বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রুহুল-মান্নান-মাহবুবের সম্পদের খোঁজে দুদক : তালিকায় আছেন তিন বতর্মান ও এক সাবেক সাংসদ, তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ

017মহাজোট সরকারের সাবেক তিন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী, তিন বর্তমান সংসদ সদস্যসহ সাত জনের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধানে মাঠে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল বুধবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে এ ব্যাপারে সাত জনের জন্য পৃথক তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়েছে। অনুসন্ধান কর্মকর্তাদের কাছে ইতোমধ্যেই চিঠি ইস্যু করা হয়েছে। দায়িত্ব পেয়ে গতকাল থেকেই তারা অনুসন্ধান কাজ শুরু করেছেন বলে জানা গেছে।
এ বিষয়ে দুদক চেয়ারম্যান মোঃ বদিউজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপি-আওয়ামী লীগÑ যার বিরুদ্ধেই অভিযোগ প্রমাণিত হবে, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। সাত জনের বিরুদ্ধে পত্রিকার মাধ্যমে অভিযোগ পেয়েছি। এদের মধ্যে ছয় জন মন্ত্রী, এমপি ও একজন ব্যবসায়ী রয়েছেন। আমরা হলফনামা যাচাই-বাছাই করবো। এর বাইরেও যদি কারো কিছু থাকে সেটিও পরীক্ষা করা হবে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এই অনুসন্ধান কার্যক্রমের মূল লক্ষ্য থাকবে অভিযুক্ত মন্ত্রী-এমপিরা কোনো সম্পদ গোপন করেছেন কিনা, তা খুঁজে বের করা।
যাদের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান চলছে তারা হলেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আ ফ ম রুহুল হক, সাবেক গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট আব্দুল মান্নান খান, সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মাহবুবুর রহমান, কক্সবাজার-৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদি, ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আসলামুল হক, রাজশাহী-৪ আসনের এনামুল হক ও পটুয়াখালী-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এম এ জব্বার। এদের মধ্যে জব্বার জাতীয় পার্টির, তিনি দশম সংসদ নির্বাচনে দল থেকে মনোনয়ন পাননি। মান্নান খান নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে ঢাকা-১ আসনে জাতীয় পার্টির সালমা ইসলামের কাছে হেরেছেন। এছাড়া বাকি পাঁচ জনই আওয়ামী লীগের টিকেটে নবম সংসদে থাকার পর দশম সংসদ নির্বাচনেও নির্বাচিত হয়েছেন। তবে রুহুল হক সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেও মন্ত্রিত্ব পাননি।
দুদক সূত্র জানায়, কমিশনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক উক্ত সাত জনের হলফনামায় উল্লিখিত সম্পদের পরিমাণ অস্বাভাবিক মনে হওয়ায় তা অনুসন্ধান করা হচ্ছে। এ জন্য পৃথক কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী আ ফ ম রুহুল হকের অবৈধ সম্পদের তদন্তে দায়িত্ব পেয়েছেন দুদক উপ-পরিচালক মির্জা জাহিদ। সাবেক গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট আব্দুল মান্নান খানের সম্পদ অনুসন্ধানে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে দুদক উপ-পরিচালক নাসির উদ্দিনকে। দুদক উপ-পরিচালক খাইরুল হুদা তদন্ত করবেন সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মাহবুবুর রহমানের অবৈধ সম্পদ। আসলামুল হকের সম্পদের তদন্ত করবেন দুদক উপ-পরিচালক শেখ ফাইয়াজ আলম, সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদির সম্পদ অনুসন্ধান করবেন দুদক উপ-পরিচালক আহসান আলী, সংসদ সদস্য এনামুল হকের তদন্ত করবেন উপ-পরিচালক সৈয়দ তাহসানুল হক এবং সাবেক সংসদ সদস্য এম এ জব্বারের সম্পদ তদন্তে রয়েছেন দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক মাসুদুর রহমান।
