রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফাঁকা মাঠে গোল করা যেমন, এবারের নির্বাচনও তেমন

BBaria map-2দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আর মাত্র ১  দিন বাকি থাকলেও জনমনে নির্বাচনী কোনো আমেজ নেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। এখানকার চারটি আসনের প্রার্থীরাই কেবল নির্বাচনী আমেজে দিন পার করছেন। অপরদিকে আমেজহীন ভোটারদের মধ্যে আসন্ন নির্বাচন নিয়ে কোনো আগ্রহ নেই।

জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য মতে, এ জেলার ছয়টি সংসদীয় আসনের মধ্যে দু’টিতে (৪ ও ৬) বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এখন বাকি চারটি আসনে (১, ২, ৩ ও ৫) ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এ আসনগুলোতে মোট ১৪ জন প্রার্থী শেষ পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে লড়ছেন। জেলার নয়টি উপজেলার মধ্যে সদর, বিজয়নগর, আশুগঞ্জ, সরাইল, নাসিরনগর ও নবীনগর-এ ছয়টি উপজেলা চারটি আসনের অর্ন্তভূক্ত।

সূত্র জানায়, ব্রাহ্মলবাড়িয়া-১ আসনে (নাসিরনগর) আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট সায়েদুল হকের সঙ্গে লড়বেন জাতীয় পার্টির রেজুয়ান আহমেদ। ব্রাহ্মলবাড়িয়া-২ আসনে (সরাইল-আশুগঞ্জ) জাতীয় পার্টির প্রার্থী অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধার সঙ্গে লড়বেন জেপির জামিলুল হক (বাই সাইকেল), স্বতন্ত্র প্রার্থী নায়ার কবির (আনারস), হাফিজুর রহমান (টেলিভিশন), শাহ মো. মফিজ (তালা) ও আবু শামীম মো. আরিফ (হরিণ)।

ব্রাহ্মলবাড়িয়া-৩ আসনে (সদর-বিজয়নগর) কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সঙ্গে লড়বেন জেপি’র প্রার্থী ডা. ফরিদ আহমেদ (বাই সাইকেল), বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের (বিএনএফ) জহিরুল হক ভূঁইয়া (টেলিভিশন) ও ইসলামী ফ্রন্টের সৈয়দ নাঈম উদ্দিন (মোমবাতি)।

ব্রাহ্মলবাড়িয়া-৫ আসনে (নবীনগর) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় অভিযুক্ত সার্জেন্ট মজিবুর রহমানের ছেলে ব্যবসায়ী ফয়জুর রহমান বাদলের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দিতা করবেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী কাজী মামুনুর রশীদ।

এদিকে ভোট গ্রহণ হবে এমন ছয়টি উপজেলায় ঘুরে দেখা গেছে, ভোটের নির্বাচনের তৎপরতা এ এলাকাগুলোতে নেই। জাতীয় নির্বাচনে জনগণ ও সাধারণ ভোটারদের মধ্যে যে উৎসাহ-উদ্দীপনা থাকার কথা তার কিছুই এবার নেই।
 
সেখানকার ভোটাররা বাংলানিউজকে জানান, এবারের নির্বাচন নিয়ে তেমন কোনো আমেজ তাদের মধ্যে নেই। মিছিল, গণসংযোগ ও প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের দৌঁড়ঝাপও এলাকাগুলোতে একেবারে নেই বললেই চলে। গ্রামের চায়ের দোকানগুলোতে বিগত সময়ের মতো এবার নির্বাচনী ‘চা’ চলছে না বলেও জানিয়েছেন স্থানীয়রা।  

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল) আসনের ভোটার মাসুদুল আলম বাংলানিউজকে বলেন, নির্বাচনের মাত্র দু’দিন বাকি থাকলেও এখন পর্যন্ত এলাকায় প্রার্থীদের পোস্টার, লিফলেট ছাড়া তেমন নির্বাচনী প্রচারণা চোখে পড়েনি। এখানকার  ছয়জন প্রার্থীর মধ্যে জাতীয় পার্টির জিয়াউল হক মৃধা ও স্বতন্ত্র প্রার্থী নায়ার কবীর মাঠে থাকলেও অপর চার প্রার্থীকে এখনও দেখা যায়নি।

নবীনগর সদরের বাসিন্দা ব্যবসায়ী জালাল উদ্দিন বলেন, অতীতের নির্বাচনের সময় সারাদিন মাইকের আওয়াজে এলাকা সরগরম থাকলেও এবারের চিত্র পুরোপুরি ভিন্ন। নির্বাচন নিয়ে এবার মানুষের মধ্যে কোনো আগ্রহ নেই।

নাসিরনগরের স্কুল শিক্ষক সঞ্জয় দেব ও নাজমুল হুদা বাংলানিউজকে বলেন, এলাকার অনেক সাধারণ ভোটার তার এলাকার সব প্রার্থীদের নামও পর্যন্ত জানেন না। আবার অনেক ভোটার ভোট কেন্দ্রে যাবেন কি না এ নিয়েও দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভোগছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের নিউ মৌড়াইল এলাকার বাসিন্দা মীর শোভন বলেন, বিরোধী দল যেমন নেই তেমনি পছন্দের প্রার্থীও নেই। ফলে ভোট দিতে কেন্দ্রে যাব কি না এখনো সিদ্ধান্ত নেইনি।