মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

যে কারণে শপথ গ্রহণে তাড়াহুড়া

Parlamentনব নির্বাচিত এমপিরা অনেকেই জানেন না শপথ গ্রহণ নিয়ে কেন এত তাড়াহুড়া করা হচ্ছে সরকারের তরফ থেকে। তারা এর পেছনের কারনও খোঁজার চেষ্টা করছেন। তবে এর যথাযথ উত্তর পাচ্ছেন না। এদিকে তারা তা না জানলেও বুধবার শপথ গ্রহনের প্রস্তুতির সব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়। এমপিদের সবাইকে সন্ধ্যা নাগাদও তাদের সবাইকে শপথ গ্রহনের বিষয়ে জানানো হয়নি। একজন নতুন এমপি বলেন, আমি এমপি হয়েছি অথচ আমাকে জানানো হয়নি শপথ গ্রহণের জন্য। পরে আমি মিডিয়ার মাধ্যমেই সেটা জানতে পেরেছি। আমাদেরকে জানানো হবে না। বিশেষ সূত্র বলেছে, নানা আশঙ্কার কারণেই সরকার এনিয়ে তাড়াহুড়া করছে।

সূত্র জানায়, অজানা আশঙ্কার কারণেই সরকার নব নির্বাচিত এমপিদের শপথ গ্রহণ নিয়ে তাড়াহুড়া করছেন। এর পেছনের মূল উদ্দেশ্য যত দ্রুত সম্ভব সরকার গঠন করা। এই নির্বাচনকালীণ সরকার বেশি দিন না রাখা। কোন ধরনের সংকট তৈরির সুযোগ না দেয়া। কারণ আন্তর্জাতিক মহল নানা দিক থেকে সরকারের উপর চাপ দিতে চাচ্ছে। সেই হিসাবে তারা চেষ্টা করতে পারেন কঠোর কোন সিদ্ধান্ত নেয়ার। নির্বাচন বাতিল করার জন্যও সরকারের প্রতি অনুরোধ করে সব দলের অংশগ্রহণে দ্রুত নির্বাচন দিতে বলতে পারে। এছাড়াও অবরোধও আরোপ করতে পারে। আন্তর্জাতিক শক্তির মধ্যে ভারত ছাড়া অন্য সবাই মিলে বাংলাদেশের ব্যাপারে তাদের করনীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বৈঠক করবে বলে জানা গেছে। তা করে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললে তখন বাংলাদেশকে সেটা মানার বাধ্যবাধকতাও দেয়া হতে পারে। সেই হিসাবে সরকার ওই ধরনের কোন ঝুঁকি নিতে চাইছে না। যত দ্রুত সম্ভব শপথ গ্রহণ ও সরকার গঠন করতে চাইছে। এই জন্য বৃহস্পতিবার সকালেই এমপিদের শপথ হতে যাচ্ছে। এরই অংশ হিসাবে আইনসভার সদস্য হিসাবে বৃহস্পতিবার শপথ নিবেন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত সংসদরা। সকাল ১০টায় জাতীয় সংসদ ভবনে সংসদ কক্ষে এই শপথ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। এই বিষয়টি সংসদ সচিবালয়ের জনসংযোগ বিভাগের পরিচালক জয়নাল আবেদীন নিশ্চিতও করেছেন। নিয়ম ও সংবিধান অনুযায়ী বর্তমান স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করাবেন।

এদিকে বুধবার নির্বাচন কমিশন নব নির্বাচিত এমপিদের নামে গেজেট প্রকাশের জন্য অনুমোদন দেয়ার পর তাদের নাম, পিতা, মাতার নাম এবং ঠিকানাসহ ২৯০ নির্বাচিত সংসদ সদস্যের ফলাফলের গেজেট প্রকাশ করে। নির্বাচন কমিশন সচিব মোহাম্মদ সাদিক নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের গেজেটে স্বাক্ষর করেন। সেটি সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় বিজি প্রেস থেকে মুদ্রিত হয়ে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে পৌঁছায়।

এদিকে সরকারের একটি সূত্র জানায়, নব নির্বাচিত এমপিরা আজ শপথ নিলেও তারা সংবিধানের বিধান অনুযায়ী ২৪ জানুয়ারীর আগে কার্যভর গ্রহণ করতে পারবেন না। তার মানে তারা বৃহস্পতিবার শপথ নিলেও সংসদ অধিবেশন ২৪ জানুয়ারীর আগে বসতে পারবে না। সেই হিসাবে তারা কাজও করতে পারবেন না। যদিও সরকারের কেউ কেউ মনে করছেন এটা কোন বাঁধা নয়। তবে বিশিষ্ট আইনজীবী এডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান নিয়ে তাড়াহুড়া কিছুটা রয়েছে। কেন সেটা আমি বলতে পারবো না। তবে এত তাড়াহুড়া না করলেও হতো। আমার মনে হয় শপথ নিলেই এমপিরা কার্যভার গ্রহণ করতে পারবেন না।

উল্লেখ, নির্বাচন কমিশন নির্বাচিতদের গেজেট প্রকাশ করার পর এখন নির্বাচিত সংসদ সংখ্যা পুরনো ৩০০ নতুন ২৯০ সব মিলে ৫৯০ জন সংসদ সদস্য। এক সঙ্গে এত সংখ্যক সংসদ সদস্য থাকার ঘটনা বিরল।

