বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কাঙ্ক্ষিত বইমেলা শুরু বিকালে

Book Fair-2বইপ্রেমীদের প্রাণবন্ত উপস্থিতিতে আবারো সরব হয়ে ওঠবে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গন। কাঙ্ক্ষিত এই প্রাণের মেলা শুরু হবে শনিবার বিকালে। অমর একুশের ভাষাশহীদদের স্মরণে আয়োজিত অমর একুশে গ্রন্থমেলার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবারের মেলা উৎসর্গ করা হচ্ছে ভাষাসৈনিক ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমানকে। অমর একুশে গ্রন্থমেলা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

প্রচলিত রীতি অনুযায়ী উদ্বোধনের আগের দিন, অর্থাৎ গতকাল মেলার সার্বিক বিষয় সংবাদমাধ্যমকে অবহিত করে বাংলা একাডেমি কর্তৃপক্ষ। এ সময় জানানো হয়, শনিবার বেলা তিনটায় মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। মেলা চলবে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। প্রতিদিন বেলা তিনটা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। সরকারি ছুটির দিনগুলোতে বেলা ১১টা থেকে শুরু হবে মেলা। তবে একুশে ফেব্রুয়ারি মেলা শুরু হবে সকাল আটটা থেকে।

একাডেমি সূত্রে জানানো হয়েছে, গ্রন্থমেলায় মোট ২৯৯টি প্রতিষ্ঠানকে ৫৩৪টি ইউনিট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে মেলার সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানের অংশেই রয়েছে মূলধারার প্রকাশনা সংস্থাগুলো। উদ্যানে ২৩২টি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের জন্য ৪৩২টি ইউনিট বরাদ্দ করা হয়েছে। বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ২৪টি শিশু-কিশোরদের বইয়ের প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে ৩৩টি ইউনিট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। একাডেমি প্রাঙ্গণে বিভিন্ন সরকারি সংস্থা, গণমাধ্যমসহ ৪৩টি প্রতিষ্ঠানের জন্য ৬৯টি ইউনিট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। লিটল ম্যাগাজিন কর্নারে জায়গা পেয়েছে ৫৫টি লিটল ম্যাগাজিন। ক্ষুদ্র প্রকাশনা সংস্থা থেকে কিংবা ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রকাশিত বই বিক্রি ও প্রদর্শনের জন্য জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের স্টলে রাখা যাবে। মেলায় বাংলা একাডেমির প্রকাশনা ৩০ শতাংশ কমিশনে এবং মেলায় অংশগ্রহণকারী অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রকাশনা ২৫ শতাংশ কমিশনে বিক্রি হবে।

এবারই প্রথমবারের মতো বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণের বাইরে সম্প্রসারিত হলো বইমেলার। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেও বিস্তৃত হবে এই মেলা।