বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নির্বাহী বিভাগ ও বিচার বিভাগের মধ্যে ‘সেতুবন্ধ’হতে চাই- আনিসুল হক

anisul haqe

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, তিনি নির্বাহী বিভাগ ও বিচার বিভাগের মধ্যে ‘সেতুবন্ধ’ হিসেবে তিনি কাজ করতে চান।
যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকে প্রথম অগ্রাধিকার হিসেবে উল্লেখ করে যতো দ্রুত সম্ভব ‘৪২ বছরের জঞ্জাল’ দূর করারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। 

রোববার প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পর সাংবাদিকদের এ কথা বলেন আনিসুল হক।

দুপুর ২টার দিকে প্রধান বিচারপতির কার‌্যালয়ে আসেন মন্ত্রী। বেরিয়ে যান বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে।

এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “আমি মূলতঃ নির্বাহী বিভাগ ও বিচার বিভাগের মধ্যে সেতুবন্ধ হিসেবে কাজ করব। সে উদ্দেশ্যেই প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে এসেছি। তাকে আমি গুরুত্বের সঙ্গে বলেছি যে আদালতের মামলাজটের কারণে জনগণ দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। মামলাজট কমিয়ে আনার জন্য আদালতের যা যা সহায়তা দরকার, তা আমাদের জানান, আমরা ব্যবস্থা নেব।”

প্রথমবারের মতো সাংসদ নির্বাচিত হয়েই মন্ত্রীর দায়িত্বে আসা আনিসুল হক বলেন, “আমি মন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়েছি এক সপ্তাহও হয়নি। এতো দ্রুত সবকিছু করা সম্ভব নয়। তবে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবে। দিস ইজ মাই ফার্স্ট প্রায়োরিটি।”

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীর চাকরির মেয়াদ শেষে অবসরে যাওয়ায় বর্তমানে ওই ট্রাইব্যুনালের কার‌্যক্রম একপ্রকার বন্ধ রয়েছে। এ বিষয়েও দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান আইনমন্ত্রী।

“যতো দ্রুত সম্ভব ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান নিয়োগ দেয়া হবে। ৪২ বছরের এ জঞ্জাল তড়িৎ শেষ করার ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ দেখাবে। বিচার বিভাগের কাজেও কোনো হস্তক্ষেপ করা হবে না।