলনায়তনের বাইরে জেলা যুব মহিলা লীগের ১ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক আলম তারা দুলি চড় মারেন ওই সংগঠনের এক কর্মী শিশিরকে। এসময় সেখানে ছিলেন জেলা কৃষক লীগের সভাপতি ফরিদ উদ্দিন দুলাল ও কৃষক লীগ নেত্রী নাসিমা আক্তার। দুলির আচরণে অবাক হয়ে যান তারা। সংবর্ধিত সংসদ সদস্যকে ফুল দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই ঘটনার সূত্রপাত হয় বলে জানা গেছে। যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক টিভি ও বেতারের শিল্পী রুনাক সুলতানা পারভীন তার লোকজন নিয়ে সংসদ সদস্যকে ফুলের তোড়া দিয়ে দেয়ায় ক্ষুব্ধ হন আলম তারা দুলিসহ অন্য দুই যুগ্ম আহ্বায়ক মুক্তি খান ও পান্না। সূত্র জানায়, দুলি আহ্বায়ক পারভীনকে অনুষ্ঠানস্থলেই হাত উঠিয়ে চড় দেখান। পরে অনুষ্ঠান শেষে মিলনায়তনের বাইরে এ ঘটনা ঘটায়। কৃষক লীগ সভাপতি ফরিদ উদ্দিন দুলাল জানান, তিনি, স্কুল শিক্ষিকা কবিতা বেগম, যুব মহিলা লীগ নেত্রী পারভীন এবং কৃষক লীগ নেত্রী নাসিমা আক্তার একস্থানে দাঁড়িয়ে কথা বলছিলেন। তখনই দুলি পান্নাকে নিয়ে এসে পারভীনের সঙ্গে থাকা শিশিরকে জোরে পর পর দু’টি চড় মারে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চড় খেয়ে সঙ্গে সঙ্গে সে মাটিতে পড়ে যায় এবং জ্ঞান হারায়। পরে তাকে পানি ঢেলে জ্ঞান ফেরাতে হয়। তারা আরও জানান, চড় মারতে এলে পারভীন ‘এই সাহস সে কোথায় পেয়েছে’ জানতে চাইলে দুলির সঙ্গে থাকা পান্না তখন প্রভাবশালী এক জনপ্রতিনিধির নাম করে বলে সেই তাকে (দুলি) এই সাহস দিয়েছে। ঘটনাটি সঙ্গে সঙ্গেই পৌর মেয়রের কক্ষে থাকা সংসদ সদস্যকে জানানো হয়। পারভীন কান্নায় ভেঙে পড়ে সংসদ সদস্যের কাছে এর বিচার দেন। সংসদ সদস্য এতে ক্ষুব্ধ হন। তিনি তাৎক্ষণিক সেখানে উপস্থিত জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী মিনারা আলমকে পৌর মেয়রকে নিয়ে এর বিচার করার দায়িত্ব দেন। এরপরই রোববার পৌরসভায় এ নিয়ে মেয়র হেলাল উদ্দিনের উপস্থিতিতে সালিশ বসে। কিন্তু দায়িত্বপ্রাপ্ত পৌর মেয়র ও মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রীরা এর বিচার করতে ব্যর্থ হন। জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী মিনারা আলম বলেন- আমরা রোববার মেয়রের এখানে বসেছিলাম। কিন্তু ফাইনাল কিছু করতে পারিনি। দুলি মেয়েটি কাউকে পরোয়া করে না। সেদিনের ঘটনাটি জঘন্য হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন- পারভীনের সঙ্গে দুলি, মুক্তি ও পান্নার বিরোধ চলছে দীর্ঘদিন ধরে। একারণে কয়েক মাস আগে সংসদ সদস্য পারভীনকে তার অনুগতদের নিয়ে আলাদা চলার পরামর্শ দেন। সে কারণে পারভীন সেদিন আলাদাভাবে সংসদ সদস্যকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। তিনি আরও বলেন- ওই তিন মহলিার চলাফেরা ও কর্মকাণ্ডের কারণে আমরা বিব্রত। আমি ’৬৮ সাল থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করছি। কিন্তু কখনও এমন ঘটনা ঘটাইনি। পারভীন ’৮৯ সাল থেকে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদিকা। দুলির চেয়ে সে বয়সে অনেক বড়। তারপরও সে পারভীনকে লক্ষ্য করে বাজে বাজে কথাবার্তা বলে। এবিষয়ে আলম তারা দুলি বলেন, পারভীনের সঙ্গে থাকা মেয়েটি আমাকে রাবিশ বলেছে। এরপর আমি তাকে এ কথা কেন বলেছে তা জিজ্ঞেস করলে সে আমাকে বলে বদমাইশ মেয়ের কাছে আমি কৈফিয়ত দেবো না। এটা যদি আমাকে একটা পুরুষ লোকও বলতো তাহলেও তাকে আমি চড় মারতাম। দুলি আরও বলেন- তিনি কারও পাওয়ারে চলেন না। এ বিষয়ে জেলা যুব মহিলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক রুনাক সুলতানা পারভীন বলেন- এরা আমাকে দেখলেই অযথা বকাবকি করে। সে দিনের ঘটনার পর থেকে আমি বোবা হয়ে গেছি। সংসদ সদস্য আমার বাড়ি রক্ষায় সহায়তা করেছেন। আমি তার কাছে ঋণী। তা না হলে কবেই পার্টি ছেড়ে দিতাম। আলোচিত এই ঘটনাটি মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে সবার মধ্যে। গত বছরের জুন মাসে জেলা যুব মহিলা লীগের ২১ সদস্যবিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি করা হয়। এরপর কিছুদিন যেতে না যেতেই আহ্বায়ক বনাম তিন যুগ্ম আহ্বায়কের বিরোধ শুরু হয়। কয়েক মাস আগে হালদারপাড়ায় সংসদ সদস্যের কার্যালয়ে তারা বিরোধে জড়িয়ে পড়েন। যুব মহিলা লীগের এই নেত্রীদের নিয়ে দলের নেতা-কর্মীদের বিব্রত হওয়ার অনেক ঘটনা নীরবে আলোচনায় আছে। আছে নানা কানাঘুষা।

এ জাতীয় আরও খবর

আরাকান আর্মির হামলায় রাখাইনে ৮০ জান্তা সেনা নিহত

নির্বাচন নিয়ে মানুষের অনাস্থাবোধ দূর হয়নি: সংসদে মেনন

প্রতিমন্ত্রী বললেন, ‘পণ্যের দাম বাড়লেও মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বাড়ছে’

নাভালনিকে শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জায়গা দিচ্ছে না কেউ

বইমেলার সময় বাড়ছে আরও ২ দিন

শাহজাহানপুরে আবাসিক ভবনে দুই দফা বিস্ফোরণ, বাবা-মেয়েসহ দগ্ধ ৭

রোহিঙ্গাদের জন্য ৬৯ মিলিয়ন ডলারের সহায়তা দিচ্ছে জাপান

আফগানিস্তানে দুই হাজার মানুষের সামনে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর

ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতেই হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বুধবার ১৫ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না যেসব এলাকায়

সংরক্ষিত আসনের এমপিদের গেজেট প্রকাশ

দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন জনপ্রিয় অভিনেত্রীসহ ৯ জন