এদিকে সংবিধান অনুযায়ী, সংসদ নির্বাচনের ফলাফল গেজেট আকারে প্রকাশের তিন দিনের মধ্যে শপথ পাঠ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সেই হিসাবে তারা তিনদিন হিসাবে নয় বৃহস্পতিবারই শপথ নিচ্ছেন। শপথ গ্রহনের ৩০ দিনের মধ্যে সংসদের অধিবেশন বসারও কথা রয়েছে। সেই হিসাবে বৃহস্পতিবার শপথ হওয়ার পর আগামী মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে সংসদের অধিবেশন বসতে পারে। এদিকে মন্ত্রী পরিষদ কবে নাগাদ গঠন হবে এই ব্যাপারে একটি সূত্র বলেছে মন্ত্রী পরিষদ চুড়ান্ত যে কোন দিন হবে। কেউ কেউ ১/২ দিনের মধ্যে হবে বলেই আভাস দিয়েছেন। এদিকে সরকারের নব নির্বাচিত একজন এমপি ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ বলেন, সংবিধান অনুযয়ী ২৪ জানুয়ারীর পর শপথ নিলেই ভাল হতো। এখন শপথ নিলেও কাজ করতে পারবো না। সেই হিসাবে এমপিরা শপথ নিলেও কাজ করতে পারছেন না। আবার যদি এই অবস্থায় মন্ত্রী পরিষদ গঠন করা হয় তাহলে তারা দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। কিন্তু সরকার এই অবস্থায় নতুন করে মন্ত্রী সভার শপথের ব্যবস্থা করবেন কিনা এটা আরো ভেবে দেখা প্রয়োজন। তিনি বলেন, সরকার এত তাড়াহুড়া কেন করছে এটা বুঝতে পারছি না।

এদিকে একটি সূত্র জানায়, বাংলাদেশের নির্বাচন বিএনপি সহ ১৮ দলীয় জোট মেনে নেয়নি। জনগনের একটি অংশ মেনে নেয়নি। তারা এই নির্বাচন বাতিল চায়। নতুন নির্বাচন চাইছে। আন্তর্জাতিক শক্তিগুলোও এই নির্বাচন মেনে নেয়নি। তারা সবাই হতাশ। এই অবস্থায় তারা বাংলাদেশের চলমান সমস্যা সমাধানের জন্য শান্তিপূর্ন সমাধান চেয়েছে। পাশাপাশি সহিংসতা বন্ধ করার জন্যও বলেছে। তবে তারা বাংলাদেশের বিষয়টি নিয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। এই অবস্থায় তারা নির্বাচনের আগে যে সব উদ্যোগ নিতে চেয়েছিল এখনও সেটা নিতে পারে। আর সেটা নিলে সরকারের উপর চাপও বাড়তে পারে। এছাড়াও সংকট বাড়তে পারে। নতুন সরকারের পক্ষে ক্ষমতায় থাকাও কঠিন হতে পারে। সরকার এই নিয়ে কোন ধরনের ঝুঁিক নিতে চাইচে না। নির্বাচন হওয়ার পর যত দ্রুত সম্ভব সরকার গঠন করতে চাইছে।

এদিকে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন, অর্থনৈতিক অবস্থার চলমান সংকট কাটিয়ে দেশকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরয়ে আনতে চাইছেন। এই জন্য তারা বিএনপির ও ১৮ দলীয় জোট যাতে করে কোন ধরনের আন্দোলন করে সফল হতে না পারে এই জন্য সরকার আরো কঠোর হবে। সরকার বিএনপিকে ঠেকানোর জন্য ও সব ধরনের আন্দোলন প্রতিহত করার জন্য সব ধরনের উদ্যোগ নিবে। সেটা নির্বাচিত সরকারের মাধ্যমেই করতে চাইছে। এই অবস্থায় সরকার মনে করছে বিএনপি যদি জনগনকে তাদের আন্দোলনে সম্পৃক্ত করতে কোন কারণে সক্ষম হয় সেটা সরকারের জন্য ভাল হবে না। এছাড়াও আরো একটি আশঙ্কাও সরকারের মধ্যে রয়েছে। সব দিক বিবেচনা করেই সরকার কোন ধরনের ঝুঁিক নিতে রাজি নয়।

একটি বিশেষ একটি সূত্র জানিয়েছে, সরকারের উপর আন্তর্জাতিক চাপ আরো বাড়বে। এমন হতে পারে যে তারা তিন মাসের মধ্যে আরো একটি নির্বাচন করানোর জন্য বাংলাদেশে সরকারের উপর চাপ দিতে পারে। সেই হিসাবে দ্রুত পরিস্থিতির পরিবর্তন হতে পারে।

উল্লেখ, দশম সংসদ নির্বাচনে ৩০০ সংসদীয় আসনে ১’শ ৫৩ জন বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হন। পরে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে নির্বাচিত হন ১৩৯ জন। বাকি আটটি আসনে পুনর্ভোট হবে ১৬ জানুয়ারি। যশোর-১ আসনে শেখ আফিলউদ্দিন ও যশোর-২ আসনে মনিরুল ইসলামের নাম বাদ রেখে বাকি ২৯০ আসনের গেজেট প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠার কারণে তাদেরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। এই জন্য অপেক্ষা করছে কমিশন। এই নির্বাচনে প্রকাশিত গেজেট অনুসারে সংসদে আওয়ামী লীগ ২২৯টি, জাতীয় পার্টি ৩৩টি, ওয়ার্কার্স পার্টি ৬টি, জাসদ ৫টি, স্বতন্ত্র ১৪ টি এবং তরিকত ফেড়ারেশন, বিএনএফ ও জেপি একটি করে আসন লাভ করেছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর