বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আগামীকাল ২৫ জানুয়ারী হতে ১৩ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত জেলায় হাম রুবেলা টিকাদান কর্মসূচী সফলের আহ্বান

হাম একটি ভাইরাস জনিত মারাত্মক সংক্রামক রোগ। এটি সাধারণতঃ একজন আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে আসা সুস্থ অন্যদের মধ্যে হাঁচি, কাশির মাধ্যমে অতিদ্রুত ছড়ায়। শিশু ছাড়াও যে কোন বয়সের মানুষ হাম আক্রান্ত হতে পারে। তবে শিশুদের মাঝেই এর প্রকোপ, জটিলতা এবং মৃত্যু বেশি দেখা যায়। জটিলতা গুলোর মধ্যে নিউমোনিয়া ডায়রিয়া অপুষ্টি অন্ধত্ব বধিরতা এনকেফালাইটিস ইত্যাদি অন্যতম। এই হাম রোগ এবং এর জটিলতার কবল থেকে বাঁচার সর্বোৎকৃষ্ট উপায় হচ্ছে সঠিক সময়ে শিশুকে হামের টিকা দিয়ে সুরক্ষিত করা। আর রুবেলা একটি ভাইরাস জনিত অত্যন্ত সংক্রামক রোগ। এই রোগের জীবাণু প্রধানতঃ বাতাসের সাহায্যে শ্বাসতন্ত্রের মাধ্যমে সুস্থ শরীরে প্রবেশ করে ও রুবেলা রোগের লক্ষণ দেখা দেয়। গর্ভবতী মায়েরা গর্ভের প্রথম ৩ মাসের সময় রুবেলা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হলে শতকরা ৯০ ভাগ ক্ষেত্রে মা থেকে গর্ভের শিশু আক্রান্ত হতে পারে। সে ক্ষেত্রে গর্ভপাত এমনকি মায়ের পেটে অবস্থানরত শিশুর মৃত্যুও হতে পারে অথবা শিশু জন্মগত বিভিন্ন জটিলতা নিয়ে পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করে, যা কন্জেনিটাল রুবেলা সিনড্রোম (সিআরএস) নামে পরিচিত। এই রোগ এবং এর জটিলতার কবল থেকে বাঁচার সর্বোৎকৃষ্ট উপায় হচ্ছে সঠিক সময়ে শিশুকে রুবেলার টিকা দিয়ে সুরক্ষিত করা। 
এহেন হাম রুবেলা রোগের প্রকোপ থেকে সুরক্ষার জন্য বাংলাদেশ সরকার এর সম্প্রসারিত টিকাদান (ইপিআই) কর্মসূচীর মাধ্যমে নিয়মিত কর্মসূচীতে সংযুক্ত এম আর টিকার আওতায় ২১তম জাতীয় টিকা দিবসের দ্বিতীয় পর্বে আগামীকাল ২৫ জানুয়ারী হতে হাম রুবেলা টিকাদান ক্যাম্পেইন শুরু হচ্ছে সারা দেশ ব্যাপী। এই কর্মসূচী বাস্তবায়নে সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি সফলতার লক্ষ্যে গতকাল ২৩ জানুয়ারী দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে শহীদ ডাঃ মিলন সভা কক্ষে স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্যোগে জেলা পর্যায়ের প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়। আর এম ও ডাঃ মোঃ আবু সাঈদ এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন নবাগত সিভিল সার্জন ডাঃ নারায়ন চন্দ্র দাস, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ শওকত হোসেন, ইপি আই সুপারিনটেনডেন্ট মোঃ আমিনুল ইসলাম, সাংবাদিক আল আমিন শাহীন। বক্তারা জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের লক্ষ্যমাত্রা অনুসারে ২৫ জানুয়ারী হতে মাসের শেষ দিন পর্যন্ত স্কুলে এবং ১ ফেব্রুয়ারী হতে পরবর্তীতে ১৩ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত জেলার নির্ধারিত টিকাদান কেন্দ্র, পথ শিশু কর্মজীবি শিশুদেরকে কর্মস্থল এবং ভ্রাম্যমান টিকাদান কেন্দ্রে হাম রুবেলা টিকা দেয়া সফল করা ও শিশুর টিকা গ্রহণ পরবর্তীতে সামান্য জ্বর হতে পারে উল্লেখ করে সকলকে এসম্পর্কিত কোন ধরনের মিথ্যা তথ্য বা গুজবে কান না দেয়ার জন্য আহ্বান জানান। এ বছর জেলায় ০৯ মাস হতে ১৫ বছর বয়সী ১২ লক্ষ ২৮ হাজার ৯০৬ জন শিশুকে হাম রুবেলা (এমআর) টিকাদানের লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

যাত্রী বেশি হলে বিমানবন্দরে ল্যাব বাড়ানো হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬১

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাইল সেই ব্যাংক

মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সে বোমা আতঙ্ক, যেভাবে চলে অভিযান

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে এবার নওগাঁর আদালতে মামলা

আমিনবাজারে ৬ ছাত্র হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১৯ জনের যাবজ্জীবন

ওমিক্রন আতঙ্কে ভারত : ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় আবারও বাংলাদেশ

সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে, লঘুচাপটি শক্তিশালী হচ্ছে

নিয়ম ভেঙে তুলে নেওয়া হয় ৩৬৮৭ কোটি টাকা

এইচএসসিতে বসেছে প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থী

৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

কথা দিয়ে কথা রাখুন : কাদের