বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধুর ৪৩ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

Halal-2স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের ৪৩ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগ। এ উপলক্ষে  হালদারপাড়াস্থ জেলা আওয়ামীলীগের অস্থায়ী কার্যালয় চত্তরে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বঙ্গবন্ধুর জীবন ও আদর্শ নিয়ে এবং স্বদেশ প্রত্যর্বতন দিবসের তাৎপর্য নিয়ে গুরুত্তপূর্ন বক্তব্য রাখেন আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ। সভায় জেলা আওয়ামীলগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, জেলা পরিষদ প্রশাসক এড. সৈয়দ এ.কে.এম এমদাদুল বারীর সভাপত্তিত্বে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র, জননেতা মোঃ হেলাল উদ্দিন, জেলা আওয়ামীলীগ ও ১৪ দলের সমন্বয়ক বীরমুক্তিযোদ্ধা আমানুল হক সেন্টু, যুগ্ন সম্পাদক সাবেক পৌর চেয়াম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ হেলাল উদ্দিন, শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী মোঃ মুসলিম মিয়া। সভায় জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবুর রহমান বাবুল এর পরিচালনায় অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, এডঃ নাজমুল হোসেন, হাবিবুল্লাহ বাহার, এড.নুর মোহাম্মদ জামাল, মো রফিকুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম দুলাল, এড. লোকমান হোসেন, এম. সাইদুজ্জামান আরিফ, মোঃ আলী আজম, মুফতি নুরুল ইসলাম, মশিউর রহমান লিটন, আলম তারা দুলি, গোলাম মোস্তফা রাফি, মোঃ মাসুম বিল্লাহ, রবিউল হোসেন রুবেল প্রমুখ। সভার শুরুতে বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। সভায় বক্তাগন বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙ্গালীর স্বাধিকার আন্দোলনের অবিসংবাদী নেতা। তিনি হাজার বছরের শৃংখলিত বাঙ্গালী জাতি কে স্বাধীনতার স্বপ্ন দিখিয়েছেন। সেই স্বপ্ন পুরুনের আন্দোলনে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দিয়েছেন। অসংখ্যবার জেল বন্দি থেকেও তিনি আর মহান আদর্শ ও উদ্দেশ্য থেকে পিছপা হননি। ৭ মার্চের ঐতিহাসিক স্বাধীনতার ভাষন ও ২৬ মার্চের মুক্তিযুদ্ধের ঘোষনা দিয়ে বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের উদ্বোধয় ঘটিয়েছিলেন। মুক্তিযুদ্ধকালিন ৯মাস পাকিস্থানী শাষক গোষ্ঠি জেলেবন্দি মুজিবকে মৃত্যু ভয় দেখিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা কে কিনে নিতে পারে নি। বক্তাগন আরো বলেন, বাংলাদেশের স্থপতি, বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বাংলাদেশ কে শুধু স্বাধীনতা এনে দেননি। তিনি যুদ্ধ বিদ্ধস্থ বাংলাদেশ কে পূনর্গঠন করেছিলেন বলিষ্ঠ হাতে। চারিদিকে বিধস্ত ঘরবাড়ি, লাসের স্তুুপ, ধর্ষিতা মা বোনের আতœ চিৎকার, ক্ষুধার্থ মানুষের হাহাকার থেকে, ধর্য্য ও বিচক্ষনতায় সাথে অতি অল্প সময়ে তিনি বাংলাদেশ কে একটি মজবুত ভিতের উপর দাড় করিয়ে ছিলেন। যার  সুফল আজও আমরা ভোগ করছি। বক্তরা বলেন, বঙ্গবন্ধু যদি স্বদেশে ফিরে না আসতে পারতেন, তাহলে অন্যকেও সেই সময়কার কঠিন চ্যেলেজ্ঞ  মোকাবেলা করতে পারতো না। আজ হয়তো আমরা ক্ষুদা-দারিদ্র মুক্ত, খ্যদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ন, ডিজিটাল বাংলাদেশ পেতাম না। তাই বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের তাৎপর্য্য বাঙ্গালীর ইতিহাসে অতন্ত গুরুত্ত পূর্ন। বক্তারা বঙ্গবন্ধুর মহান আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে রাজাকার মুক্ত, সাম্প্রদায়িক অপশক্তি মুক্ত, মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদ মুক্ত বাংলাদেশ গঠনে দেশ প্রমিক সকল নাগরিক দের প্রতি আহবান জানান।