সোমবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কসবায় পাহাড় কাটার মহোৎসব ২ পাহাড় খেকোর বিরুদ্ধে মামলা

news-image

Saidur- 30 01 14 = 01কসবায় পাহাড় কাটার মহোৎসব চলছে।  অবাধে কাটার কাটার ফলে কসবা উপজেলার পাহাড়–গুলো ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক ভারসাম্য। ২ পাহাড় খেকোর বিরোদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। উপজেলার বায়েক ইউনিয়নের খাদলা, মাদলা, কোল্লাপাথর, নোয়াপাড়া, ধোপাখলা, সাগরতলা, বেলতলি, কৈখলা, পুটিয়া ও শ্যামপুর।  গোপীনাথপুর ইউনিয়নের সুতারমুড়া, রামপুর, কাজীয়াতলা, পাথারিয়াদ্বার, মধুপুর, ফতেহপুর, কুইয়াপানিয়া ও লক্ষèীপুর। কসবা পৌর এলাকার আকাবপুরসহ উল্লেখিত গ্রাম গুলোতে চলছে পাহাড় কাটার মহোৎসব। স্থানীয় এলাকাবাসীর অভিযোগ এলাকার কিছু পাহাড় খেকো তাদের ব্যক্তি স্বার্থে সরকারি খাস ভূমি পাহাড় কেটে মাটি বিক্রয় করে বিশাল অর্থ বিত্তের মালিক হয়েছেন। জানা যায়, একটি সংঘবদ্ধ চক্র পাহাড় কাটা ও মাটি বিক্রয়ের সাথে জড়িত। তারা প্রশাসনের ছত্র ছায়ায় প্রকৃতির খুটি পাহাড় ধ্বংস করছে। তাদের সাথে রয়েছে ভূমি অফিসের কিছু অসৎ কর্মকর্তা ও কর্মচারীর যোগ সাজস। গোপন সূত্রে জানা যায় স্থানীয় তহশীল অফিসের তহশীলদাররা প্রতি মাসে মাসুহারা পেয়ে থাকেন ভূমি খেকোদের কাছ থেকে। চন্ডিদ্বার ও বায়েক ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহশীলদার একই ব্যক্তি মো. আবুল কাশেম। যার বিরোদ্ধে রয়েছে নানান অনিয়মের অভিযোগ। মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তিনি পাহাড় খেকোদের সহায়তা করছেন বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। 
উপজেলার বায়েক ইউনিয়নের নোয়াপাড়া, ধোপাখলা, সাগরতলা, বেলতলী, মাদলা ও কোল¬াপাথরের পাহাড় কেটে মাটি বিক্রয় করা হচ্ছে খুশিমত। অথচ কোল¬াপাথর শহীদ সমাধিস্থল ঘিরে সরকারের রয়েছে পর্যটন কমপে¬ক্স তৈরির পরিকল্পনা। এদিকে পার্শ্ববর্তী পাহাড়গুলো কেটে সৌন্দর্যহানিসহ গোটা এলাকার সৌন্দর্য নষ্ট করা হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে তেমন কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। পাহাড় কাটার উপর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও কসবায় তা মানা হচ্ছে না। এক শ্রেণির ট্রাক মালিকরা উপজেলার বিভিন্ন পাহাড় টিলার মাটি কেটে চড়াদামে বিক্রি করছে। কোল¬াপাথর গ্রামের আক্তার মিয়া এবং মাদলা গ্রামের হালিম মিয়া নামক ২ব্যক্তি পাহাড় কাটার প্রধান হোতা বলে অভিযোগ রয়েছে। ইতিমধ্যে অবৈধভাবে পাহাড় কাটার দায়ে আক্তার মিয়া ৪মাস জেল খেটে জামিনে এসে পুনরায় পাহাড় কাটা শুরু করেছেন। প্রতিদিন শত শত ট্রাক নিয়ে পাহাড় কেটে তারা মাটি বিক্রি করছে। ভরাট করছে নিচু জমি, পুকুর, জলাশয়, খাল ও গর্ত। এ ব্যাপারে স্থানীয় উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মো: আবুল কাশেম অবৈধভাবে পাহাড় কাটার মালিকগণের বিরুদ্ধে লিখিতভাবে একটি প্রতিবেদন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবরে গত বুধবার (২৯ জানুয়ারী) দাখিল করেছেন। অপরদিকে উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের লতুয়ামুড়া, খিরনাল, চানমুড়া, লক্ষ্মীপুর ও কসবা পৌর এলাকার আকবপুর গ্রামেও চলছে পাহাড় কাটার মহোৎসব। অথচ এসব এলাকায় ছড়িয়ে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের অনেক গৌরবোজ্জল স্মৃতি। ঐতিহাসিক স্থানগুলো নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার অশুভ পাঁয়তারা বন্ধে স্থানীয় ও উপজেলা প্রশাসন আরো সক্রিয় ভূমিকা পালন করা একান্ত প্রয়োজন।
স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো. আবুল কাশেম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি কোন পাহাড় খেকো ও ট্রাক্টর মালিককে চিনি না। তাদের সাথে লেনদেনের প্রশ্নই আসেনা।
এ ব্যাপারে বায়েক ইউ/পি চেয়ারম্যান মো: বিল¬াল হোসেন জানান, পাহাড় কাটা বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। বিষয়টি সংশি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। 
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জালাল সাইফুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বায়েক ইউনিয়নের কোল¬াপাথর ও মাদলা গ্রামের ২জন পাহাড় খেকোর বিরুদ্ধে গতকাল বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) কসবা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি বলেন, আইন প্রয়োগ করে পাহাড় কাটা বন্ধ করা সম্ভব নয়। যদি সমাজ সচেতন ব্যক্তিরা এগিয়ে না আসেন।