মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তিন যুগ পর পূর্ণাঙ্গ মন্ত্রী পাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসী

Anisul Haqবঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার প্রধান কৌসুলি এবং বিডিআর হত্যা মামলা ও দুদক মামলাসহ রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ অনেক মামলা পরিচালনাকারী বিশিষ্ট আইনজীবী আনিসুল হক এবার মন্ত্রী হয়েছেন।

তিনি মন্ত্রী হয়েছেন শুনে তার নির্বাচনী এলাকা কসবা ও আখাউড়া উপজেলাসহ গোটা জেলার মানুষ আনন্দিত।

জানা যায়, রোববার বিকেলে আইনমন্ত্রী হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ নিয়েছেন আনিসুল হক। তার এলাকার জনগণ বলছেন, ক্লিন ইমেজধারী এই মানুষটি শেষ পর্যন্ত অবদান ও যোগ্যতার পুরস্কার পেলেন।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত আনিসুল হক মন্ত্রী হওয়ায় প্রায় তিন যুগ পর পূর্ণাঙ্গ মন্ত্রী পেলো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষ।

আনিসুল হকের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার পানিয়ারূপ গ্রামে। তার বাবা মৃত সিরাজুল হক বাচ্চু ছিলেন ওই এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য ও বঙ্গবন্ধুর পরিবারের ঘনিষ্ঠজন। আনিসুল হকের বাবা-মা দু’জনই ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা।

এলাকার নেতাকর্মীরা বাংলানিউজকে জানান, কসবা-আখাউড়ার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের অনুরোধে আনিসুল হক সংসদ সদস্য পদে নির্বাচনে অংশ নেন। যোগ্য এই নেতা মন্ত্রী হওয়ায় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি জেলাবাসীও আনন্দ জোয়ারে ভাসছে।

আখাউড়া পৌরসভার মেয়র যুবলীগ নেতা তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে আনিসুল হকই ছিলেন কসবা-আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের চাওয়া। কিন্তু দলটির জেলা পর্যায়ের পদে থাকা নেতারা তৎকালীন সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শাহ আলমের পক্ষে অবস্থান নেওয়ায় আনিসুল হক কতদূর এগুতে পারবেন এ নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়। এছাড়া নির্বাচনে অংশ নিতে আনিসুল হককে রাজি করাতে পারছিলেন না তার সমর্থকরা। একপর্যায়ে আনিসুল হক রাজি হলে তার সমর্থকরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন। শেষপর্যন্ত তিনিই বিজয়ী হন। অনেক বছর পর আমাদের জেলায় মন্ত্রী পেয়ে আমরা ভীষণ খুশি। এখন এই মন্ত্রী এলাকার উন্নয়নে অবদান রাখবেন-এটাই আমাদের প্রত্যাশা।
 
কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন ভূঁইয়া বকুল বলেন, আনিসুল হকের মতো একজন মানুষকে মন্ত্রী হিসেবে পেয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষ অত্যন্ত আনন্দিত।

উল্লেখ্য, ১৯৭৮ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা থেকে সর্বশেষ হাবিবুর রহমান পাটমন্ত্রী হয়েছিলেন।