তাদের বিরুদ্ধে যতো অভিযোগ : সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক। পাঁচ বছর আগে নির্বাচনী মাঠে নামার সময় রুহুল হক এবং তার স্ত্রীর নামে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত টাকার পরিমাণ ছিল ৯২ লাখ ৩৬ হাজার ১০৮ টাকা। এখন তাদের ব্যাংক ব্যালেন্সের পরিমাণ প্রায় ১০ কোটি ১৫ লাখ ৯৪ হাজার ৭৬৩ টাকা।
২০০৮ সালে স্ত্রী ইলা হকের নামে ব্যাংক ব্যালেন্স ছিল মাত্র ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৩০ টাকা। যা বর্তমানে ৭ কোটি ৫৩ লাখ ১১ হাজার ২৪০ টাকা। এ ক্ষেত্রে সম্পদ বৃদ্ধির হার প্রায় ১৬৫ গুণ। অন্যদিকে রুহুল হকের ব্যাংক ব্যালেন্স ২০০৮ সালে ছিল প্রায় ৮৮ লাখ টাকা। বর্তমানে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ২ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। ব্যাংক ব্যালেন্সের অধিকাংশ স্ত্রী ইলা হকের নামে। নির্বাচন কমিশনে দেয়া হলফনামা অনুসারে সামগ্রিকভাবে ২০০৮ সালের তুলনায় তার অস্থাবর সম্পদ ৪ গুণ বেড়েছে। ২০০৮ সালে রুহুল হক এবং তার স্ত্রীর মোট অস্থাবর সম্পদের
পরিমাণ ছিল ৪ কোটি টাকার কিছু বেশি। ২০১৩ সালে সম্পদের পরিমাণ ১৬ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে ১০ কোটি টাকা ব্যাংক ব্যালেন্স হিসেবে রাখা আছে। এককভাবে তার স্ত্রী ইলা হকের সম্পদের পরিমাণ বেড়েছে ৮ গুণ। আগে তার নামে অস্থাবর সম্পত্তি ছিল মোট ৯৫ লাখ টাকা মূল্যের। বর্তমানে তা ৮ কোটি ৩৯ লাখ টাকা ছাড়িয়েছে।
সাবেক গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট আব্দুল মান্নান খান। পাঁচ বছর আগে তার সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ১০ লাখ ৩৩ হাজার টাকা। গত পাঁচ বছরের ব্যবধানে সেটা বেড়ে হয়েছে ১১ কোটি তিন লাখ টাকা। আগে তার বার্ষিক আয় ছিল ৩ লাখ ৮৫ হাজার টাকা। বর্তমানে সেই আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে বছরে তিন কোটি ২৮ লাখ টাকা। পাঁচ বছরের মন্ত্রিত্বকালে তার সম্পত্তি পরিমাণ বেড়েছে ১০৭ গুণ।
সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মাহবুবুর রহমান। গত পাঁচ বছরে ২০ একর জমি থেকে ২ হাজার ৮৬৫ একর জমির মালিক হয়েছেন তিনি। পাঁচ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র ছাড়া কোনো স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি না থাকা স্ত্রীর নামে এখন ১ কোটি ২৬ লাখ ৭১ হাজার টাকার সম্পদ রয়েছে। নিজের ৩৬ লাখ ৩৩ হাজার ১১২ টাকার স্থাবর সম্পত্তি ৫ বছরের ব্যবধানে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ কোটি ২৫ লাখ ৬৬ হাজার ৭২ টাকা।
