রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ছিনতাইয়ের প্রতিবাদ করায় সংঘবদ্ধ ছিনতাইদলের হামলায় দোকান ভাংচুর অবশেষে দু’মহল্লার সংঘর্ষ-বাড়িঘর ভাংচুর ॥ আহত ৪০

images-150x150মঙ্গলবার রাত ৮টা। পৌরসভার শেরপুর এলাকার ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক সংলগ্ন কবরস্থানের পাশ দিয়ে হেটে যাচ্ছিলেন এক পথচারী। মহাসড়কের পাশে রাখা বালুর স্তুপের আড়াল থেকে বেরিয়ে আসে ৩/৪জনের একটি সশস্ত্র ছিনতাইকারী দল। পথরোধ করে ঐ পথচারীর। দেশীয় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে পথচারীর কাছ থেকে মোবাইলসহ টাকা-পয়সা ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করলে পথচারী পাশ কাটিয়ে প্রাণভয়ে দৌড়ে এগিয়ে যায় কবরস্থান সংলগ্ন মাজার গেইটের সামনে কনফেকশনারী দোকান ফরহাদ স্টোরে। পিছু নিয়ে এগিয়ে আসা ছিনতাইকারীর কবল থেকে পথচারীকে রক্ষার চেষ্টা করেন উপস্থিত জনতা। এসময় ছিনতাইকারী দলের সাথে কথা কাটাকাটি হয় উপস্থিত কয়েকজনের সাথে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সশস্ত্র ছিনতাইকারী দল ফিরে গিয়ে রাত প্রায় সাড়ে ৯টায় আবার ফিরে আসে। ততক্ষণে সঙ্গী-সাথীও জুটিয়ে নিয়েছে দ্বিগুন। এবার হামলা করে কনফেকশনারী স্টোরে। নিরীহ দোকান মালিক ফরহাদ খান প্রাণভয়ে দোকানের চৌকির নিচে লুকান। মালিককে না পেয়ে ভাংচুর করা হয় দোকানের আসবাবপত্র, মালামাল। ছিনতাইকারী দলের একজন ক্যাশ বাক্সের ড্রয়ার খুলে যা আছে তাই পকেটে পুড়ে নেয়। সামনে থাকা বিকাশ ও বিভিন্ন প্রকার ফ্ল্যাক্সির ৬টি মোবাইল সেটও হাতিয়ে নেয়। ততক্ষণে খবর পেয়ে সদর মডেল থানার পুলিশও হাজির হয় ঘটনাস্থলে। এ অবস্থায় পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুঁেড় ছিনতাইকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 
উপস্থিত লোকজন পুলিশকে জানান, ছিনতাইকারী দলটি পাশের বিভিন্ন মহল্লার। ছিনতাই করায় তাদের পেশা। ছিনতাইয়ের প্রতিবাদ করায় তারা এক জোট হয়ে এ হামলা চালিয়েছে। 
এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে শেরপুরের সাবেক কাউন্সিলর মরহুম রাশেদ মিয়ার বাড়ির সামনে চৌরাস্তার মোড়ে থাকা ছয়ঘড়িয়াপাড়া বাসিন্দা রতন মিয়ার ভাড়া নেওয়া ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে ও কাজলের বাড়িতে ভাংচুর চালায় শেরপুর এলাকার কয়েকজন যুবক। গত মঙ্গলবার রাতেই দোকানে হামলা-ভাংচুরের বিষয়ে সদর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন কনফেকশনারী স্টোরের স্বত্ত্বাধিকারী ফরহাদ খান। 
সূত্র জানায়, গতকাল বুধবার সকালে শেরপুরের নেতৃস্থানীয় কয়েকজন কাজল মিয়ার বাড়িতে গিয়ে অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে এর মিমাংসার আবেদন জানান। সূত্র আরো জানায়, বুধবার সকালে পৌর মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন, আলহাজ্ব ইলিয়াস খান, ছয়ঘড়িয়াপাড়ার আলহাজ্ব শাহজাহানসহ ছয়ঘড়িয়াপাড়া, পৈরতলা ও শেরপুরের নেতৃস্থানীয় মুরব্বীগণ ভাংচুরকৃত বাড়ি ও দোকানগুলো পরিদর্শন করেন। এসময় পৌর মেয়র গতকালই নেতৃস্থানীয় মুরব্বীগণকে ভাংচুরের ঘটনা মিমাংসার জন্য পৌরসভায় এসে শালিসের তারিখ নির্ধারণের আহ্বান জানান। 
এদিকে গত মঙ্গলবার রাতে ছিনতাইকারীর হামলার পর অনাকাক্সিক্ষত ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোর রেশ ধরে গতকাল বুধবার সকাল প্রায় ১০টার দিকে ছয়ঘড়িয়াপাড়ার রতন মিয়ার ছেলে শামীম মারধর করে শেরপুর এলাকার বাবুলের ছেলে অন্তরকে। এসময় ছয়ঘড়িয়াপাড়ার অপর একটি দল দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে শেরপুরের পশ্চিম পার্শ্বে অবস্থিত ফরিদ খা’র বাড়ি ভাংচুর করে। এর বাঁধা দিতে গিয়ে শেরপুর ও ছয়ঘড়িয়াপাড়ার লোকজন জড়িয়ে পড়ে সংঘর্ষে। থেমে থেমে সংঘর্ষের সময় বেশ কয়েকটি হাতবোমার বিষ্ফোরণ ঘটায় আক্রমণকারী দল। এ ঘটনায় উভয়পক্ষের কমপক্ষে ৪০জন আহত হয়। তারা শেরপুরের হেবজু খান ও পলাশ খানের বাড়িসহ ৬টি বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। সংঘর্ষের খবর সদর মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আনতে ২০ রাউন্ড রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। রাবার বুলেটে গুরুতর আহত শিশু সবুজ (১২)কে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। আহত হয়েছেন শিপন খান (৩০), জুয়েল খান (২২), সাইদুল (১৮), ফরিদ খান (৬০), শাহাবুদ্দিন খান (৩২), মোরশেদ মিয়া (৪৫)। গুলিবিদ্ধ হাসিব (২৪), হাফেজ (২২), আশরাফুল (২৮), ইয়াকুব (২৮), লিটন (১২), ইকরাম (১৪), নজরুল ইসলাম (৫৬), ইউনুছ মিয়া (৭০), শরীফ (৩৩) মিলন (১৭)কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ও আহত অন্যান্যদেরকে বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুর রব জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। অনাকাক্সিক্ষ ঘটনা এড়াতে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।