মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রীর শিঁকে ছিড়েছে ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় ভাগ্যে।আইনমন্ত্রীর দায়িত্ব পাচ্ছেন অ্যাডভোকেট আনিসুল হক।

দেশ স্বাধিন হবার পর এবারই ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় ভাগ্যে মন্ত্রীর শিঁকে ছিড়েছে পরিপূর্ণভাবে। তিন যুগ পর পূর্ণ মন্ত্রীত্বের স্বাদ পেতে যাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসী। তবে শুধু একজন নয়। দুজন পূর্ণ মন্ত্রী পেতে যাচ্ছে ব্রাক্ষণবাড়িয়া। এর আগে ১৯৭৮ সালে নবীনগরের সন্তান হাবিবুল্লাহ খান ছিলেন তথ্য ও বেতার মন্ত্রী। স্বাধীনতা পরবর্তীতে ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীর পূর্নমন্ত্রী প্রাপ্তি এই একজনই। আরো পিছনে গেলে ১৯৫৬ সালে জেলা শহরের পুনিয়াউটের বাসিন্দা আব্দুর রহমান খান ছিলেন পাটমন্ত্রী।

৫ জানুয়ারী দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন সমাপ্ত হয়েছে। দেশের ৩০০ আসনের মধ্যে একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় যেসব আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছে সেগুলোর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ এর কসবা-আখাউড়া নির্বাচনী এলাকা একটি। ওই আসন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী এডভোকেট আনিসুল হক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।নতুন সরকারের আইনমন্ত্রীর দায়িত্ব পাচ্ছেন এবারই প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়া অ্যাডভোকেট আনিসুল হক। নির্বাচনের পর এলাকাবাসীকে অভিনন্দন জানিয়ে এলাকায় দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার সাঁটানো হয়েছে। এই আসনে অতীতে যেসব এম.পি নির্বাচিত হয়েছে তার দল সরকার গঠন করেছে, এবারও এর ব্যত্যয় ঘটেনি। ১৯৭০ সালে জাতীয় পরিষদের এ আসনের বিস্তৃতি ছিল বর্তমান কসবা, আখাউড়া, বুড়িচং ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা। তখন এ আসন থেকে নির্বাচিত হন এডভোকেট আনিসুল হকের পিতা এডভোকেট সিরাজুল হক। তিনি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ট সহচর এবং ১৯৭২ এ বাংলাদেশ সংবিধান প্রণেতাদের অন্যতম। ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশর প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তিনি জাতীয় পরিষদের সংসদ নির্বাচিত হয়েছেন। দু’বারের সফল এম.পি এডভোকেট সিরাজুল হক এর সুযোগ্য সন্তান হিসেবে এবার প্রথমবার নির্বাচনে অংশ নেন।

তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা, জাতীয় চারনেতা হত্যা মামলার প্রধান কৌশলী। এছাড়া বিডিআর হত্যা মামলা, দুদকের মামলাসহ রাষ্ট্রীয় অনেক গুরুত্বপূর্ণ মামলা পরিচালনা করেছেন তিনি। ক্লিন ইমেজের মানুষ হিসেবে পরিচিত আনিসুল হক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

আনিসুল হকের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার পানিয়ারুপ গ্রামে। তিনি সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী। আনিসুল হকের প্রয়াত পিতা সিরাজুল হক ওরফে বাচ্চু ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য ও বঙ্গবন্ধুর পরিবারের ঘনিষ্ঠজন। আনিসুল হকের বাবা-মা দু’জনই মুক্তিযোদ্ধা।

বাবার পথ ধরে এবারই প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন অ্যাডভোকেট আনিসুল হক। বাবা সংসদ সদস্য সিরাজুল হকের ছেলে অ্যাডভোকেট আনিসুল হক। তিনি কিনা বঙ্গবন্ধু হত্যামামলায় রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌঁসুলি ছিলেন। সফলভাবে দায়িত্ব পালন করে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় বিচার সম্পন্ন করতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করেছেন।
একই সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, মুহাম্মদ মনসুর আলী এবং আবুল হাসনাত মোহাম্মদ কামরুজ্জামান হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি হিসেবে। এর সঙ্গে আরও আছে, বিডিআর হত্যামামলা, দুদকের প্রধান আইনজীবী এবং তারেক রহমানের মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী। আনিসুল হক এবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া) থেকে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছেন।

১৯৭০ সালে জাতীয় পরিষদের এ আসনের বিস্তৃতি ছিল বর্তমান কসবা, আখাউড়া, বুড়িচং ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা। তখন এ আসন থেকে নির্বাচিত হন এডভোকেট আনিসুল হকের পিতা এডভোকেট সিরাজুল হক। তিনি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ট সহচর এবং ১৯৭২ এ বাংলাদেশ সংবিধান প্রণেতাদের অন্যতম। ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশর প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তিনি জাতীয় পরিষদের সংসদ নির্বাচিত হয়েছেন। দু’বারের সফল এম.পি এডভোকেট সিরাজুল হক এর সুযোগ্য সন্তান হিসেবে এবার প্রথমবার নির্বাচনে অংশ নেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জাতীয় চার নেতা হত্যা মামলার প্রধান কৌশলী এডভোকেট আনিসুল হক। নির্বাচনোত্তর সংক্ষিপ্ত সমাবেশে তিনি বলেন, “দেশ ও জনগণের সেবা করার সুযোগ পেলে এলাকার সার্বিক উন্নয়নের চেষ্টা চালিয়ে যাবো”। ‘আইন বিশেষজ্ঞ’ হিসেবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও খ্যাতি অর্জন করেছে। তার দক্ষতা, নিষ্ঠা, বুদ্ধিমত্তা ও প্রজ্ঞার সুফল পেতে মন্ত্রী পরিষদের অন্তর্ভুক্তির আশাবাদী সচেতন মহল। তিনি মন্ত্রী হচ্ছেন বলে এলাকায় গুঞ্জন রয়েছে। 