কক্সবাজার-৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদি। জীবনে প্রথম সংসদ সদস্য হওয়ার পর ৫ বছরে তার আয় বেড়েছে ৩৫১ গুণ। আর নিট সম্পদ বেড়েছে ১৯ গুণের বেশি। অভিযোগ রয়েছে, হলফনামায় বদি কেবল আয়কর বিবরণীতে প্রদর্শিত অর্থ ও সম্পদের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি গত ৫ বছরে আয় করেছেন ৩৬ কোটি ৯৬ লাখ ৯৯ হাজার ৪০ টাকা। টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে মায়ানমারের সঙ্গে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য ও টেকনাফে জ্বালানি তেলের ব্যবসা করে এ টাকা অর্জন করেছেন বলে নির্বাচন কমিশনের দেয়া হলফনামায় উল্লেখ করেছেন তিনি। হলফনামা অনুসারে এমপি বদির এখন বার্ষিক আয় ৭ কোটি ৩৯ লাখ ৩৯ হাজার ৮০৮ টাকা। আর বার্ষিক ব্যয় ২ কোটি ৮১ লাখ ২৯ হাজার ৯২৮ টাকা।
এর আগে ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জমা দয়া হলফনামায় তার বার্ষিক আয়ের পরিমাণ উল্লেখ করা হয় ২ লাখ ১০ হাজার ৪৮০ টাকা। আর ব্যয় ছিল ২ লাখ ১৮ হাজার ৭২৮ টাকা। তখন (২০০৮) বিভিন্ন ব্যাংকে আব্দুর রহমান বদির মোট জমা ও সঞ্চয়ী আমানত ছিল ৯১ হাজার ৯৮ টাকা। পাঁচ বছরের মাথায় এসে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ কোটি পাঁচ লাখ ১০ হাজার ২৩৭ টাকা। তার হাতে ২০০৮ সালের নভেম্বরে নগদ টাকা ছিল ২ লাখ সাত হাজার ৪৮ টাকা। যা বর্তমানে ৫০ লাখ টাকা। এছাড়া এখন স্ত্রীর কাছে নগদ টাকা আছে ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ২৬৫ টাকা।
রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য এনামুল হক। ২০০৮ সালে তার বেতন-ভাতা থেকে বার্ষিক আয় ছিল ২০ লাখ টাকা। পাঁচ বছর পরে এখন কৃষি, বাড়ি ও দোকান ভাড়া, ব্যবসা ও পেশা থেকে বছরে তার আয় হয় ৫০ লাখ টাকা। পাঁচ বছর আগে তার ওপর নির্ভরশীলদের ৭ লাখ ৫১ হাজার ৬শ টাকা বার্ষিক আয় থাকলেও এবারের হলফনামায় নির্ভরশীলদের কোনো আয়ের উৎস নেই। তার নিজের, স্ত্রীর ও নির্ভরশীলদের মোট ১৬ কোটি ১৮ লাখ ৫০ হাজার টাকার সাধারণ শেয়ার থেকে কোনো আয় নেই। পাঁচ বছর আগে তার স্ত্রীর থাকা ২ কোটি ৮৯ লাখ ৬৩ হাজার টাকার অস্থাবর সম্পদ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ কোটি ৩৪ লাখ ৬৫ হাজার ৫শ টাকায়। এর মধ্যে এবার নিজের হাতে নগদ রয়েছে ১০ লাখ টাকা ও স্ত্রীর হাতে পাঁচ লাখ টাকা। নিজ নামে ব্যাংকে আছে ৮ লাখ ৫৮ হাজার ৯১ টাকা ও স্ত্রীর নামে এক লাখ ৫৫ হাজার ৫শ টাকা।
ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আসলামুল হক। নির্বাচন কমিশনে ঢাকা-১৪ আসনের সরকারদলীয় এই সাংসদের দেয়া হলফনামা বিশ্লেষণে দেখা যায়, তিনি ২০০৮ সালের নবম সংসদ নির্বাচনের আগে দেয়া হলফনামায় বলেছেন, তিনি ও তার স্ত্রী মাকসুদা হক ৪ একর ১৯ দশমিক ৫ শতাংশ জমির মালিক। এসব জমির দাম দেখিয়েছেন ২০ লাখ ৬৯ হাজার ৫০০ টাকা। আর দশম সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ১ ডিসেম্বর জমা দেয়া হলফনামায় বলেছেন, আসলামুল হক ও তার স্ত্রী এখন ১৪৫ দশমিক ৬৭ একর (১৪ হাজার ৫৬৭ দশমিক ৫৪ শতাংশ) জমির মালিক। জমির দাম উল্লেখ করা হয়েছে এক কোটি ৯২ লাখ ৯৯ হাজার ৫০০ টাকা। দুই হলফনামা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, পাঁচ বছরে স্বামী-স্ত্রীর জমি বেড়েছে ১৪০ একরের বেশি। আর বাড়তি এই জমির মূল্য দেখিয়েছেন এক কোটি ৭২ লাখ ৩০ হাজার টাকা, যা অবিশ্বাস্য।
পাঁচ বছরে আসলামুল হকের শুধু সম্পদই বাড়েনি, বেড়েছে শিক্ষাগত যোগ্যতাও। ২০০৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি ছিলেন অষ্টম শ্রেণী পাস। আর এখন তিনি বিবিএতে (স্নাতক ব্যবসায় প্রশাসন) অধ্যয়নরত বলে হলফনামায় উল্লেখ করেছেন।