ব্রাক্ষণবড়িয়া বাসীর জন্য ডাবল খুশী হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনের সাংসদ ছায়েদুল হকও মন্ত্রী হচ্ছেন। 

 

নতুন এবং অভিজ্ঞদের নিয়ে এবারের মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের তিন হেভিওয়েট নেতা তোফায়েল আহমেদ, আমির হোসেন আমু এবং মোহম্মদ নাসিম মন্ত্রিসভায় জায়গা পেয়েছেন। ২০০৯ সালের মন্ত্রিসভায় এই তিনজনের কেউই জায়গা পাননি ‘সংস্কারপন্থী’ হওয়ার অভিযোগে। অবশ্য এবারের নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভায় ছিলেন তোফায়েল ও আমু। এর আগে মন্ত্রিসভা সম্প্রসারণের সময় তোফায়েল আহমেদকে মন্ত্রিসভায় যোগ দেওয়ার প্রস্তাব দিলেও প্রত্যাখ্যান করেছিলেন তিনি। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগের মন্ত্রিসভার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এবং বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটনমন্ত্রী মোশারফ হোসেন এক যুগ পর ফিরে এলেন শেখ হাসিনার নতুন মন্ত্রিসভায়।

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননও নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভায় ছিলেন। তিনিও আগে মন্ত্রিসভা সম্প্রসারণের সময় মন্ত্রিত্বের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলেন।
১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার ঐকমত্যের সরকারের যোগাযোগমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এবার পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন।
১৯৯৬ সালের প্রতিমন্ত্রী ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ১২ বছর পর শেখ হাসিনার সরকারে ফিরলেন পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে।
এ ছাড়াও নতুন মুখ হিসেবে প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভায় যোগ দিয়েছেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জামান নূর, শেয়ারবাজারসহ নানা বিষয়ে বিতর্কিত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক সভাপতি আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল), বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড, বিডিআর হত্যাকাণ্ডসহ বেশ কয়েকটি মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী আনিসুল হক, নওগাঁ-৪ আসনের সাংসদ ইমাজউদ্দিন প্রাং, পাবনা-৪ আসনের সাংসদ শামসুর রহমান শরিফ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনের সাংসদ ছায়েদুল হক এবং মৌলভীবাজার-৩ আসনের সাংসদ সৈয়দ মহসীন আলী। ময়মনসিংহের আওয়ামী লীগের নেতা অধ্যক্ষ মতিউর রহমান টেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রিত্ব পেয়েছেন। আওয়ামী লীগের সাবেক এই সাংসদ এবার দলীয় মনোনয়ন পাননি। তাঁর আসনে জাতীয় পার্টির রওশন এরশাদ নির্বাচিত হয়েছেন।
জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদ শপথ নিয়েছেন মন্ত্রী হিসেবে।
প্রতিমন্ত্রী হিসেবে প্রথমবারের মতো সরকার পরিচালনায় দায়িত্ব পেয়েছেন আওয়ামী লীগের সাইফুজ্জামান চৌধুরী (চট্টগ্রাম-১৩), জাহিদ মালেক (মানিকগঞ্জ-৩), নারায়ণ চন্দ্র চন্দ (খুলনা-৫), জুনাইদ আহমেদ পলক (নাটোর-৩), এম এ মান্নান (সুনামগঞ্জ-৩), নসরুল হামিদ বিপু (ঢাকা-৩), মির্জা আজম (জামালপুর-৩), বীরেন শিকদার (মাগুরা-২), বীর বাহাদুর উ শৈ সিং (বান্দরবান), আসাদুজ্জামান খান কামাল (ঢাকা-১২), ইসমত আরা সাদেক (যশোর-৬), শাহরিয়ার আলম (রাজশাহী-৬) ও জাতীয় পার্টির মসিউর রহমান রাঙ্গা (রংপুর-১) এবং মুজিবুল হক চুন্নু (কিশোরগঞ্জ-৬)।
এর মধ্যে সাইফুজ্জামান চৌধুরী আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য আক্তারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর ছেলে। আর ইসমত আরা সাদেক সাবেক শিক্ষামন্ত্রী এ এস এইচ কে সাদেকের স্ত্রী।
উপমন্ত্রী হিসেবে জায়গা পেয়েছেন ভোলা-৪ আসনের সাংসদ আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এবং নেত্রকোনা-২ আসনের সাংসদ, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আরিফ খান জয়।

এ জাতীয় আরও খবর

অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ড : ‘মায় মোর আজও আইলোনা’

আ.লীগকে ব্যঙ্গ করায় শিবির নেতার ১০ বছরের জেল

বিএসএমএমইউয়ের আগুন নিয়ন্ত্রণে

দুই ক্যাম্পে ৪০ হাজার রোহিঙ্গার ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস

সাকিবের মতো ‘ভুল’ করে নিষিদ্ধ হচ্ছেন টেলর

মহামারিকালে স্কুল বন্ধ, দেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ শিশুর পড়াশোনা ব্যাহত : ইউনিসেফ

শাবি উপাচার্যের পদত্যাগের দাবি দ্রুত মেনে নেওয়ার আহ্বান সিলেটের নাগরিকদের

প্রেমের টানে ঝিনাইদহ থেকে রংপুরে তরুণী, অত:পর থানার ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা

অর্ধেক জনবলে চলবে ব্যাংক

করোনা : ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বেড়ে ১৪৮২৮, মৃত্যু ১৫

রাসেল ঝড়ে ঢাকার প্রথম জয়

মাদারীপুরে হত্যা মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড